চাঁদপুর, শুক্রবার, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২০ মাঘ ১৪২৯, ১১ রজব ১৪৪৪  |  
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   কচুয়ায় রিয়া হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন
  •   কোস্টগার্ডের অভিযানে চাঁদপুর কোর্ট স্টেশনে ১৩শ’ কেজি জাটকা জব্দ
  •   ডাঃ সাজেদা পলিন নড়াইলের সিভিল সার্জন
  •   মতলবের আনন্দবাজারে অগ্নিকাণ্ডে পাঁচটি দোকান পুড়ে ২৫ লক্ষ টাকার ক্ষয়-ক্ষতি
  •   ভাষার মাসের প্রথমদিনে বাংলায় রায় দিলেন হাইকোর্ট

প্রকাশ : ৩০ নভেম্বর ২০২২, ০০:০০

এমন মৃত্যু কাম্য নয়
অনলাইন ডেস্ক

বিশ্বের সকল মানুষ এক ধর্মের নয়, এক বর্ণের নয়, এক মতের নয়, এক ধর্মীয় নেতা বা রাজনৈতিক নেতার অনুসারী নয় এবং কোনো কিছুর একক সমর্থক নয়। ধর্মণ্ডবর্ণ-মত-সমর্থনে আছে বৈচিত্র্য, আছে বিভিন্নতা। এটা উদার, বিবেকসম্পন্ন মানুষ মেনে নিলেও উগ্র, গোঁড়া, অন্ধ মানসিকতার মানুষ সাধারণত মেনে নিতে পারে না। সেজন্যে তারা খোঁচাখুঁচি করে, বাক্-বিতণ্ডা করে, মারামারি করে, এমনকি খুনাখুনিও করে। পরিণামে কতো ধ্বংসযজ্ঞ, কতো প্রাণহানি হয়েছে তার হিসেব মিলানো কঠিন।

বর্তমানে চলছে ফুটবল বিশ্বকাপের খেলা। কাতার বিশ্বকাপ ২০২২-এর খেলায় বাংলাদেশের কোনো দল নেই। বাংলাদেশ ক্রিকেটে অনেক এগিয়ে গিয়ে বিশ্বকাপ খেলতে পারলেও ফুটবলে আছে অনেক পিছিয়ে। বাংলাদেশের জাতীয় ফুটবল দলের বিশ্বকাপ খেলাটা কবে নাগাদ সম্ভব-সেটা নির্ণয়ে বোধহয় কেউ ভাবে না। আর বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনায় জাতীয় ফুটবল দলের বিশ্বকাপ খেলার কোনো আলামত বা সম্ভাবনা আছে বলে মোটেও মনে হয় না। তবে বাংলাদেশের মানুষ ক্রিকেটকে যতোটা ভালোবাসে, ফুটবলকে মনে হয় তারচে’ অনেক বেশি ভালোবাসে। তার প্রমাণ প্রতিটা বিশ্বকাপ আসলেই পাওয়া যায়। যেমনটি পাওয়া যাচ্ছে চলমান কাতার বিশ্বাকাপ ২০২২-কে কেন্দ্র করে। দীর্ঘদিন বিশ্বকাপে খেলা ও বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হওয়া দলগুলোর প্রতি বাংলাদেশের মানুষের সমর্থন অস্বাভাবিক বেশি। বিশেষ করে ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা দলের সমর্থকে যেনো পুরো দেশটা ঠাসা হয়ে আছে। এ দুটি প্রিয় দলের পতাকা যেভাবে সর্বত্র উড়ে, নিজ দেশের পতাকাও সেভাবে উড়ে না। আর সমর্থকদের জার্সি গায়ে দেয়া সহ সমর্থন প্রকাশের বহুবিধ কর্মকাণ্ড তো আছেই। এসব নিয়ে গণমাধ্যমে মাতামাতির চেয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মাতামাতি অনেক বেশি। একে অপরকে ঘায়েল করার পরিশীলিত, যৌক্তিক, নান্দনিক প্রয়াস যেমন দেখা যায়, তেমনি নিন্দনীয়, ঘৃণ্য, দুঃখজনক প্রকাশভঙ্গিও দেখা যায়। আর সরাসরি, সশরীরে রসাত্মক ও ব্যঙ্গাত্মক আলোচনা যেমন চলে, আক্রমণাত্মক আচরণও তেমন চলে। যার ফলে হতাহত হবার ঘটনাও ঘটে। যেমনটি ঘটেছে গত সোমবার চাঁদপুর সদর উপজেলার বাগাদী ইউনিয়নের নানুপুর গ্রামে। সম্ভবত এবারের বিশ্বকাপ ফুটবল চলাকালীন এটিই উল্লেখযোগ্য মর্মান্তিক ঘটনা।

চাঁদপুর কণ্ঠে প্রকাশিত সংবাদ থেকে জানা যায়, দুদিন আগে আর্জেন্টিনার খেলা দেখার সময় বাগাদী ইউনিয়নের নানুপুরের মেহেদী (১৬)-এর সাথে তার বন্ধু বরকত (২০)-এর বাক্বিত-া হয়। এতে দুজনের মধ্যে মারামারিও হয়। এর জের ধরে গত ২৮ নভেম্বর ২০২২ সোমবার সন্ধ্যায় বরকত বাড়ি থেকে মেহেদীকে ডেকে নিয়ে নানুপুর আমিন বেপারীর বাড়ির সামনে ছুরিকাঘাত করে। ঘটনার পর পরই মেহেদীকে উদ্ধার করে চাঁদপুর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্মরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে চাঁদপুর মডেল থানার পুলিশ খুনি বরকতকে আটক করে। খুনের শিকার মেহেদী দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী এবং হেলাল বেপারীর পুত্র।

ধর্ম-বর্ণ-মত-সমর্থনের বিভিন্নতা সত্ত্বেও মানুষ পাশাপাশি সহাবস্থান করে। এই সহাবস্থানের জন্যে পরস্পরের প্রতি স্নেহ মমতাণ্ডশ্রদ্ধাবোধ তথা সম্প্রীতি সর্বোপরি উদারতা ও ধৈর্য থাকতে হয়। এটা আছে বা থাকে বলেই বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটার পরও মানুষের সমাজ টিকে আছে। কিন্তু মাঝে মধ্যে বাড়াবাড়িমূলক ২-১টি ঘটনা সমাজের ভিতকে কাঁপিয়ে দেয়। আর্জেন্টিনার খেলাকে কেন্দ্র করে মেহেদী খুনের ঘটনা তেমনই একটি ঘটনা। এটা দলকে সমর্থন করতে গিয়ে অন্ধত্ব পরিহার করতে না পারার কারণে যে ঘটেছে-সেটা সহজে বুঝা যায়। এমন অন্ধত্ব কাম্য নয়, এমন মৃত্যুও কাম্য নয়। আমরা খুনি বরকতের সর্বোচ্চ শাস্তিস্বরূপ মৃত্যুদণ্ড দাবি করছি।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়