মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর, ২০২২  |   ২৭ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   নদীতে যৌথ অভিযান হবে এবং যথাযথ শক্তভাবে হবে : জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান
  •   শেখ ফরিদ আহমেদ মানিকের সুস্থতা কামনায় মসজিদে দোয়া
  •   হাসপাতাল হলো ময়লার ভাগাড়
  •   মায়ের বুকে শিশুর মৃত্যু?
  •   পানিতে ডুবে ৫ম শ্রেণীর ছাত্রের মৃত্যু

প্রকাশ : ০৬ আগস্ট ২০২২, ১৮:০৮

মতলবে উচ্ছেদকৃত স্থানে আবারও দোকান ঘর স্থাপন

রেদওয়ান আহমেদ জাকির
মতলবে উচ্ছেদকৃত স্থানে আবারও  দোকান ঘর স্থাপন

মতলব পৌর এলাকার বরদিয়া আড়ংবাজার সংলগ্ন মতলব-বাবুরহাট-পেন্নাই সড়কের পাশে সরকারি জায়গায় অবৈধভাবে গড়ে ওঠা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান উচ্ছেদের পরও পুনরায় দোকান ঘর উত্তোলন করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান চালিয়ে যাচ্ছে। ওই এলাকার সিদ্দিকুর রহমানের ছেলে মোঃ বিল্লাল হোসেন ভাড়া প্রতিষ্ঠান চালিয়ে আসছে।

২০১৯সালের ৩০ সেপ্টেম্বর সোমবার ওই সময়ের দায়িত্বে থাকা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ শাহিদুল ইসলামের উপস্থিতিতে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) নুশরাত শারমিন এ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেছিলেন।

মতলব পৌর ভূমি অফিস সূত্রে জানা যায়, মতলব পৌর এলাকার মোবারকদী গ্রামের সিদ্দিকুর রহমানের ছেলে মোঃ বিল্লাল হোসেন ১৮০নং মোবারকদী মৌজার ৩৪০ দাগে খাল শ্রেণির ১নং খতিয়ানে সরকারি জায়গার উপর খালের পাশে ২০১৮ সালের শেষের দিকে পাকা ও আধাপাকা দোকানঘর নির্মাণ কাজ শুরু করেন। বিষয়টি স্থানীয় সচেতন মহল সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করলে মতলব পৌর ভূমি অফিসে ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মোঃ হাবিব উল্লাহ পাটোয়ারী ঘটনাস্থলে গিয়ে অবৈধভাবে দোকানঘর নির্মাণে বাধা প্রদান করলেও বিল্লাল হোসেন জোরপূর্বক রাতের অন্ধকারে টিনের ও পাকা দোকানঘর নির্মাণ করে। তার এই দোকান নির্মাণের বিষয়টি ২০১৯ সালের ১২ জুনসহ দৈনিক চাঁদপুর কণ্ঠ পত্রিকায় বেশ ক’বার সংবাদটি প্রকাশিত হয়। ওই সময়ে সংবাদ প্রকাশের পর তার অবৈধ দোকান নিজ খরচে অপসারণ করার জন্যে উপজেলা ভূমি অফিস থেকে দুই দফা চিঠি দেয়া হয়। কিন্তু বিল্লাল সরকারি নির্দেশ অমান্য করে ব্যবসা চালিয়ে রাখে।

এদিকে অবৈধ দোকান উচ্ছেদ করার অনুমতি চেয়ে উপজেলা প্রশাসন জেলা প্রশাসনের কাছে চিঠি দেয়। পরবর্তীতে জেলা প্রশাসকের নির্দেশক্রমে উপজেলা প্রশাসন ২০১৯ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর সোমবার উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করে। ওই সময় মতলব পৌর ভূমি অফিসের সহকারী কর্মকর্তা হাবিব উল্লাহ পাটোয়ারী, অফিস সহকারী মোঃ সায়েদ আলীসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

মতলব পৌর ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মোঃ শাহজাহান খান বলেন, আমি অফিসের বাহিরে আছি। বিষয়টি জানিনা।

সহকারী কমিশনার (ভ‚মি) সেটু কুমার বড়–য়া জানান, সরকারি জায়গায় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের উচ্ছেদ ও পরবর্তীতে আবারও দোকান ঘর স্থাপন বিষয়টি আমি অবগত নই। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়