চাঁদপুর, মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারি ২০২৩, ১৭ মাঘ ১৪২৯, ৮ রজব ১৪৪৪  |   ২৯ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   আগামী নির্বাচনে অনেক চমক অপেক্ষা করছে
  •   ১৭ দিন পর করোনায় একজনের মৃত্যু, শনাক্ত ১০
  •   জাপানি দুই শিশু মায়ের জিম্মায় থাকবে
  •   হাজীগঞ্জের আমির হোসেনের প্রতারণার শিকার হয়ে সৌদি আরবে বহু প্রবাসী যুবক নিঃস্ব
  •   কোস্টগার্ডের অভিযানে ৪৪০ কেজি জাটকা মাছ জব্দ

প্রকাশ : ২২ নভেম্বর ২০২২, ০০:০০

মেয়র জিল্লুর রহমান জুয়েলের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হতে যাচ্ছে
চাঁদপুর কণ্ঠ রিপোর্ট ॥

চাঁদপুর পৌরসভার মেয়র অ্যাডঃ জিল্লুর রহমান জুয়েল তাঁর মেয়াদকাল দুই বছরে শহরে যে কটি উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়ন করেছেন, তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো রাস্তা প্রশস্তকরণ। বিশেষ করে শহরের মোড়গুলো প্রশস্ত করার উদ্যোগ সর্বমহলে প্রশংসিত হয়েছে। এর মধ্যে চিত্রলেখার মোড় উল্লেখযোগ্য। এই মোড়টি বর্তমানে প্রশস্ত তো হয়েছেই, তার সাথে ফুটপাতও হয়েছে। পূর্বের অবস্থান থেকে এখন এই সড়কের মোড়টি প্রায় পাঁচ ফুট প্রশস্ত হয়েছে। এছাড়া শহরের নতুন বাজার মোড় প্রশস্তকরণ কাজ চলছে। এখন এই প্রশস্তকরণ কাজ আরো এক ধাপ এগিয়ে চলছে সরকারি কলেজের সামনের রাস্তাটি প্রশস্ত করার মধ্য দিয়ে। এটা যেনো এক যুগান্তকারী পদক্ষেপ।

গতকাল চাঁদপুর সরকারি কলেজ এলাকায় গিয়ে দেখা গেলো কলেজের উত্তর পাশের বাউন্ডারি দেয়ালের অনেক বড় অংশ ভাঙ্গা এবং ভেতরে বড় বড় গাছ কাটার কাজ চলছে। এই দৃশ্য দেখেই বুঝা গেলো কলেজের উত্তর পাশের সড়কটি প্রশস্ত করার কাজ হয়তো শুরু হয়েছে। যে পরিকল্পনাটি ছিল পৌর মেয়র জিল্লুর রহমান জুয়েলের। তারপরও পূর্ণাঙ্গ তথ্য জানার জন্যে এ প্রতিবেদক কথা বলেন কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর অসিত বরণ দাশ এবং উপাধ্যক্ষ প্রফেসর আবুল খায়েরের সাথে। তাঁরাও জানালেন রাস্তা প্রশস্ত করার কাজ চলছে। তাঁরা বললেন, এ কাজের দ্বারা শুধু রাস্তা প্রশস্তই হবে না, এখানে ফুটপাতও হবে। অর্থাৎ চিত্রলেখা মোড় থেকে রাস্তার দক্ষিণ পাশে যে নতুন করে ফুটপাত করা হয়েছে, এই ফুটপাতটি সোজা পূর্ব দিকে গিয়ে কলেজের পূর্ব গেট পর্যন্ত যাবে। এই কাজের দ্বারা রাস্তাটি যেমন প্রশস্ত হবে, তেমনি এই সড়কে অতীব প্রয়োজনীয় একটা ফুটপাতও হয়ে যাবে।

চাঁদপুর শহরের খুবই গুরুত্বপূর্ণ এবং ব্যস্ততম সড়ক হলো সাবেক কুমিল্লা রোড বর্তমানে আঃ করিম পাটওয়ারী সড়ক। অথচ এই ব্যস্ততম সড়কটিতে নেই কোনো ফুটপাত। আর এখানেই রয়েছে এই জেলার সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ চাঁদপুর সরকারি কলেজ। এই সড়কের কলেজ সংলগ্ন অংশটি এতোটাই ব্যস্ত যে, সবসময় যানজট লেগেই থাকে। সড়কের দুই পাশে হাঁটার মতো এক ইঞ্চি জায়গাও নেই। এমতাবস্থায় মেয়রের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হলে রাস্তাটি প্রশস্ত তো হবেই, সে সাথে গুরুত্বপূর্ণ এই সড়কে ফুটপাতও হয়ে যাচ্ছে। তাই এ কাজে সরকারি কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা যেমনি খুশি, তেমনি জনগণও খুশি। আর এই জনহিতকর কাজের জন্যে কলেজের জায়গা ছেড়ে দেয়ায় কলেজ কর্তৃপক্ষের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন মেয়র জিল্লুর রহমান জুয়েল এবং চাঁদপুর শহরবাসী।

এ বিষয়ে অধ্যক্ষ প্রফেসর অসিত বরণ দাশ বলেন, কলেজও জনগণের, সড়কও জনগণের। এই রাস্তাটি এতোটাই সরু যে সবসময় যানজট লেগেই থাকে। আর ফুটপাত না থাকতে রাস্তার পাশ দিয়ে হাঁটা যায় না। এখানে ফুটপাত হলে কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরাই বেশি উপকৃত হবে। আর এমন জনকল্যাণকর কাজের জন্যে আমরা কলেজের তিন ফুট জায়গা ছেড়ে দিয়েছি। এ কাজের অংশ হিসেবেই গাছ কাটা হচ্ছে। আমি মেয়রের এ উদ্যোগকে স্বাগত জানাই। একইসাথে আমাদের মাননীয় মন্ত্রী শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপির প্রতিও কৃতজ্ঞতা জানাই। তাঁর হস্তক্ষেপেই এ কাজটি সহজভাবে করা সম্ভব হচ্ছে।

পৌর মেয়র জিল্লুর রহমান জুয়েল বলেন, আমার নির্বাচনী যে শ্লোগান ছিল নান্দনিক শহর, সে পরিকল্পনা অনুযায়ী আমি এগুচ্ছি। হয়তো সময় লাগবে। নান্দনিক চাঁদপুর শহরের পরিকল্পনারই একটি অংশ শহরের রাস্তা এবং গুরুত্বপূর্ণ মোড় প্রশস্তকরণ। আমি সেদিকে এগুচ্ছি। চিত্রলেখা মোড়সহ কলেজের সামনের সড়কটি প্রশস্তকরণ এবং এই সড়কে ফুটপাত করাটা খুবই প্রয়োজন ছিল। এ কাজে আমাদের মাননীয় মন্ত্রী শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপি সহযোগিতা করেছেন, সে জন্যে তাঁর প্রতি আমার অশেষ কৃতজ্ঞতা। একইসাথে কলেজ কর্তৃপক্ষের প্রতিও আমার কৃতজ্ঞতা। তাঁরা জায়গা ছাড় দেয়াতে আমি এ কাজটি করতে পারছি। এমন জনকল্যাণমূলক কাজে আমি জনগণের সহযোগিতা কামনা করছি।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়