চাঁদপুর, মঙ্গলবার ৩১ মার্চ ২০২০, ১৭ চৈত্র ১৪২৬, ০৫ শাবান ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • চাঁদপুর বন্দর কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাককে দায়িত্ব অবহেলার দায়ে বরখাস্ত এবং স্ট্যান্ড রিলিজ। নতুন কর্মকর্তা আবুল বাসার মজুমদার
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৬৯-সূরা হাক্কা ঃ


৫২ আয়াত, ২ রুকু, মক্কী


 


২০। 'আমি জানিতাম যে, আমাকে আমার হিসাবের সম্মুখীন হইতে হইবে।'


২১। সুতরাং সে যাপন করিবে সন্তোষজনক জীবন;


২২। সুউচ্চ জান্নাতে


 


আল হাদিস


 


যা ইচ্ছা আহার করতে পারো, যা ইচ্ছা পরিধান করতে পারো, যদি তোমাকে অপব্যয় ও গর্ব স্পর্শ না করে।


বাণী চিরন্তন


মধুর ব্যবহার লাভ করতে হলে মাধুর্যময় ব্যক্তিত্বের সংস্পর্শে আসতে হয়। -উইলিয়াম উইন্টার।


 


 


 


 


 


assets/data_files/web

যে যা বলে বলুক, তুমি তোমার নিজের পথে চল।


-দান্তে।


 


 


পুরাতন কাপড় পরিধান করো, অর্ধপেট ভরিয়া পানাহার করো, ইহা নবীসুলভ কার্যের অংশ বিশেষ।


 


ফটো গ্যালারি
সচেতনতাই করোনা থেকে মুক্তির উপায়
সুরঞ্জিত কর
৩১ মার্চ, ২০২০ ১৭:১৮:০০
প্রিন্টঅ-অ+


করোনাভাইরাস হচ্ছে ভাইরাসগুলোর একটি বৃহৎ পরিবার, যা থেকে সাধারণ সর্দি-কাশি থেকে শুরু করে মারাত্মক রোগ হতে পারে। যেমন গরফফষব ঊধংঃ জবংঢ়রৎধঃড়ৎু ঝুহফৎড়স(গঊজঝ-ঈড়ঠ), ঝবাবৎব অপঁঃব জবংঢ়রৎধঃড়ৎু ঝুহফৎড়সব (ঝঅজঝ-ঈড়ঠ), এবং ঈড়ারফ-১৯! ভাইরাসের অনেক প্রজাতির মাঝে ৭টি প্রজাতি মানবদেহে রোগ সৃষ্টি করে, যার মধ্যে ঝঅজঝ ঈড়ঠ-২ অন্যতম। করোনা ভাইরাসগুলো জুনোটিক, যার অর্থ তারা প্রাণী থেকে মানুষের মধ্যে সংক্রমণ করতে পারে। ঈঙঠওউ-১৯ নামক রোগ সৃষ্টিকারী ঝঅজঝ ঈড়ঠ-২ করোনা ভাইরাস একটি নতুন প্রজাতি, যা ইতিপূর্বে মানব শরীরে দেখা যায়নি। এটি একটি এনভেলপড পজিটিভ সেন্স, সিঙ্গেল স্ট্রেন্ড আরএনএ ভাইরাস।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে এটিপিক্যাল নিউমোনিয়ার বেশ কয়েটি সতর্কবার্তা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাতে দেয়া হয়েছিলো। পরবর্তীতে এ বছর জানুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহে চীনা কর্তৃপক্ষ নিশ্চিত করছে যে, তারা একটি ভাইরাস শনাক্ত করেছে এবং এ ভাইরাসটি সম্পূর্ণ নূতন ধরনের করোনা ভাইরাস। অস্থায়ীভাবে এর নামকরণ করা হয়েছিলো ২০১৯-হ ঈড়ঠ; বর্তমানে এই ভাইরাসটির নূতন নামকরণ করা হয়েছে ঝঅজঝ-ঈড়ঠ-২ এবং এ ভাইরাস দ্বারা সৃষ্ট রোগের নামকরণ করা হয়েছে ঈড়ঠরউ-১৯।

