চাঁদপুর, বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৮ আশ্বিন ১৪২৭, ৫ সফর ১৪৪২
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • --
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৭৬-সূরা দাহ্র বা ইন্সান


৩১ আয়াত, ২ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


২১। তাহাদের আবরণ হইবে সূক্ষ্ম সবুজ রেশম ও স্থুল রেশম, তাহারা অলংকৃত হইবে রৌপ্য নির্মিত কংকনে, আর তাহাদের প্রতিপালক তাহাদিগকে পান করাইবেন বিশুদ্ধ পানীয়।


২২। অবশ্য, ইহাই তোমাদের পুরস্কার এবং তোমাদের কর্মপ্রচেষ্টা স্বীকৃত।


 


ভয়কে যারা মানে তারাই জাগিয়ে রাখে ভয়।


-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর।


 


 


 


 


যে ব্যক্তি নীরবতা অবলম্বন করেছে সে মুক্তি লাভ করেছে।


 


ফটো গ্যালারি
বঙ্গবন্ধু-কন্যাকে নিয়ে টুকরো স্মৃতি
ডাঃ দীপু মনি
২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


বঙ্গবন্ধু-কন্যা তখন গৃহবন্দি ধানমন্ডি পাঁচ নম্বর সড়কের সুধাসদনে। ২০০৭-এর সম্ভবত জুনের শেষ সপ্তাহ তখন। দলীয় নেতা-কর্মীদের প্রবেশাধিকার নেই সেই বাড়িতে। আত্মীয়-স্বজনরা দেখা করতে পারেন। আমি তখন সেই বাড়িতে প্রতিদিন যাই। যাই বঙ্গবন্ধু-কন্যার ব্যক্তিগত চিকিৎসক পরিচয়ে।



 



তার কিছুদিন আগেই একদিন হঠাৎ করেই আমাকে আটকে দেওয়া হয়েছিল তার বাড়ি থেকে দুই মোড় আগে পাঁচ নম্বর সড়কের মাথায়। প্রহরারত পুলিশ কিছুতেই যেতে দেবে না নেত্রীর কাছে। ওপরের নিষেধ আছে। শুধু আমাকে নয়, সবার জন্যেই নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য, বলেছিলো পুলিশ। আমি ভেতরে নেত্রীকে ফোন করে জানালাম, 'আপা, ঢুকতে দিচ্ছে না।' নেত্রী অনুরোধ করতে বললেন তার নাম করে। শুনলো না। বেশ কিছুক্ষণ এভাবেই চললো। এরই মধ্যে বৃষ্টি শুরু হলো। নেত্রীকে বললাম, 'কিছুই তো শুনছে না, তবে কি চলে যাবো আপা?' নেত্রী এবার বললেন, 'ওকে বলো, তুমি আমার ব্যক্তিগত চিকিৎসক। তোমাকে ঢুকতে না দিলে আমি এখনই বেরিয়ে আসছি রাস্তা পর্যন্ত।' শুনেই তটস্থ হয়ে পুলিশ সদস্যটি খুবই অস্বস্তি নিয়ে বললো, 'এই কথাটা তো আগে বললেই পারতেন। যান, ভেতরে যান। এরপর যখনই আসবেন, এই পরিচয়টাই দেবেন।' সেই থেকেই সাথে সাদা অ্যাপ্রোন আর রক্তচাপ মাপার যন্ত্র ও স্টেথেস্কোপ নিয়ে রোজ সুধাসদনে আমার যাতায়াত। দুপুরের কাছাকাছি সময়ে গিয়ে নেত্রীর সাথে দুপুরের খাবার খেয়ে বিকেলের মধ্যে বেরিয়ে আসা, এই ছিলো ১৬ জুলাই ২০০৭-এর ভোরে নেত্রী গ্রেফতার হবার আগের দিন পর্যন্ত প্রতিদিনের রুটিন।



 



