শুক্রবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২২, ১৩ মাঘ ১৪২৮  |   ১৭ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   শিক্ষক রফিকুল ইসলামের দাফন সম্পন্ন
  •   কচুয়ায় সর্জন পদ্ধতিতে সবজি চাষে ঝুঁকছেন কৃষকরা
  •   বাগাদী চৌরাস্তায় আইল্যান্ড না থাকায় ঘটছে দুর্ঘটনা
  •   জমি অধিগ্রহণে আমার পরিবারের কোনো আর্থিক সম্পর্ক নেই : শিক্ষামন্ত্রী

প্রকাশ : ০৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:৪৮

বালিথুবায় সিআইপি বেড়িবাঁধে পরিত্যক্ত অবস্থায় শিশু উদ্ধার, এলাকায় চাঞ্চল্য

এমরান হোসেন লিটন
বালিথুবায় সিআইপি বেড়িবাঁধে পরিত্যক্ত অবস্থায় শিশু উদ্ধার, এলাকায় চাঞ্চল্য

ফরিদগঞ্জ উপজেলার ১ নং বালিথুবা ইউনিয়নের ঔষধ বাড়ির পশ্চিম পাশে সাবেক চেয়ারম্যান স্বপন মিয়াজীর মার্কেটের সামনে সিআইপি বেড়িবাঁধের উপর থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় এক জীবিত শিশু উদ্ধার করা হয়েছে।

ঘটনাস্থলে গিয়ে জানা যায়, শুক্রবার রাত ৮টার সময় পার্শ্ববর্তী খাঁড়খাদিয়া গ্রামের গাজিবাড়ির আহসান গাজী ও কামালগাজি উল্লেখিত স্থান দিয়ে সিএনজি অটো রিকশা নিয়ে বাড়ির দিকে যাচ্ছিলেন। এ সময় হঠাৎ দেখতে পান স্বপন মিয়াজীর মার্কেটের সামনে পূর্ব পাশে তোয়ালে পেঁচানো কি জানি দেখা যায়। পরে তাদের মনে সন্দেহ জাগলে তাদের নিজস্ব পরিবহন থামিয়ে সেখানে গিয়ে দেখতে পান, একটি শিশু। শিশুটি জীবিত এবং ছেলে সন্তান। পরে তারা মোবাইল ফোনের মাধ্যমে চেয়ারম্যানের শরণাপন্ন হলে গ্রাম পুলিশ দিয়ে শিশুটিকে উদ্ধার করে কয়েকদিন দেখাশোনার জন্য কামালগাজির নিকট হস্তান্তর করেন।

কামাল গাজীর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আমি এবং আহসান গাজী স্বপন মিয়াজীর মার্কেটের সামনে তোয়ালো পেঁচানো শিশুটিকে দেখতে পাই। পরে স্থানীয় চেয়ারম্যানের শরণাপন্ন হলে তিনি শিশুটিকে আমার জিম্মায় রাখেন। কামাল গাজী বলেন, শিশুটিকে দেখার জন্য সকাল থেকে শত শত লোক বাড়িতে ভিড় জমাচ্ছে।

অন্যদিকে চেয়ারম্যান শফিকুর রহমান পাটোয়ারীর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, শিশুটিকে বর্তমানে কামাল গাজির নিকট রেখেছি। বর্তমানে শিশুটি কামাল গাজির স্ত্রীর দুগ্ধ পান করছে। সকাল থেকে অদ্যাবধি কয়েকশো ফোন দেশ এবং বিদেশ থেকে এসেছে শিশুটিকে নেওয়ার জন্য। কিন্তু আমি অপেক্ষায় আছি শিশুটির প্রকৃত অভিভাবক যোগাযোগ করে কিনা। শিশুটির বয়স আনুমানিক তিন থেকে চারদিন হবে। শিশুটির প্রকৃত অভিভাবক না পেলে একজন ভালো গার্জিয়ান দেখে তার কাছে হস্তান্তর করার চিন্তাভাবনা আছে বলে তিনি জানান। তিনি আরো বলেন, সকাল থেকে শত শত লোক ফোন করে শিশুটির খবরা খবর নিচ্ছেন। মোবাইল ফোনের মাধ্যমে শিশুটির বিষয়ে মানুষকে তথ্য দিতে গিয়ে নিজের কাজে অত্যন্ত ব্যাঘাত ঘটছে বলে তিনি বলেন।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়