চাঁদপুর, বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ১৬ আষাঢ় ১৪২৯, ২৯ জিলকদ ১৪৪৩  |   ২৯ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   কচুয়ায় অগ্নিকাণ্ডে বসতঘর পুড়ে ছাই
  •   বাংলাদেশে ঈদুল আজহা ১০ জুলাই
  •   ডাকাত সন্দেহে কোস্টগার্ডের হামলায় নিখোঁজ ১ : আহত ২
  •   হাজীগঞ্জে নবজাতকের লাশ উদ্ধার
  •   অধ্যাপক    কামরুজ্জামান সাহেবের স্মরণ সভা  ও মিলাদ

প্রকাশ : ১৯ মে ২০২২, ০০:০০

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ
অনলাইন ডেস্ক

গতকাল ১৮ মে বুধবার দৈনিক চাঁদপুর কণ্ঠের প্রথম পৃষ্ঠার ৫ম ও ৬ষ্ঠ কলামে প্রকাশিত ‘আরাফ জুয়েলার্সে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হামলা ॥ অর্ধকোটি টাকা লুটের অভিযোগ’ শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদটি আমি নিম্ন স্বাক্ষরকারীর দৃষ্টি গোচর হয়। আমি নিম্ন স্বাক্ষরকারী চাঁদপুর শহরের আঃ করিম পাটোয়ারী সড়কস্থ ইউছুফ ম্যানসনের সম্পত্তিটি ১৯৭০ সালে ক্রয় করে ১৯৭৪ সালে সরকারের নিয়ম ও বিধি মোতাবেক আবাসিক ও বাণিজ্যিক ভবন নির্মাণ করে দীর্ঘ ৫০বছর যাবত ভবনের নিচতলায় বিভিন্ন ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান ভাড়া দিয়ে আসছি। এক পর্যায়ে উক্ত এলাকাটি স্বর্ণ ব্যবসায়ী এলাকা হিসেবে পরিণত হলে আমি উক্ত দোকানটি নাহিদ চৌধুরীকে অস্থায়ী ভাড়াটিয়া হিসেবে মাসিক ভাড়ায় ১৪২৬ বাংলা থেকে ১লা বৈশাখ ১৪২৮ বাংলা ৩০ চৈত্র পর্যন্ত ৩ বছরের চুক্তিনামায় ভাড়া প্রদান করি।

চুক্তিনামা অনুযায়ী মেয়াদ শেষ হওয়ার পর কোনো কথাবার্তা না বলে নাহিদ চৌধুরী ব্যবসা করে আসছেন। দোকান ছাড়ার বা ভাড়ার নবায়ন বিষয়ে কথা বললে টালবাহানা শুরু করে। যা আশপাশের সকল ব্যবসায়ী এবং স্বর্ণ ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মোস্তফা মিয়া (ফুল মিয়া)সহ সমিতির সকল সদস্য অবগত রয়েছেন।

গত ১৬ মে সন্ধ্যায় মালিক পক্ষের প্রতিনিধি হিসেবে আমার ছেলে মেহমুদ হাই ও ভাগিনা মাসুদ পারভেজ বাবু পাটোয়ারী আরাফ জুয়েলার্সের মালিক নাহিদ চৌধুরীর সাথে দোকানের বিষয়ে কথা বলতে দোকানে প্রবেশ করা মাত্রই উক্ত নাহিদ চৌধুরী ও তার ভাই রিফাত চৌধুরী নানা অশোভন আচরণ করে এবং এক পর্যায়ে উত্তেজিত হয়ে মালিক পক্ষের দু প্রতিনিধির উপর রড, ছুরি ও দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হামলা করে। যা মার্কেটে স্থাপিত সিসিটিভি ফুটেজে পুলিশের তদন্তে বের হয়ে এসেছে।

শুধু তাণ্ডই নয়, আরাফ জুয়েলার্সের মালিক নাহিদ চৌধুরী আমার নাতি পরিচয়ে উক্ত এলাকায় ব্যবসা করে স্থানীয় ব্যবসায়ী এবং আমার কাছ থেকে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন সহযোগিতা নিয়েছে। এরপরও সে আমার ও পরিবারের সদস্যের বিরুদ্ধে বিভিন্ন মিথ্যা কথা এবং তথ্য উপস্থাপন করে সাংবাদিকদের মিথ্যে তথ্য দিয়ে সংবাদ পরিবেশনে সহযোগিতা করে।

আমি সুস্পষ্টভাবে বলতে চাই, এই শহরে আমার জন্ম, আজো এ শহরে রয়েছি, কেউ কোনো দিন আমার বা পরিবারের সদস্যদের নিয়ে কোনো অন্যায়ের সাথে জড়িত রয়েছে, এমন কোনো অভিযোগের প্রমাণ দিতে পারবে না। চাঁদপুরের অনেক সামাজিক, ধর্মীয় কাজে ছোট-বড় আমার অবদান রয়েছে। কিন্তু আমি মনে করি, উক্ত সংবাদে আমাকে ও পরিবারের সদস্যদের জড়িয়ে যে সংবাদ পরিবেশন করা হয়েছে তা শুধু নেহাত আমাদের পরিবারকে সামাজিকভাবে হেয়-প্রতিপন্ন করা ছাড়া অন্য কিছু নয়।

তাই প্রকাশিত সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

-ডাঃ আব্দুল হাই, ইউছুফ ম্যানশন, আঃ করিম পাটোয়ারী সড়ক, নতুন বাজার, চাঁদপুর।

জিডি ৩৭৪/২২

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়