২০২০ সালের ৩০ জানুয়ারি এই রোগের আউটব্রেককে চঁনষরপ ঐবধষঃয ঊসবৎমবহপু ড়ভ ওহঃবৎহধঃরড়হধষ ঈড়হপবৎহ (চঐঊওঈ) হিসেবে ঘোষণা করা হয় এবং ১১ মার্চ, ২০২০ তারিখে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ঈড়ঠরউ-১৯ কে বৈশ্বিক মহামারী (চধহফবসরপ) হিসেবে ঘোষণা করে। এই রোগের লক্ষণ : (১) বেশির ভাগ ক্ষেত্রে প্রথমত জ্বর ১০০ ডিগ্রি ফারেনহাইট বা ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি; (২) শুকনো কাশি, সর্দি, হাঁচি (৩) গলা ব্যথা হতে পারে (৪) শ্বাসকষ্ট (৫) ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ, যেকোন ক্রনিক ডিজিজ যেমন লিভার সমস্যা, কিডনি সমস্যা, ক্যান্সার থাকলে অরগান ফেইলিউর হতে পারে (৬) ভাইরাস শরীরে ঢোকার পর সংক্রমণের লক্ষণ দেখা দিতে সাধরণত ২-১৪ দিন সময় লাগে।

যেভাবে ছড়ায় : আক্রান্ত ব্যক্তির হাঁচি, কাশি, কফ, থুথু অর্থাৎ আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে আসলে। আক্রান্ত ব্যক্তির ফুসফুস থেকে প্রদাহ কলা (রেসপিরেটরি ড্রপলেট)-এর মাধ্যমে, যা হাঁচি, কাশির সাথে বের হয়ে ১ মিটার বা ৩ ফুট দূরত্বে যেয়ে পড়ে। এ সময় এই দূরত্ব বা এর চেয়ে কম দূরত্বে থাকা যেকোনো সুস্থ মানুষ এ ড্রপলেটের মাধ্যমে আক্রান্ত হতে পারে। আক্রান্ত ব্যক্তির ড্রপলেট ব্যবহার্য যেকোন তল (সারফেস) ফ্লোর, টেবিল, চেয়ার, রুমের দরজা/টয়লেটের দরজার হাতল, বেডশীট, পোশাক, খাবার প্লেট, গ্লাস, জগ ইত্যাদির মাধ্যমে ছড়াতে পারে। এ রোগ বর্তমানে বহু গুণীতক হারে ছড়াচ্ছে।

আজ আমরা বিশ্বের অনেক দেশে দেখছি মৃত্যুর মিছিল। অনেক মায়ের বুক খালি হচ্ছে, স্বজন হারানোর বেদনা ও কান্নায় আকাশ-বাতাস ভারী হচ্ছে, সংকটে শংকিত আজ বিশ্ববাসী। বাংলাদেশেও এর সংক্রমণ ঘটেছে। তবে বাংলাদেশ সরকারের এ রোগ প্রতিকার ও প্রতিরোধের পদক্ষেপের প্রতি আমরা সবাই সম্মান জানাই। সবাই আরো সচেতন হই। সবাই মিলে আসুন এর মোকাবেলা করি। এখনো আমাদের আতঙ্কিত হওয়ার সময় হয়নি। শুধু দরকার সচেতনতা। প্রত্যেকে ¯্রষ্টাকে ডাকি। দোয়া করি সকলে সকলের জন্য।

