চাঁদপুর, বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৭ শাওয়াল ১৪৪৩  |   ৩৩ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   হাজীগঞ্জের শিশু আরাফ হত্যায় তিন আসামীর মৃত্যুদণ্ড
  •   কল্যাণপুর ইউপির জেলে চাল আত্মসাৎ, দুই গুদাম সিলগালা
  •   মা আর স্ত্রীকে বুঝিয়ে দেয়া হলো দুই ভাইয়ের লাশ
  •   বাকিলা উচ্চ বিদ্যালয়ে ভিম ধ্বসে ৩ ছাত্রী গুরুতর আহত
  •   আশিকাটিতে খাটের নিচে গৃহবধূর লাশ ॥ স্বামী পলাতক

প্রকাশ : ২৫ জানুয়ারি ২০২২, ১৯:৩৫

গৌরিপুর-কচুয়া-হাজীগঞ্জ সড়ক যেন মরণ ফাঁদ

গৌরিপুর-কচুয়া-হাজীগঞ্জ সড়ক যেন মরণ ফাঁদ
মোহাম্মদ মহিউদ্দিন

দীর্ঘদিন সংস্কার না হওয়ায় গৌরিপুর-কচুয়া-হাজীগঞ্জ সড়কটি যেন মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। যানবাহন চলাচলের দিক থেকে অতীব (খুবই) গুরুত্বপূর্ণ।

বৃহত্তর নোয়াখালী জেলার নোয়াখালী সদর, বেগমগঞ্জ, সোনাইয়মুড়ী, চাটখিল, রামগঞ্জ, লক্ষ্মীপুর ও কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার যানবাহনগুলো ঢাকা যাতায়াতে বিকল্প সড়ক হিসাবে চলাচল করে আসছে। সড়ক ও জনপথ বিভাগের পক্ষ থেকে মাঝে মাঝে গর্তগুলি ভরাট করলেও অল্প সময়ের মধ্যে তা আবার ভেঙ্গে যাচ্ছে। ফলে এই সড়ক দিয়ে চলাচলাকারী যাত্রীদের সীমাহীন দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, সড়কও জনপথ বিভাগের অধীনে ৪২ কিলোমিটার এ সড়কের কচুয়া উপজেলার উত্তর সীমান্তের বারৈয়ারা হতে কচুয়া সদর পর্যন্ত প্রায় ১৭ কিলোমিটার সড়কের স্থানে স্থানে সৃষ্টি হয়েছে গর্ত। কোন কোন স্থানের গর্ত পুকুরসম রূপ ধারণ করেছে। এছাড়া পুকুর ও খাল অংশে কয়েকটি স্থানে সড়কের পাশের অংশ দেবে গেছে। দেবে যাওয়া অংশগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য স্থানগুলো হচ্ছে- সাচার উচ্চ বিদ্যালয়ের উত্তর সংলগ্ন পোদ্দার পুকুর পাড়, কলাকোপা ভূইয়া প্রজেক্ট সংলগ্ন, সাজিরপাড় মসজিদ সংলগ্ন, তুলতুলীর মোড় ও বাইছাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন সড়ক অংশ। সাচার উচ্চ বিদ্যালয়ের উত্তর সংলগ্নে উভয় পাশে (পশ্চিম পাশে পুকুর ও পূর্ব পাশে খাল) প্রায় ৫০ ফুট সড়ক দেবে যাওয়া ছাড়াও প্রায় ২০০গজ সড়কের খুবই বেহাল দশা। এ বেহালদশা ও দেবে যাওয়া অংশ দিয়ে যানবাহন চলাচল করছে দুর্ঘটনার ঝুঁকি নিয়ে।

স্থানীয়রা জানায়, এ সড়কের ঝুঁকি এড়াতে ১২টি বাঁক সরলীকরন, ৪টি কালভার্ট ও ১টি ব্রীজসহ সড়ক নির্মানের জন্য ইতোপূর্বে ২৫ কোটি টাকার কাজ সম্পন্ন হয়েছে। কিন্তু সড়ক পাকা করণের দু’বছর না যেতেই এমন বেহাল অবস্থা। সড়ক নিয়মিত যাতায়াতকারী গাড়ী চালকগণ জানায়, নিম্নমানের কাজ হওয়ায় সড়কের পিজ উঠে গিয়ে স্থানে স্থানে গর্তের সৃষ্টি হওয়ায় নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে গন্তব্যে পৌছতে পারছেনা গাড়ি গুলো। শিগগিরই সড়কের দেবে যাওয়া অংশ ও সৃষ্টি হওয়া গর্ত মেরামত করা না হলে এ সড়কধরে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

গৌরিপুর-কচুয়া-হাজীগঞ্জ রাস্তা মেরামতের কাজের বিষয়ে চাঁদপুর সড়ক ও জনপথ বিভাগের প্রকৌশলী সামসুজজোহা মুঠোফেনে জানান, ভাঙ্গা অংশের দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে। অচিরেই যাত্রীদের সমস্যা লাগব হবে।

স্থানীয়রা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে রাস্তার মেরামত করে মানুষের চলাচলের উপযোগী করতে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছে।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়