শুক্রবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২২, ১৩ মাঘ ১৪২৮  |   ১৭ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   শিক্ষক রফিকুল ইসলামের দাফন সম্পন্ন
  •   কচুয়ায় সর্জন পদ্ধতিতে সবজি চাষে ঝুঁকছেন কৃষকরা
  •   বাগাদী চৌরাস্তায় আইল্যান্ড না থাকায় ঘটছে দুর্ঘটনা
  •   জমি অধিগ্রহণে আমার পরিবারের কোনো আর্থিক সম্পর্ক নেই : শিক্ষামন্ত্রী

প্রকাশ : ১৬ নভেম্বর ২০২১, ০০:০০

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে ব্যতিক্রমী আয়োজনে উদযাপিত হবে মহান বিজয় দিবস

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে ব্যতিক্রমী আয়োজনে উদযাপিত হবে মহান বিজয় দিবস
বিমল চৌধুরী ॥

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে ব্যতিক্রমী আয়োজনের মধ্য দিয়ে মহান বিজয় দিবস ২০২১ উদ্যাপনের লক্ষ্যে প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৫ নভেম্বর সোমবার বেলা ১১টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ। তিনি গভীর শ্রদ্ধার সাথে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্মরণ করেন। সকলকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে ব্যতিক্রমী আয়োজনের মধ্য দিয়ে যথাযোগ্য মর্যাদায় আমরা মহান বিজয় দিবস উদ্যাপন করবো। পরে সভাপতির অনুমতিক্রমে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ ইমতিয়াজ হোসেন চাঁদপুর জেলায় বিগত বছরের মহান বিজয় দিবস উদ্যাপন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভার কার্যবিবরণী পাঠ করে শোনান। অতঃপর জাতীয় কর্মসূচি প্রণয়ন ও বিগত বছরের প্রস্তুতিমূলক সভার কার্যবিবরণীর আলোকে চাঁদপুর জেলায় বিজয় দিবস উদ্যাপনের লক্ষ্যে জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ সকলের আলোচনাক্রমে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেন। তিনি বলেন, বর্তমানে করোনা পরিস্থিতি চাঁদপুরে খুবই ভালো পর্যায়ে রয়েছে। তা যদি অব্যাহত থাকে তাহলে আমরা ব্যাপক আয়োজনে মহান বিজয় দিবস উদ্যাপন করতে পারবো। তবে তার জন্যে সকলকে স্বাস্থ্যসচেতনতা অবলম্বন করতে হবে। সকলকে মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। করোনা যাতে বৃদ্ধি না পায় সেজন্যে সকলকে সতর্ক থাকতে হবে।

তিনি চাঁদপুরের বিজয় মেলা প্রসঙ্গে বলেন, বিজয় মেলা আমাদের কাছে একটি ঐতিহ্য। তবে যেহেতু আমরা এখনো করোনা থেকে পুরোপুরি মুক্ত হতে পারিনি, তাই এ করোনাকালীন বিজয় মেলা অনুষ্ঠিত হবে কিনা, তা এখনো বলতে পারছি না। তবে মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রণালয় যদি অনুমতি দেয় তা হলে আমরা বিজয় মেলা করতে পারব। তিনি বিজয়মেলা অনুষ্ঠিত হলে মহান বিজয় দিবসের আলোচনা বিজয়মেলা মঞ্চে নতুবা জেলা শিল্পকলার মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হবে বলে জানান। এছাড়া করোনার সামাজিক নিরাপত্তা বজায় রাখার লক্ষ্যে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর সময় তা যেন ব্যাহত না হয় সে বিষয়ে লক্ষ্য রাখার অনুরোধ জানান। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে শহীদ ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে অঙ্গীকার পাদদেশে পুষ্পস্তবক অর্পণের ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠান পর্যায়ে ৫ জন ও ব্যক্তিগতভাবে ১ জনের বেশি যেন জড়ো হতে না পারেন সেজন্যে নির্দেশনা প্রদান করা হয়।

যথাযোগ্য মর্যদায় মহান বিজয় দিবস উদ্যাপনে গৃহীত কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে, তোপধ্বনির মাধ্যমে বিজয় দিবসের শুভ সূচনা, মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদ ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে অঙ্গীকার পাদদেশে পুষ্পস্তবক অর্পণ, সকল সরকারি, আধাসরকারি, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ভবনসমূহে (সঠিক মাফ ও সাইজের) জাতীয় পতাকা উত্তোলন, জেলা এবং চাঁদপুর সদর উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধা, পুলিশ, আনসার-ভিডিপি, বিএনসিসি, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স, স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসাসহ বিভিন্ন শিক্ষা ও সামাজিক প্রতিষ্ঠান, স্কাউটস্, রোভার স্কাউটস্, গার্লস গাইড এবং শিশু-কিশোর সংগঠনের কুচকাওয়াজ পরিদর্শন ও সালামগ্রহণ, শিশু-কিশোরদের শরীর চর্চা ও ডিসপ্লে প্রদর্শন, ক্রীড়া অনুষ্ঠান এবং পুরস্কার বিতরণ, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা প্রদান, বিভিন্ন স্থানে শিশু-কিশোরসহ ছাত্র-ছাত্রীদের বিনামূল্যে মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক চলচ্চিত্র প্রদর্শনী, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদক বিরোধী কার্যক্রমে জনমত সৃষ্টির জন্য আলোচনা ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত, যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের সু-স্বাস্থ্য এবং জাতির শান্তি সমৃদ্ধি ও অগ্রগতি কামনা করে সকল মসজিদ, মন্দির, গীর্জা, প্যগোডা ও অন্যান্য ধর্মীয় উপাসনালয়ে বিশেষ মোনাজাত ও প্রার্থনা, হাসপাতাল, জেলখানা, এতিমখানা, সরকারি শিশু পরিবার মূক ও বধির স্কুলে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন, বাংলাদেশ নৌ বাহিনী ও বাংলাদেশ কোস্টগার্ডের সমম্বয়ের মাধ্যমে যৌথভাবে চাঁদপুর লঞ্চঘাটে কোস্টগার্ডের জাহাজ বিকেল ২টা থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত জনসাধারণের দর্শনের জন্য উন্মুক্ত রাখা, জেলার সকল উপজেলায় গুরুত্বপূর্ণ স্থানে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক প্রামাণ্যচিত্র ও চলচ্চিত্র প্রদর্শন, টি-টুয়েন্টি ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ও কাবাডি ও প্রীতি ফুটবল খেলাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়।

মহান বিজয় দিবস উদ্যাপনের লক্ষ্যে প্রস্তুতি সভায় বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণে মতামত ব্যক্ত করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুদীপ্ত রায়, স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত নারী মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ সৈয়দা বদরুন নাহার চৌধুরী, জেলা পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা মিজানুর রহমান, পুরাণবাজার ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ রতন কুমার মজুমদার, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি রোটারিয়ান কাজী শাহাদাত, শহীদ পাটওয়ারী, বর্তমান সভাপতি ইকবাল হোসেন পাটওয়ারী, মু্ক্িতযুদ্ধের সংগঠক অজয় কুমার ভৌমিক, জেলা মহিলা অওয়ামী লীগ সভানেত্রী অধ্যাপিকা মাসুদা নূর খান প্রমুখ। প্রস্তুতিমূলক সভায় জেলা প্রশাসনে দায়িত্বরত বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তাগণসহ সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

মহান বিজয় দিবসের প্রস্তুতিমূলক সভার পূর্বে জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশের সভাপ্রধানে আগামী ১৪ ডিসেম্বর যথাযোগ্য মর্যদায় শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালনের লক্ষ্যে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়