চাঁদপুর, রবিবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২২, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ৯ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪  |   ২২ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   ফরিদগঞ্জে কিন্ডারগার্টেন এসোসিয়েশন মেধাবৃত্তি পরীক্ষা
  •   হাইমচরে রাতভর পাহারা দিয়েও রক্ষা হয়নি চরের মাটি
  •   বড়স্টেশন মেঘনায়  ট্রলারের ধাক্কায় নিঁখোজ জেলের লাশ পাঁচদিন পর উদ্ধার
  •   মতলব উত্তরে মোটর সাইকেল দূর্ঘটনায় আহত তানভীরও চলে গেলো না ফেরার দেশে
  •   কাল হেলিকপ্টারে মতলব উত্তরে আসছেন ড. এনায়েতুল্লাহ আব্বাসী

প্রকাশ : ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০০:০০

২৯ সেপ্টেম্বর শুরু হচ্ছে ১৯তম জেলা প্রশাসক কাপ ফুটবল

২৯ সেপ্টেম্বর শুরু হচ্ছে ১৯তম জেলা প্রশাসক কাপ ফুটবল
চৌধুরী ইয়াসিন ইকরাম ॥

প্রায় দুবছর পর আগামী ২৯ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার থেকে চাঁদপুর স্টেডিয়ামে শুরু হচ্ছে ১৯তম জেলা প্রশাসক কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট। চাঁদপুর জেলা প্রশাসন ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার আয়োজনে টুর্নামেন্টে অংশ নিতে যাচ্ছে জেলার ৮ উপজেলার ক্রীড়া সংস্থার ফুটবল দলগুলো। টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী দিনের খেলায় অংশ নেবে ফরিদগঞ্জ উপজেলা ক্রীড়া সংস্থা ও মতলব উত্তর উপজেলা ক্রীড়া সংস্থা।

টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন চট্টগ্রাম বিভাগের বিভাগীয় কমিশনার মোঃ আশরাফ উদ্দিন। সভাপতিত্ব করবেন জেলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি ও জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতি ও পুলিশ সুপার মোঃ মিলন মাহমুদ, বিপিএম (বার), জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতি ও চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নাছির উদ্দিন আহমেদ, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল, জেলা ক্রীড়া সংস্থা ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ডাঃ জেআর ওয়াদুদ টিপু এবং চাঁদপুর পৌরসভার মেয়র মোঃ জিল্লুর রহমান জুয়েল।

চাঁদপুর জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে গত ১১ সেপ্টেম্বর বিকেলে চাঁদপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থার ফুটবল উপ-কমিটির সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, চলতি মাসেই আয়োজন করা হবে জেলা প্রশাসক কাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি ও জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান। সভায় উপস্থিত সকলের সিদ্ধান্ত মতে এবং জেলার ৮ উপজেলার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সেক্রেটারীদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী খেলার ফিকশ্চারসহ খেলার তারিখ নির্ধারণ করা হয়। টুর্নামেন্টের দলগুলো হলো : চাঁদপুর সদর, মতলব দক্ষিণ, কচুয়া, হাইমচর, মতলব উত্তর, হাজীগঞ্জ, শাহরাস্তি ও ফরিদগঞ্জ উপজেলা ক্রীড়া সংস্থা।

টুর্নামেন্টের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এবারের চ্যাম্পিয়ন দল পাবে ৭৫ হাজার টাকা এবং রানার্স আপ দল পাবে ৫০ হাজার টাকা। প্রতিটি দলই খেলতে পারবে স্থানীয় ৫ জন ও বহিরাগত ৬ জন ফুটবলার নিয়ে। বহিরাগত ৬ জন ফুটবলারের মধ্যে ২ জন বিদেশেী ফুটবলার এবং ৪ জন বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবলদল সহ ঢাকার বিভিন্ন ক্লাবে খেলা ফুটবলার খেলতে পারবেন। তবে সভা চলাকালীন সময় কয়েকটি উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদকগণ আবেদন করেছিলেন টুর্নামেন্টের প্রাইজমানি বাড়ানোর জন্য। তাদের দাবি ছিলো চ্যাম্পিয়ন দল পাবে ১ লাখ টাকা এবং রানার্সআপ দল পাবে ৭৫ হাজার টাকা। এরসাথে প্রতিটি উপজেলার কর্মকর্তাগণ দাবি জানিয়েছিলেন আয়োজকদের পক্ষ থেকে যেনো প্রত্যেক দলের খেলোয়াড়দের জার্সি দেয়া হয়। এছাড়া তারা আরো দাবি করেন, টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী দিনের খেলা থেকে ফাইনাল পর্যন্ত যেনো ঢাকার রেফারী দিয়ে খেলা পরিচালনা করা হয়।