এই রোগ প্রতিরোধে আপনার করণীয় সম্পর্কে মিডিয়া বারবার আমাদের সচেতন করছে। তারপরও আমি আবারও স্মরণ করিয়ে দেয়ার চেষ্টা করছি :- (১) হ্যান্ড সেনিটাইজার/সাবান দিয়ে বার বার হাত ধৌত করবেন (২) যেখানে সেখানে হাঁচি কাশি দিবেন না। হাঁচিকাশি দেয়ার সময় টিস্যু/কাপড় ব্যবহার করবেন এবং তা ডাস্টবিন বা ঢাকনা যুক্ত ব্যাগে ফেলবেন (৩) জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাড়ি থেকে বের হবেন না (৩) বাসায় পরিবার-পরিজনদের সময় দিন (৪) আতংকিত থাকবেন না এবং আতঙ্ক ছড়াবেন না (৫) বাড়ির ব্যবহার্য জিনিসপত্র, আঙ্গিনা হাইজেনিক রাখুন (৬) বয়স্কদের একটু বেশি কেয়ার নিবেন (৭) ধূমপান থেকে বিরত থাকুন (৮) মাছ মাংস, শাকসবজি, ডিম ভালোমত পরিষ্কার করে নিন এবং কম সিদ্ধ খাবেন না (৯) রোগ প্রতিরোধ করে এমন ভিটামিনসমৃদ্ধ খাবার খাবেন (১০) প্রয়োজন ক্ষেত্রে হোম/প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন, হোম/প্রতিষ্ঠানিক আইসোলেশন মেনে চলুন (১১) বিদেশ থেকে যারা এসেছেন তার তথ্য গোপন করবেন না (১২) প্রয়োজনে মাস্ক ব্যবহার করুন (১৩) সর্দি-কাশি-জ্বর হলেই আতংকিত হবেন না। কারণ এটা সাধারণ ফ্লু বা সিজনালও হতে পারে। তবে সচেতনতা রাখতে হবে, বেশি হলে ডাক্তারের/স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ অথবা করোনা হটলাইনের সাহায্য নেবেন (১৪) গণজমায়েত, আড্ডা, টি স্টলে টিভি দেখা, হোটেলে খাওয়া, সামাজিক আচার অনুষ্ঠান ইত্যাদি থেকে আপাতত বিরত থাকুন (১৫) গণপরিবহন ব্যবহার করা যাবে না (১৬) বিত্তশালী ব্যক্তিগণ আমাদের জীবন রক্ষাকারী ডাক্তার/নার্স/ স্বাস্থ্য সেবকদের প্রয়োজনীয় প্রোটেক্টিভ উপকরণ যোগান দিয়ে মহানুভবতার দৃষ্টান্ত দেখাবেন (১৭) প্রশাসনের সকল আইন কানুন পরামর্শ মেনে চলুন এবং পুলিশ/সেনাবাহিনীর ভাইদের কাজকে সম্মান করুন (১৮) সবাই সৃষ্টিকর্তাকে ডাকুন এবং করোনা প্রতিরোধে যারা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নিরলস কাজ করছেন তাদের জন্যে দোয়া করুন (১৯) বাসায় অযথা সময় কাটাবেন না, ছেলেমেয়েদের পড়াশোনার প্রতি যতœ নিবেন, ইনডোর গেইমস, গান শোনা, আবৃত্তি শোনা, বই পড়া ইত্যাদি করবেন। মনকে সতেজ ও প্রফুল্ল রাখবেন। পেনিককে না বলুন।

আসুন, আমরা সবাই এ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সচেতন হই। নিজকে নিরাপদ রাখি। পরিবারকে নিরাপদ রাখি। সমাজকে নিরাপদ রাখি। দেশকে ভালোবাসি। নিরাপদ রাখি। বিশ্বমঙ্গলে নিজ নিজ কাজগুলো করি। বিশ্বাস রাখুন, আবার হাসবে ধরা, মহাসৃষ্টির রহস্যঘেরা। তিনিই করেছেন সৃজন। তিনিই করেন পালন। করোনা তারই সৃষ্টি। বিনাশ করবে তারই শান্তির বৃষ্টি।



লেখক : প্রধান শিক্ষক, ৫০নং মৈশাদী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, চাঁদপুর।





 


এই পাতার আরো খবর -
    আজকের পাঠকসংখ্যা
    ৮২৬৬৬৮
    পুরোন সংখ্যা