চাঁদপুর, মঙ্গলবার, ৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৪ মাঘ ১৪২৯, ১৫ রজব ১৪৪৪  |   ২৩ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতি শিক্ষা স্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   তুরস্ক ও সিরিয়ায় শক্তিশালী ভূমিকম্পে প্রাণহানি ১ হাজার ৬'শ ছাড়িয়েছে, জরুরী অবস্থা জারি
  •   জুনের মধ্যে সংসদীয় আসনের সীমানা পুনর্নির্ধারণ
  •   ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে হজের নিবন্ধন শুরু
  •   জুয়ার নিরাপদ আস্তানায় হানা নেই কেন?
  •   নিখোঁজের ৪ দিন পর ফরিদগঞ্জে মাদক ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার ॥ আটক ২

প্রকাশ : ২৪ জানুয়ারি ২০২৩, ২০:৩৫

পুরাণবাজারের সড়কগুলোর করুণ অবস্থায় ভোগান্তিতে মানুষ

মেয়রের দৃষ্টি কামনা

মিজানুর রহমান
পুরাণবাজারের সড়কগুলোর করুণ অবস্থায় ভোগান্তিতে মানুষ
পুরাণবাজার-দোকানঘর সড়কের এক কিলোমিটার অংশে পিচ উঠে গিয়ে এমন গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। ছবিটি সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম আলম মোল্লার বাড়ির সামনে থেকে তোলা। ছবি : মিজানুর রহমান।

সড়কের পিচ, খোয়া উঠে গেছে। সড়কজুড়ে গর্ত আর গর্ত। গর্তে রিকশা, অটোরিকশা ও ভ্যানের চাকা পড়ে প্রায়ই ঘটছে দুর্ঘটনা। বৃষ্টি হলে সড়কগুলো দিয়ে পথচারীদের যাতায়াত-কষ্ট আরো বেড়ে যায়। চাঁদপুর শহরের পুরাণবাজারের সড়কগুলোতে এমন করুণ অবস্থা বিরাজিত। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন হাজার হাজার পথচারী ও বিদ্যালয়গামী শিক্ষার্থী এবং অটোবাইক, সিএনজি অটোরিকশার যাত্রীসাধারণ। দীর্ঘদিন ধরে সড়কগুলোর সংস্কার না করায় দুর্ভোগ পোহাচ্ছে পৌরবাসী।

জানা যায়, প্রাচীন চাঁদপুর পৌর এলাকার ৫টি ওয়ার্ড পুরাণবাজারে অবস্থিত। দেশের প্রসিদ্ধ ব্যবসায়িক এলাকাও এখানে। হাইমচর উপজেলায় যেতে হলে পুরাণবাজার হয়েই যেতে হয়। সদর উপজেলার ইব্রাহিমপুর, লক্ষ্মীপুর, হানারচর, চান্দ্রা, বালিয়া, বাগাদী ইউনিয়নের সড়ক যোগাযোগও রয়েছে পুরাণবাজারের ওপর দিয়ে। ফরিদগঞ্জে এমনকি চাঁদপুর-শরীয়তপুর নৌরূটের চাঁদপুর হরিণা ফেরিঘাটে যাওয়ার রাস্তাও পুরাণবাজার দিয়ে। কিন্তু এ এলাকায় পৌরসভার প্রতিটি রাস্তারই এখন বেহাল দশা।

সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে, নিতাইগঞ্জ, মেরকাটিজ রোড, রয়েজ রোড, আমজাদ আলী সড়ক, লোহারপুল, জাফরাবাদ, পালপাড়া, দাসপাড়া, পূর্ব শ্রীরামদী, জুটমিল সড়ক, রঘুনাথপুর সড়ক, দোকানঘর রাস্তার খুবই খারাপ অবস্থা।

এ রাস্তাগুলোর ইট, পাথর, পিচঢালাই উঠে গিয়ে ছোট-বড় অসংখ্য গর্তে পরিণত হয়েছে। রাস্তাগুলো ভেঙে গর্ত হওয়ায় ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা, ভ্যানগাড়ি ও মোটরসাইকেল আরোহীদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

টিনপট্টির ব্যবসায়ী ও সানরাইজ অয়েল মিলের ব্যবস্থাপক মোঃ জাকির হোসেন হাওলাদার বলেন, আমাদের গ্রামের বাড়ি পূর্ব রামদাসদী দাইম খাঁ বাড়ি। এক-দুই সপ্তাহ পর পর শহর থেকে বাড়ি যাওয়ার সময় রাস্তাগুলোর এমন ভগ্নদশা দেখলে মনে হয় না এটা পৌর শহরের কোনো রাস্তা। যানবাহনে চড়ার সময় ঝাঁকুনিতে সুস্থ মানুষও অসুস্থ হয়ে পড়ে। কোনো রোগী নিয়ে এ পথে যাওয়ার সময় তার পরিণতি হয় আরো করুণ। শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়কের এমন বেহাল দশা অথচ কর্তৃপক্ষের সেটিকে সংস্কারের কোনো উদ্যোগ নেই।

দোকানঘরের রিকশাচালক সফু মিয়া (৪৫) বলেন, রাস্তার গর্তে রিকশার চাকা পড়ে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটছে।

অটোচালক মোশারফের বাড়ি মধ্য শ্রীরামদী। অটো চালিয়েই চলে তার সংসার। রাস্তা নিয়ে তার অভিযোগ, গ্রামের কিংবা চরের রাস্তাও এ থেকে অনেক ভালো। কিন্তু পুরাণবাজারের ভাঙ্গা রাস্তাগুলো দেখে মনে হয় আমরা এ দেশের জনগণ না। আমাদের দুর্ভোগের শেষ নেই।

চাঁদপুর পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী এএইচএম সামসুদ্দোহা বলেন, চাঁদপুর পৌর এলাকার সব রাস্তারই নতুন করে কাজ করা হবে। গুরুত্বপূর্ণ রাস্তাগুলো আগে সংস্কার বা মেরামত করা হচ্ছে। পুরাণবাজারের রাস্তাগুলোরও কাজ হবে।

তিনি জানান, রাস্তার কাজের জন্যে মন্ত্রণালয়ে প্রকল্প জমা দেয়া আছে। ফান্ড পেলে এ সমস্যা থাকবে না।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়