টুর্নামেন্টে অংশ নেয়া ৮দলের মধ্যে লটারীও হয়েছে। লটারী অনুযায়ী ‘ক’ গ্রুপের দলগুলো হলো : হাজীগঞ্জ উপজেলা ক্রীড়া সংস্থা, কচুয়া উপজেলা ক্রীড়া সংস্থা, শাহরাস্তি উপজেলা ক্রীড়া সংস্থা ও হাইমচর উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার ফুটবল দল। ‘খ’ গ্রুপের দলগুলো হলো : চাঁদপুর সদর উপজেলা ক্রীড়া সংস্থা, ফরিদগঞ্জ উপজেলা ক্রীড়া সংস্থা, মতলব উত্তর উপজেলা ক্রীড়া সংস্থা ও মতলব দক্ষিণ উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার ফুটবল দল।

টুর্নামেন্টের ফিকশ্চার অনুযায়ী ২৯ সেপ্টেম্বর খেলবে ফরিদগঞ্জ বনাম মতলব উত্তর উপজেলা, ৩০ সেপ্টেম্বর হাজীগঞ্জ বনাম শাহরাস্তি উপজেলা, ১ অক্টোবর চাঁদপুর সদর বনাম মতলব দক্ষিণ উপজেলা ও ২ অক্টোবর হাজীগঞ্জ বনাম কচুয়া উপজেলা। ৪ অক্টোবর টুর্নামেন্টের প্রথম সেমি-ফাইনাল ও ৫ অক্টোবর ২য় সেমি-ফাইনাল। আয়োজকদের ফিকশ্চার অনুযায়ী ৭ অক্টোবর ফাইনাল হওয়ার কথা। যদিও আয়োজকরা জানিয়েছেন সঠিক সময়েই খেলা শেষ হবে। কিন্তু আদৌ সঠিক সময়ে টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা ও পুরস্কার বিতরণ হবে কিনা সেই অপেক্ষায়ই থাকবে জেলার ফুটবল খেলোয়াড়সহ দর্শকরা।

সভায় উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সেক্রেটারীদের সাথে আলাপকালে তুলে ধরা হয় মতলব দক্ষিণ, কচুয়া ও শাহরাস্তি উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার ফুটবল দলগুলো যেনো ভালো মানের ফুটবলার দিয়ে দল গঠন করে। এছাড়া ওই দলগুলো যেনো তাদের খেলোয়াড়দের জার্সি একই কালারের ব্যবহার করে। তাছাড়া প্রতিটি দলকেই জাতীয় পতাকার মাপ অনুযায়ী স্ব স্ব উপজেলার পতাকা তৈরি এবং জার্সি একই কালার ব্যবহার করার কথা বলা হয়। খেলাগুলো ফিফার ও বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের নিয়ম অনুযায়ীই পরিচালনা করা হবে। খেলা চলাকালীন ফুটবল উপ-কমিটির টেকনিক্যাল কমিটির সদস্য ছাড়া প্রতিটি দলের ২৫ জন করে খেলোয়াড়, কোচ ও কর্মকর্তাগণ মাঠে প্রবেশ করতে পারবেন। খেলা চলাকালীন খেলোয়াড়দের জন্য মেডিকেল টিমসহ অ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা রাখা হবে মাঠে।

জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে ফুটবল টুর্নামেন্টের প্রস্তুতি সংক্রান্ত সভা পরিচালনা করেন জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা বাবু। সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতি ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার ফুটবল উপ-কমিটির সভাপতি পুলিশ সুপার মোঃ মিলন মাহমুদ, বিপিএম (বার), অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ ইমতিয়াজ হোসেন, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতি ও ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডঃ জাহিদুল ইসলাম রোমান।

সভায় আরো বক্তব্য রাখেন মতলব দক্ষিণ উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা ফাহমিদা হক, শাহরাস্তি উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা হুমায়ন রশিদ, জেলা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও চাঁদপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্য মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ।

