সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ২ কার্তিক ১৪২৮, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩  |   ২৭ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   হাজীগঞ্জের পৃথক দুটি তদন্ত চলছে : পরিস্থিতি স্বাভাবিক : ১৪৪ ধারা প্রত্যাহার

প্রকাশ : ০৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:৩৫

শামীমে উচ্ছসিত ফরিদগঞ্জবাসী

প্রবীর চক্রবর্তী
শামীমে উচ্ছসিত ফরিদগঞ্জবাসী

চাঁদপুর তথা ফরিদগঞ্জ উপজেলার কৃতি ক্রিকেটার শামীম পাটওয়ারীর টি-২০ বিশ্বকাপ স্কোয়াডে স্থান পাওয়া নিয়ে উচ্ছসিত ফরিদগঞ্জবাসী। বিভিন্ন মিডিয়ায় বিশ্বকাপের দল ঘোষণার পর শামীম পাটওয়ারীর নাম উঠে আসায় বয়ে যায় আনন্দের জোয়ার। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো ভরে যায় তাকে ধন্যবাদ দেয়ার স্টেটাসে। খুশিতে আত্মহারা হয়ে পড়ে ক্রীড়াপ্রেমিরা।

ফরিদগঞ্জ উপজেলার ধানুয়া গ্রামের শামীম বিশ্বকাপ ক্রিকেটে শামীম ডানপীঠে এবং দুরন্ত বটে। পড়াশোনার চেয়ে ক্রিকেট খেলার প্রতি আগ্রহের কমতি ছিল না তার। শেষ পর্যন্ত বিশ্বজয়ের মিশনে যাচ্ছে চাঁদপুরের শামীম হোসেন পাটোয়ারী।

গ্রামের পুকুরে কিংবা পাশের ডাকাতিয়া নদীতে সাঁতার কাটা দুরন্তপতায় মেটে উঠা সেই ছেলেটি এখন টি টুয়েন্টি বিশ্বকাপ ক্রিকেট স্কোয়াডে। এমন আনন্দের সংবাদে খুশিতে আত্মহারা শামীম হোসেন পাটোয়ারীর পরিবারের সদস্যসহ গ্রামের ছোট বড় সবাই। চাঁদপুরের শামীম হোসেন পাটোয়ারীর বাড়িতে এখন আনন্দের বন্যা বইছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে জেলার ফরিদগঞ্জ উপজেলার ধানুয়া গ্রামে কথা হয়, ক্রিকেটার শামীম পাটোয়ারীর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে। ছেলের এমন অর্জনে বাবা আব্দুল হামিদ পাটোয়ারী, মা রিনা বেগম, এলাকাবাসী এবং তার প্রথম কোচ, বিসিবির জেলা কোঅর্ডিনেটর শামীম ফারুকীও বেশ খুশি।

শামীম হোসেন পাটোয়ারীর বড়ভাই মনির হোসেন পাটোয়ারী জানান, ছোটবেলা থেকেই ক্রিকেটের প্রতি খুব দুর্বল ছিল শামীম। বাড়ির উঠোনে কিংবা পতিত জমিতে সঙ্গীদের নিয়ে ক্রিকেট খেলতো সে। তবে পড়াশোনার দিকেও তার ঝোঁক ছিল। গ্রামের সবুজ নামে আরেক যুবক বলেন, বেশ ডানপীঠে শামীম বর্ষা এলেই পুকুরে কিংবা পাশের ডাকাতিয়া নদীতে দলবেঁধে সাঁতরে বেড়াতো।

যার হাতে প্রতিষ্ঠিত হয়ে শামীম হোসেন পাটোয়ারী আজ দেশ বিদেশে পরিচিতি পাচ্ছে। সেই কোচ শামীম ফারুকী জানান, ২০১১-১২ সালে যখন আমার কাছে ছিল তখন খুব দুষ্ট ছিল শামীম। তবে প্রশিক্ষণের কখনো ফাঁকি দেয়নি। তাতে নিয়ে যেখানেই যেতাম, সবার নজর কাড়তো শামীম। আর সেই সময় থেকেই আমার ভাবনা ছিল শামীম একদিন বড় মাপের ক্রিকেটার হবে। তার প্রত্যাশা টি টুয়েন্টি বিশ্বকাপেও বেশ ভালো করবে এবং দেশের সুনাম কুড়িয়ে আনতে সক্ষম হবে।

এদিকে, এলাকাবাসীর সঙ্গে ছেলের জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন শামীম পাটোয়ারীর বাবা কৃষক আব্দুল হামিদ পাটোয়ারী ও মা রিনা বেগম। তবে তাদের একটু আকুতিও আছে। চাঁদপুর-ফরিদগঞ্জ মূল সড়ক থেকে তাদের গ্রামের বড়ির যে সড়ক। তার বড়ই বেহালদশা। ভাঙাচুরা আর কাদামাখা সড়কটির প্রতি একটু নজর দিতে সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানান তারা।

জানা গেছে, আব্দুল হামিদ-রিনা বেগম দম্পতির ৫ সন্তানের মধ্যে শামীম হোসেন পাটোয়ারী সবার ছোট। সবশেষ গত গত মাসের ১৪ তারিখে বাবা মায়ের সঙ্গে দেখা করতে গ্রামে আসে শামীম হোসেন পাটোয়ারী। অনুর্ধ-১৯সহ আরো অসংখ্য আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে অংশ নিয়েছে সে। তবে এবারই প্রথম বিশ্বকাপে ডাক পড়েছে।

এদিকে ফরিদগঞ্জ উপজেলার কৃতি ক্রিকেটার শামীম হোসেন জাতীয় দলের হয়ে বিশ্বকাপ ক্রিকেটে খেলার সুযোগ পাওয়ায়, স্থানীয় সাংসদ মুহাম্মদ শফিকুর রহমান, ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহসভাপতি অ্যাড. জাহিদুল ইসলাম রোমান, ফরিদগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি, শিউলী হরি, ফরিদগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল খায়ের পাটওয়ারী ও ফরিদগঞ্জ উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক নুরুন্নবী নোমান অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

ফরিদগঞ্জ উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক নুরুন্নবী নোমান জানান, শামীম আমাদের মান রেখেছে। অপেক্ষা এখন বিশ্বকাপ মঞ্চে তার যোগ্যতার নিদর্শন প্রর্দশন। তিনি বলেন, অনুর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জয়ী শামীম পাটওয়ারীসহ ফরিদগঞ্জ উপজেলার দুইজনকে শুধু তারা সংর্বধনা দিয়েই ক্ষান্ত হননি। করোনাকালেসহ তাদের বাড়িতে অবস্থানকালে নিবিড় অনুশীলনের জন্য ফরিদগঞ্জ এ আর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে পৃথক প্র্যাকটিস গ্রাউন্ড তৈরি করে দিয়েছেন।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়