সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২১  |   ২৮ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   শাহরাস্তি উপজেলা পরিষদের উপ-নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন নাসরিন জাহান সেফালী।
  •   হিজড়াদের জন্য যা থাকছে নতুন শিক্ষাক্রমে

প্রকাশ : ৩০ জুলাই ২০২১, ০৪:৪৫

দূর হচ্ছে জেলার অক্সিজেন সংকট

আগামী চার দিনের মধ্যে চালু হচ্ছে চাঁদপুর লিকুইড অক্সিজেন প্লান্ট

রাসেল হাসান
আগামী চার দিনের মধ্যে চালু হচ্ছে চাঁদপুর লিকুইড অক্সিজেন প্লান্ট

চাঁদপুরে চলছে অক্সিজেনের তীব্র সংকট। প্রতিদিন গড়ে ৬শ' লিটার অক্সিজেন প্রয়োজন হলেও তার বিপরীতে পুরে জেলার জন্য মজুদ রয়েছে মাত্র ২৪০ লিটার। অক্সিজেনের অভাবে প্রতিদিনই বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা। গত বৃহস্পতিবার হাসপাতাল চত্তরেই অক্সিজেনের অভাবে মারা গেছেন এক রোগী। অক্সিজেনের জন্য হাহাকার করেও সংগ্রহ করতে পারেননি স্বজনরা। বুধবার রাত ১০টা থেকে বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত জেলা সদর হাসপাতাল আইসোলেশন ওয়ার্ডে ১১ জন রোগীর মৃত্যু ঘটেছে। বুহস্পতিবার মধ্যরাত এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত করোনা সংক্রমন ও উপসর্গ নিয়ে করোনা ওয়ার্ডে মারা গেছেন আরও ৮ জন।

এমন পরিস্থিতে ইউনিসেফ এর উদ্যোগে চাঁদপুর সদর হাসপাতাল প্রাঙ্গণে বসানো লিকুইড অক্সিজেন প্লান্ট চালুর উদ্যোগ নিয়েছেন চাঁদপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় চাঁদপুরের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডিজির সাথে কথা বলেন শিক্ষামন্ত্রী। দু'জনের দ্বিপাক্ষিক আলোচনায় গুরুত্ব পায় চাঁদপুর লিকুইড অক্সিজেন প্লান্ট চালুর প্রসঙ্গ। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডিজি শিক্ষামন্ত্রীর কাছ থেকে চার দিনের সময় চেয়েছেন। জানিয়েছেন ঢাকা থেকে লিকুইড অক্সিজেনের গাড়ি গিয়ে চাঁদপুরের প্লান্ট ট্যাংক ভর্তি করে দিয়ে যাবে। বিষয়টি বৃহস্পতিবার রাতে চাঁদপুর কণ্ঠকে নিশ্চিত করেছেন চাঁদপুর জেলা সিভিল সার্জন ডাক্তার মোঃ সাখাওয়াত উল্লাহ।

তিনি বলেন, করোনার এই দুর্যোগের মধ্যে আমাদের জন্য আপাতত স্বস্তির খবর হলো আগামী চার দিনের মধ্যে চাঁদপুর অক্সিজেন প্লান্ট চালু হচ্ছে। মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী এই মাত্র (বৃহস্পতিবার রাত) বিষয়টি আমাদের জানিয়েছেন। তিনি স্বাস্থ্য ডিজি স্যারের সাথে কথা বলেছেন। শীঘ্রই অক্সিজেনের গাড়ি আসবে ঢাকা থেকে।

'লিকুইড অক্সিজেন প্লান্ট চালু হলে তার সুফল উপজেলার হাসপাতালগুলো পাবে কি-না' -তা জানতে চাইলে সিভিল সার্জন চাঁদপুর কণ্ঠকে জানান, অবশ্যই পাবে। আমরা আশা করি লিকুইড অক্সিজেন প্লান্টের অক্সিজেন দিয়ে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতালে ভালোভাবেই কাভার দেওয়া যাবে। বর্তমানে আবুল খায়ের গ্রুপ আমাদের বিনামূ্ল্যে যে ১১০ লিটার অক্সিজেন বড় সিলিন্ডার থেকে ছোট সিলিন্ডার করে দিচ্ছে সেগুলো আমরা উপজেলা পর্যায়ে পাঠাতে পারবো। আশা করি এতে সকল উপজেলার সমস্যা সমাধান হবে।

'যদি অবস্থার আরো অবনতি ঘটে? ১১০ লিটারে ৭ উপজেলায় কাভার না হয় সে ক্ষেত্রে বিকল্প কোন ব্যবস্থা আছে কি-না' জানতে চাইলে ডাঃ মোঃ সাখাওয়াত উল্লাহ বলেন, তাও সমাধান হবে। আমরা সরকারি ভাবে কুমিল্লা থেকে আরও ৬০ লিটার করে অক্সিজেন পাই। প্রয়োজনে তাও বণ্টন করা হবে উপজেলাগুলোতে। সব মিলিয়ে আশা করা যায় আগামী চার দিনের মধ্যে অক্সিজেন প্লান্ট চালু হলে চাঁদপুরে অক্সিজেনের কোন সংকট থাকবে না।

বর্তমানে চাঁদপুর সদর হাসপাতালে বেড কিংবা ফ্লোরে জায়গা পেলেও অক্সিজেন পাওয়া যেন ভাগ্যের ব্যাপার। ভর্তি হওয়ার চার থেকে পাঁচ ঘণ্টা পরও অক্সিজেন পাচ্ছেন না রেগীরা। দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করে দেখা মিলছে না অক্সিজেন সিলিন্ডারের। হাসপাতালের স্টাফরা এক বা একাধিক অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে করোনা ওয়ার্ডে প্রবেশ করলে রোগীর স্বজনরা সিলিন্ডার নিয়ে কাড়াকাড়ি ও টানাহেঁচড়া শুরু করেন।এনিয়ে স্বজনদের মধ্যে এক ধরনের অসুস্থ প্রতিযোগিতা দেখা দিচ্ছে। অক্সিজেন সাপোর্ট না পেয়ে গত কয়েকদিনে এ হাসপালে কয়েকজন রোগী মৃত্যুর ঘটনাও ঘটেছে।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়