সভায় উপস্থিত ছিলেন জেলা ক্রীড়া সংস্থার অতিরিক্ত সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব তাফাজ্জল হোসেন এসডু পাটওয়ারী, যুগ্ম সম্পাদক আবুল কাশেম আখন্দ, সালাউদ্দিন শান্ত, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্য ও ফুটবল উপ-কমিটির সম্পাদক শাহির হোসেন পাটোয়ারী, সদস্য মনোয়ার হোসেন চৌধুরী, সদস্য ও চাঁদপুর পৌরসভার কাউন্সিলর সোহেল রানা, জেলা ক্রীড়া অফিসার তারিকুল ইসলাম, হাইমচর উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সম্পাদক আতিকুর রহমান পাটওয়ারী, মতলব দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম আলেক, কচুয়া উপজেলার সম্পাদক সন্তোষ চন্দ্র সেন, মতলব উত্তর উপজেলার সম্পাদক একেএম আজাদ, ফরিদগঞ্জ উপজেলার সম্পাদক নুরন্নবী নোমান, চাঁদপুর সদরের সম্পাদক তপন চন্দসহ অন্যরা। উপস্থিত ছিলেন না হাজীগঞ্জ ও শাহরাস্তি উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার কোনো প্রতিনিধি।

এদিকে জেলা প্রশাসক কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট উপলক্ষে প্রতিটি উপজেলার দলগুলোর স্থানীয় ফুটবলারগণ অনুশীলন করছেন। তবে স্থানীয় ফুটবলারদের উল্লেখযোগ্য ফুটবলারদের মাঠে নিয়মিত অনুশীলন করতে দেখা যায়নি। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে ‘খ’ গ্রুপের দলগুলোর মধ্যে চাঁদপুর সদর, ফরিদগঞ্জ ও মতলব উত্তর উপজেলার কর্মকতারা তাদের স্থানীয় ফুটবলারসহ ঢাকার ফুটবলারদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন।

জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা বাবু এ প্রতিবেদককে জানান, মহামারি করোনাকালীন সময় দুই বছরে এই ফুটবল টুর্নামেন্টের আয়োজন করা হয়নি। ১৮তম জেলা প্রশাসক কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট আয়োজনের দুই বছর পর এ বছর ১৯তম আসরের আয়োজন করা হয়েছে। এবারের টুর্নামেন্টটি জাঁকজমকপূর্ণভাবে আয়োজন করা হচ্ছে। প্রতিটি খেলা যেনো সুন্দরভাবে পরিচালনা করতে পারি, এজন্যে সকল উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সম্পাদকের সহযোগিতা আশা করছি। খেলার সময় মাঠে যাতে সুন্দরভাবে খেলা চালানো যায় সেই ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। আয়োজকদের পক্ষ থেকে সকল কিছুই সুন্দরভাবে পরিচালনার জন্য গতকাল সোমবার থেকে প্রচারণা শুরু করা হয়েছে। টুর্নামেন্টটি চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার মোঃ আশরাফউদ্দিন উদ্বোধন করবেন। খেলার ফাইনাল সঠিক সময়ে হবে কিনা সেই সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, মাঠের অবস্থা এবং প্রাকৃতিক অবস্থা ভালো থাকলে খেলার ফিকশ্চার অনুযায়ী নির্ধারিত সময়েই ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হবে। আশা করছি শিক্ষামন্ত্রী ফাইনাল খেলার চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সআপ দলের মাঝে প্রধান অতিথি হিসেবে পুরুস্কার বিতরণ করবেন।

জেলা ক্রীড়া সংস্থার ফুটবল উপ-কমিটির সম্পাদক ও ক্রীড়া সংগঠক শাহীর হোসেন পাটওয়ারীর সাথে আলাপকালে তিনি এ প্রতিবেদকে জানান, আমরা যথাসময়েই খেলার আয়োজনের জন্য সকল কিছুই প্রস্তুত করে রেখেছি। মাঠও প্রস্তুত করে রাখা হয়েছে। আমরা আশা করছি টুর্নামেন্টের ফিকশ্চার অনুযায়ীই আমরা খেলাগুলো পরিচালনা করবো। মাঠে দলের খেলোয়াড় ছাড়া অতিরিক্ত কেউই প্রবেশ করতে পারবে না। সুন্দরভাবে খেলা পরিচালনার জন্য সকলের সহযোগিতা প্রত্যাশা করছি।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়