সোমবার, ২৮ নভেম্বর, ২০২২  |   ২০ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   লঞ্চ ধর্মঘটে বিপাকে যাত্রী সাধারণ
  •   মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা-২০২২ কমিটিতে সংশোধনী আকারে অন্তর্ভুক্ত হলেন যারা
  •   কচুয়ায় গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক
  •   শেখ ফরিদ আহমেদ মানিকের নেতৃত্বে চাঁদপুর জেলা বিএনপির কুমিল্লায় সমাবেশে যোগদান
  •   মতলব উত্তরে আবারও সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩

প্রকাশ : ০৪ অক্টোবর ২০২২, ০০:০০

পেটে ব্যথা হলে কী করবেন?
অনলাইন ডেস্ক

মাঝরাতে হঠাৎ কেঁদে ওঠে ঘুমন্ত শিশু। অভিজ্ঞ মা ততোদিনে বুঝে গেছেন, ক্ষুধায় পেটে টান পড়েছে সোনা-জাদুমণির। ক্ষুধার কারণেই পেটে ব্যথা। কিন্তু সবসময় শিশুর পেটের ব্যথা মানে ক্ষুধার ব্যথা নয়। ভরপেট খাইয়ে দেয়ার পর যে শিশু কাঁদে তারও পেটে ব্যথা হয়। এ ব্যথা স্তন্যপানের সাথে হাওয়া টেনে নেয়ার ব্যথা। পিঠে হাল্কা দুয়েক চাপড় দিলেই পেটের হাওয়া বের হয়ে যায়। পেট আর মোড়ায় না, শিশুও কাঁদে না। শিশু একটু বড় হলে পেটে কৃমি সংক্রমণের ব্যথা বোধ করে। নাভির চারপাশে ব্যথায় সে কঁকাতে থাকে। খাবারে কখনো কখনো জীবাণু সংক্রমণ হলে গ্যাস্ট্রোএন্টেরাইটিসের ব্যথা হয়। এ ব্যথায় বমি, জ্বর ও পাতলাপায়খানা হয়। পেটে এসিডিটির তীব্র ব্যথা হলে বমি হয় বা বমি ভাব হয়। তখন এন্টাসিড সিরাপ, ডমপেরিডন ও ওমিপ্রাজল জাতীয় ঔষধ সেবনে সে ব্যথার উপশম হয়। গলব্লাডার বা পিত্তথলিতে পাথর কিংবা জীবাণুর সংক্রমণ হলে পেটের ডানদিকে ব্যথা হয়। যদি পিত্তনালিতে কৃমি আটকে যায় তাণ্ডও ব্যথা হতে পারে। প্যানক্রিয়াসের প্রদাহে পেটে তীব্র ব্যথা হয় যাতে আক্রান্ত ব্যক্তি পেট ভাঁজ করে প্রার্থনার ভঙ্গিতে নুয়ে থাকে। হেপাটাইটিস বা লিভারের প্রদাহে পেটের ডানদিকে ব্যথা হয়। এতে বমি হয়, খাবারে অরুচি হয়, জ্বর হয় সাথে। অ্যাপেন্ডিসাইটিসের ব্যথায় নাভির চারপাশ প্রথমে আক্রান্ত থাকে যা পরে ডানদিকে তলপেটে গিয়ে তীব্রতা পায়। যাদের কোষ্ঠকাঠিন্য আছে তাদেরও পেটে ব্যথা হয়। মেন্সট্রুয়েশনকালে অনেক নারীর তলপেটে ব্যথা হয়। যাদের প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া আছে, প্রস্রাবের থলিতে সংক্রমণ আছে তাদেরও তলপেটে তীব্র ব্যথা করে। কিডনীতে পাথর হলে কিংবা ইউরেটার বা মূত্রনালীতে পাথর হলেও পেটে ব্যথা হয়। এ ব্যথা অতি তীব্র।

নারীর জরায়ুতে টিউমার, ফ্যালোপিয়ান টিউব বা ডিম্বথলিতে টিউমার বা সিস্ট হলে তলপেটে বা পেটে তীব্র ব্যথা হয় পাশাপাশি মাসিক স্রাবে তীব্র রক্তক্ষরণ হয়। মূত্রথলিতে টিউমার বা ক্যান্সার হলে কিংবা পুরুষের প্রোস্টেট গ্ল্যান্ডের ক্যান্সার বা বৃদ্ধিতেও তলপেটে ব্যথা হয়। কোনো কারণে পেটে পানি জমলে বা অ্যাসাইটিস হলে পেটে ব্যথা হয়। পেটে গ্যাস্ট্রিক পারফোরেশন হলে বা ডিউডেনাল আলসার বা টাইফয়েড আলসার পারফোরেশন হলে পেটে ব্যথা হয়।

পেটের এক এক রকম ব্যথার উপশম এক এক রকম। এসিডিটির ব্যথায় ওমিপ্রাজল সেবনে ব্যথা যেমন নিরোধ হয়, তেমনি কোষ্ঠকাঠিন্যের ব্যথায় মিল্ক অব ম্যাগনেশিয়া সেবনে উপকার লাভ হয়। গ্যাস্ট্রোএন্টেরাইটিসের ব্যথায় সিপ্রোফ্লক্সাসিন জাতীয় ঔষধ সেবন করতে হয়। একই ঔষধ টাইফয়েড আলসারের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। অ্যাপেন্ডিসাইটিস, কিডনি স্টোন, গলব্লাডার স্টোনের ব্যথায় অপারেশনই উপশমের উপায়। ডিজমেনোরিয়াজনিত ব্যথায় ভিসেরালজিন সেবনে ব্যথা দূর হয়। মূত্রথলির সংক্রমণে উপযুক্ত অ্যান্টিবায়োটিক প্রযোজ্য হয়। পেটের কিছু কিছু ব্যথা আছে যার কোনো কারণ নেই, এদের ফাংশনাল ডিজঅর্ডার বলে। অনেক সময় ভরপেট খেলেও পেট ব্যথা হয়। হার্নিয়ার ব্যথাও তলপেটে অনুভূত হয়। আবার টিউব-প্রেগন্যান্সিতেও তলপেটে বিস্তৃত হয়।

পেটে ব্যথা হলে দ্রুত চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া দরকার। পেটের আল্ট্রাসনোগ্রাম, পেটের এক্স-রে, কিডনি ও মূত্রথলির এক্স-রে কিংবা বেরিয়াম মিল এক্স-রে বা বেরিয়াম সোয়ালো এক্স-রের মাধ্যমে সহজেই পেটে ব্যথার কারণ শনাক্ত করা যায়।

ক্ষেত্রবিশেষে পেটে ব্যথায় মুখে খাবার বন্ধ করে দিয়ে নাকে নল দিয়ে সাকশান দিতে হয়। বেশি কষা পায়খানায় এনেমা দিলে মুক্তি পাওয়া যায়। ইউরিন আটকে গিয়ে তলপেটে ব্যথা হলে ক্যাথেটার প্রয়োগে সে ব্যথার উপশম হয়। কৃমির সংক্রমণে কৃমির ঔষধের পাশাপাশি লিকুইড প্যারাফিন খাইয়ে দিলে উপশম হয়। অন্যান্য ক্ষেত্র যেমন : অ্যাপেন্ডিসাইটিস, পারফোরেশন, হার্নিয়া, টিউব প্রেগন্যান্সি, গলব্লাডার স্টোন প্রভৃতি ক্ষেত্রে শৈল্যচিকিৎসার কোনো বিকল্প নেই।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়