প্রতিদিনের মতো সেদিনও গেছি সুধাসদনে। নিচতলায় শেখ জামাল ক্রীড়াচক্রের কর্তাব্যক্তি একজন দেখা করতে এসেছিলেন। তিনি চলে যাবার পর নিচতলায় বসেই কথা হচ্ছে। নেত্রী আমাদের রেলপথ নিয়ে কথা বলছেন। রেলপথের উন্নয়ন নিয়ে তার স্বপ্নের কথা বলে চলেছেন। কোথায় কোথায় রেলসেতু হবে, কোথায় ডাবল গেজ হবে, কোথায় নতুন রেলপথ হবে_এমনভাবে বলে চলেছেন যে তিনি যেনো চোখের সামনেই সারাদেশের রেলপথের ছবিটি স্পষ্ট দেখছেন। তার স্বপ্ন আর পরিকল্পনার কথা শুনতে শুনতে আমি দু-চোখের পানি সামলাতে পারলাম না। রাগ আর কষ্টের অদ্ভুত মিশ্রণ। নেত্রী উৎকণ্ঠিত হয়ে জিজ্ঞেস করলেন, কাঁদছি কেনো হঠাৎ করেই। রাগে-দুঃখে বললাম, 'আপনাকে গৃহবন্দি করে রেখেছে। দুদিন বাদেই হয়তো গ্রেফতার করে জেলে নেবে। তত্ত্বাবধায়ক সরকার বহু বছর ক্ষমতায় থাকার পাঁয়তারা করছে। ঘরে-বাইরে শত্রুরা ষড়যন্ত্র করছে। আপনাকে মেরে ফেলবে সুযোগ পেলেই। আদৌ নির্বাচন হবে কি না, গণতন্ত্রে দেশ ফিরবে কি না বা ফিরলেও কত বছরে, তার কোনো হিসাব নেই। আর আপনি কি না বন্দিদশায় বসে বসে রেলপথের উন্নয়ন, সাধারণ মানুষের চলাচল আর দেশব্যাপী পণ্য পরিবহনের সুবিধার পরিকল্পনা করছেন। আপনাকে গ্রেফতার করবে না তো আর কাকে করবে?' বলতে বলতে উত্তেজনায় চোখের পানি নাকের পানি একাকার।



 



নেত্রী সস্নেহে শান্ত অথচ খুব দৃঢ় স্বরে বললেন, 'একটুও ভাববে না। ওরা আমার কিছুই করতে পারবে না। আমার দেশের জনগণ ওদের শাসন মানবে না। ওরা নির্বাচন দিতে বাধ্য হবে। জনগণ আমাদের ভোট দেবে। আমরা সরকার গঠন করবো। পরিকল্পনা সব তাই এখন থেকেই করে রাখছি, যেনো দায়িত্ব পাবার পর সময় নষ্ট না করতে হয়।' আমি অবাক হয়ে তার কথা শুনলাম। মনে পড়লো কর্নেল শওকত আলী চাচার কথা। '৬৯-এ বঙ্গবন্ধু (তখনও এ উপাধিতে তিনি ভূষিত হননি) আগরতলা মামলায় তার সাথে আরও যারা অভিযুক্ত ছিলেন তাদের ফাঁসিতে ঝুলবার আশঙ্কার জবাবে বলেছিলেন, 'ভাবিস না, জনগণ এ প্রহসনের বিচার মানবে না। আমাদের আন্দোলন করে মুক্ত করবে। তারপর নির্বাচন দিতে সরকার বাধ্য হবে। আমরা জিতবো। আমাদের ক্ষমতায় যেতে দেবে না। যুদ্ধ হবে। আমরা স্বাধীন হবো।' আমার গায়ে কাঁটা দিয়ে উঠলো। নেত্রীর কথাগুলো কি পিতার কথার মতোই সত্যে পরিণত হবে? কোন দৈববলে মানুষ এমন ভবিষ্যৎ দেখতে পারে? ইতিহাসবোধ আর মানুষকে বুঝতে পারার গভীরতা এবং আত্মবিশ্বাস কতটা জোরাল হলে কোনো নেতা বা নেত্রী এমন ভবিষ্যদ্বাণী করতে পারেন?



 



মনে পড়ে, চোখ বন্ধ করে স্রষ্টার কাছে নীরবে সেদিন প্রার্থনা করেছিলাম, পিতার মতোই বঙ্গবন্ধু-কন্যার কথাও যেনো সত্যি হয়। আর শোকরিয়া আদায় করলাম আল্লাহর কাছে, এমন নেত্রীর কাছে থাকবার, তার স্নেহ পাবার, তার কাছে থেকে রাজনীতি শিখবার, তার কর্মী হিসেবে দেশের জন্যে কাজ করবার সুযোগ তিনি দিয়েছেন আমাকে। আমি ধন্য।



 



লেখক : শিক্ষামন্ত্রী, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অন্যতম যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক।



সূত্র : ওয়েবসাইট, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ।



 


করোনা পরিস্থিতি
বাংলাদেশ বিশ্ব
আক্রান্ত ৩,৮৭,২৯৫ ৩,৯৬,৩৮,১৮৮
সুস্থ ৩,০২,২৯৮ ২,৯৬,৭৮,৪৪৬
মৃত্যু ৫,৬৪৬ ১১,০৯,৮৩৮
দেশ ২১৩
সূত্র: আইইডিসিআর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৩৫২২১
পুরোন সংখ্যা