চাঁদপুর, বৃহস্পতিবার ১১ জুলাই ২০১৯, ২৭ আষাঢ় ১৪২৬, ৭ জিলকদ ১৪৪০
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৩-সূরা নাজম


৬২ আয়াত, ৩ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


assets/data_files/web

সৃষ্ট বস্তুতে ভালোবাসার মতো অন্য কোনো এবাদত নেই।


-রবার্ট ব্রিজ।


 


 


যে ব্যক্তি উদর পূর্তি করিয়া আহার করে, বেহেশতের দিকে তাহার জন্য পথ উন্মুক্ত হয় না।


 


 


ফটো গ্যালারি
প্রণোদনাই প্রবাসীদের সমস্যা সমাধানের পথ নয়
জমির হোসেন
১১ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


দলমত নির্বিশেষে সবার মুখে একই কথা, প্রবাসীরা দেশের অর্থনীতির চালিকা শক্তি। এই প্রবাসীদের জন্যে কোনো করণীয় কি নেই সরকারের ? সরকার উল্লেখযোগ্য এমন কী করেছেন প্রবাসীদের জন্যে যার সুবাদে প্রায় এক কোটি প্রবাসী মুখ ভরা হাসি নিয়ে সরকারকে প্রাণ ভরে দোয়া করবেন। ক্ষুদ্র এ জীবনে আমার চোখে এমন দৃশ্য পড়েনি যে, সরকারের সহযোগিতায় প্রবাসীরা ভীষণ আনন্দিত।



সরকার থেকে অনেক কিছু আমরা পাই তা অস্বীকার করার কোনো উপায় নেই। এ যাবৎ যা আমরা পেয়েছি তা শুধু কাগজে-কলমে। বাস্তবে নয়। প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের সুযোগ এবং ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের সুবিধাসহ আরও অনেক কিছু। কথা হলো প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক থেকে গত দশ বছরে ক'জন পেয়েছেন সরকারি সুবিধা আর কতজনকে অর্থনৈতিকভাবে সহযোগিতা করা হয়েছে তা আমার জানা নেই।



মরার পরে ইতালি থেকে নিজ পরিবারের কাছে লাশ বিনা খরচে পেঁৗছে দিতে ২০১৭ সালে রোম দূতাবাসের জন্যে ৫০ ও মিলান কনসুলেট জেনারেল অফিসের জন্যে ২০ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয় সরকার। রোমে নিযুক্ত বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত আব্দুস সোবাহান সিকদার এ বরাদ্দ পেতে ভূমিকা রাখেন। বরাদ্দকৃত অর্থ দিয়ে ইতালি প্রবাসীদের লাশ দেশে যাবে। তবে এ সুযোগটি পেতে প্রতিটি প্রবাসীকে শর্ত পূরণ করতে হবে। অর্থাৎ অবশ্যই তাকে ৪০ ইউরো দিয়ে ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের সদস্যপদ গ্রহণ করতে হবে। অন্যথায় মরার পর লাশ নিজ উদ্যোগে দেশে পাঠাতে হবে।



ইতালিতে এমডি জিয়াউল ইসলাম চৌধুরী নামে এক প্রবাসী অসুস্থ অবস্থায় ভেনিসের আনজেলো নামক হাসপাতালে মারা যান। দীর্ঘ ২৫ দিন মর্গে পড়ে থাকে লাশ। কেউ কোনো খোঁজ নেননি। জিয়াউলের সাথে সু-সম্পর্কে পরিচিত একজন ইতালিয়ান নাগরিক দীর্ঘদিন তার সাথে যোগাযোগ না থাকায় তার খোঁজে নেমে পড়েন। বিভিন্নস্থানে খোঁজার পর একটি হাসপাতালে তার সন্ধান পান। পরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লাশের সন্ধান চেয়ে সাবেক বাংলাদেশ সমিতির সভাপতি নুরে আলম সিদ্দিকী বাচ্চু একটি পোস্ট করলে এটি ভাইরাল হয়।



পোস্টটি পাঠকপ্রিয় একটি পত্রিকার সংবাদকর্মীর নজরে পড়লে তিনি মিলান কনসুলেট অফিসে ফোন দেন। অফিসের এক কর্মকর্তার সাথে লাশ নিয়ে কথা হলে তিনি সংবাদকর্মীকে জানান, এ ব্যাপারে তাদের কাছে কোনো তথ্য নেই। এরপরই অফিস কর্মকর্তাদের টনক নড়ে। এরপর সংবাদটি অফিসে মেইল করার প্রায় বিশ মিনিটের মধ্যে মিলান কনসুলেট অফিস থেকে ফোন করে সংবাদ কর্মীকে জানান, স্থানীয় পুলিশ এ লাশের খোঁজ চেয়ে একটি মেইল করেছে। এর আগে তিনি সংবাদকর্মীকে প্রশ্ন করেছিলেন কেন লাশের খবর নেওয়া হচ্ছে। সংবাদকর্মী উত্তরে বলেছিলেন, ২৫ দিন ধরে পরিচয়হীন লাশ মর্গে পড়ে আছে, আপনাদের (কনসুলেট অফিসের) কী করণীয় আছে। তিনি বললেন, খুব দ্রুত শনাক্ত করে জানাবেন। এ পর্যন্তই শেষ। এরপর তারা আর কিছুই জানায়নি মর্গে থাকা লাশের খবর।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৫৬৭১৬৫
পুরোন সংখ্যা