চাঁদপুর, বুধবার ৩ জুলাই ২০১৯, ১৯ আষাঢ় ১৪২৬, ২৯ শাওয়াল ১৪৪০
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৭-সূরা হাদীদ


২৯ আয়াত, ৪ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


২৭। অতঃপর আমি তাহাদের পশ্চাতে অনুগামী করিয়াছিলাম আমার রাসূলগণকে এবং অনুগামী করিয়াছিলাম মারইয়াম তনয় ঈসাকে, আর তাহাকে দিয়াছিলাম ইঞ্জীল এবং তাহার অনুসারীদের অন্তরে দিয়াছিলাম করুণা ও দয়া। আর সন্নাসবাদ-ইহা তো উহারা নিজেরাই আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের জন্য প্রত্যাবর্তন করিয়াছিল। আমি উহাদের ইহার বিধান দেই নাই; অথচ ইহাও উহারা যথাযথভাবে পালন করে নাই। উহাদের মধ্যে যাহারা ঈমান আনিয়াছিল, উহাদিগকে আমি দিয়াছিলাম পুরস্কার এবং উহাদের অধিকাংশই সত্যত্যাগী।


 


 


assets/data_files/web

অপ্রয়োজনে প্রকৃতি কিছুই সৃষ্টি করে না। -শংকর।


 


 


কবর এবং গোসলখানা ব্যতীত সমগ্র দুনিয়াই নামাজের স্থান।


 


 


 


ফটো গ্যালারি
বর্তমান প্রেসিডেন্টের বক্তব্য
০৩ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


রোটারী ইন্টারন্যাশনাল ডিস্ট্রিক্ট-৩২৮২ বাংলাদেশসহ বিশ্বের সকল রোটারী ক্লাবে ২০১৯-২০২০ রোটারী বর্ষ শুরু হয়েছে। এ উপলক্ষে আমি রোটারিয়ানদের আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাই। এই বর্ষের সূচনালগ্নটি আমাদের জন্যে যেমন গুরুত্বপূর্ণ, তেমনি অত্যন্ত আনন্দেরও। ১ জুলাই শুরু হয়েছে নতুন এক যাত্রার, নতুন অনুপ্রেরণার, নতুন কিছু স্বপ্নের, নতুন কিছু গড়ার, নতুন কিছু প্রত্যয়ের।



ঝবৎারপব অনড়াব ঝবষভ আদর্শকে ধারণ করে রোটারিয়ানগণ আর্তমানবতার সেবায় কাজ করছে। ১৯০৫ সালে শিকাগো শহরে পল পি. হ্যারিস রোটারী আলোকবর্তিকার যে শিখা প্রজ্জ্বলিত করেছিলেন তা আজ বিশ্বের ২০০টিরও অধিক দেশ ও ভৌগোলিক অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে। সেবার প্রত্যয়কে ধারণ করে সুদীর্ঘ ১১৪ বছরব্যাপী এ প্রতিষ্ঠানটি মানবতার সেবায় কাজ করছে। জাতিসংঘ সনদের খসড়া তৈরিতে অংশগ্রহণসহ বিশ্বব্যাপী সামাজিক উন্নয়নে রোটারী যে অবদান রেখে যাচ্ছে তা প্রশংসনীয়।



১৯৩৭ সালে আমাদের দেশে রোটারী আন্দোলনের সূত্রপাত হয়। বর্তমানে দেশের প্রায় ৩৫০টি রোটারী ক্লাবের প্রায় ১২ হাজারের অধিক সদস্য আর্তমানবতার সেবায় অবদান রেখে যাচ্ছেন। পোলিও নির্মূলসহ অন্ধত্ব নিবারণ, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষি, যুবকল্যাণ, দারিদ্র্য বিমোচন ইত্যাদি ক্ষেত্রে রোটারী ইন্টারন্যাশনাল সেবার অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। আমি আশা করি, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অবসরপ্রাপ্ত প্রিন্সিপাল লেঃ কর্নেল (অবঃ) এম. আতাউর রহমান পীরের নেতৃত্বে নতুন নতুন উদ্ভাবনী প্রকল্পের মাধ্যমে সেবামূলক কর্মসূচি আরো সম্প্রসারিত ও গতিশীল হবে। রোটারী ক্লাব অব মতলব শিক্ষা, স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে এবং ক্ষুধা ও দারিদ্র্য বিমোচনে কাজ করবে। এজন্যে সকলের সহযোগিতা কামনা করছি।



২০১৯-২০২০-রোটারী বর্ষের যাত্রা সুন্দর হোক, সফল হোক, কল্যাণ বয়ে আনুক হাজারো দুঃখী মানুষের জীবনে_এই কামনা রইলো রোটারী নববর্ষের শুভক্ষণে।



 



রোটারিয়ান মোঃ মোফাজ্জল হোসেন



প্রেসিডেন্ট (২০১৯-২০২০)



রোটারী ক্লাব অব মতলব



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৪১৭২৯৪
পুরোন সংখ্যা