চাঁদপুর, বুধবার ১২ আগস্ট ২০২০, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৭, ২১ জিলহজ ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • চাঁদপুর পৌরসভা নির্বাচন হতে কোনো বাধা নেই : হাইকোর্ট; রিট খারিজ। ||  তথ্যসূত্র: চ্যানেল টুয়েন্টি ফোর।
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৭৩-সূরা মুয্যাম্মিল


২০ আয়াত, ২ রুকু, মক্কী


 


১৭। অতএব যদি তোমরা কুফরী কর তবে কী করিয়া আত্মরক্ষা করিবে সেই দিন যেই দিনটি কিশোরকে পরিণত করিবে বৃদ্ধে,


 


 


 


শিক্ষা অলঙ্কারের মতো নয়। এর হারিয়ে যাবার সম্ভাবনা নেই।


-বার্নাস।


 


সাবধান ধর্ম সম্বন্ধে বাড়াবাড়ি কোরো না। (ধর্মের) বাড়াবাড়ির জন্য তোমাদের পূর্ববর্তী বহু জাতি ধ্বংস হয়ে গেছে।


 


 


ফটো গ্যালারি
বন্যার বহুমাত্রিক প্রভাব ও প্রতিকার
প্রফেসর ড. মোহাঃ হাছানাত আলী
১২ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


বাংলাদেশ নদীবিধৌত সমতল বদ্বীপ অঞ্চল। দেশের প্রায় ২৫০টি নদী জালের মতো জড়িয়ে রেখেছে প্রিয় বাংলাদেশকে। ভৌগোলিক অবস্থানগত কারণে বাংলাদেশ প্রায়ই নানা প্রাকৃতিক দুর্যোগের সম্মুখীন হয়ে থাকে। এগুলোর মধ্যে অন্যতম অনাবৃষ্টি, অতিবৃষ্টি দারিদ্র্য ও অভাবের মতো বন্যাও যেন এদেশের মানুষের কাছে নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রায় প্রতিবছর নিম্নাঞ্চলের মানুষকে বন্যার সাথে যুদ্ধ করে টিকে থাকতে হয়।



 



দেশের বৃহৎ নদীগুলো পাহাড়ি বৃষ্টিপাত ও হিমালয়ের বরফগলা পানি বয়ে এনে প্রায় প্রতিবছরই বন্যা ঘটায়। নিরীহ মানুষগুলোর জীবন করে তোলে যন্ত্রণাময়। বন্যা বাংলাদেশের জন্য অনেকটা অভিশাপস্বরূপ। প্রতিবছর বন্যা দেশের মানুষের প্রাণহানি ও ধনসম্পদের ব্যাপক ক্ষতি করে থাকে। পৃথিবীর মোট ভৌগোলিক অঞ্চলের ৩.৫ শতাংশ বন্যাপ্রবণ এলাকা। অন্যদিকে পৃথিবীর মোট জনসংখ্যার প্রায় ১৬.৫ শতাংশ মানুষ বন্যাপ্রবণ অঞ্চলে বসবাস করে। বাংলাদেশের ইতিহাসে স্মরণকালের বড় বন্যাগুলো হয়েছিল যথাক্রমে ১৯৭৪, ১৯৭৭, ১৯৮০, ১৯৮৭, ১৯৮৮, ১৯৮৯, ২০০৪ ও ২০০৭ সালে।



 



তবে ১৯৮৮ ও ১৯৮৯ সালের বন্যায় দেশে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ছিল সবচেয়ে বেশি। সে বন্যায় দেশের অধিকাংশ অঞ্চল ডুবে গিয়েছিল। অনেক মানুষ পানিবন্দী হয়ে মারা যায়। রাস্তাঘাটের ব্যাপক ক্ষতিসাধিত হয়েছিল। প্রকট খাদ্যসংকট সৃষ্টি হয়েছিল। এদিকে ২০০৭ সালে ঘূর্ণিঝড় থেকে সৃষ্ট বন্যা সাম্প্রতিককালের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ দুর্যোগ হিসেবে বিবেচিত হয়ে থাকে। ২০১৩ সালে বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলের কিছু জেলায় মৌসুমী বন্যা দেখা দেয়। এতে কয়েক লক্ষ মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়ে। ব্যাপক ক্ষতি হয় গ্রামের খেটে খাওয়া মানুষের। অনেকের ফসলিজমি ও বাড়িঘর নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যায়।



 



এবার আসা যাক এবারের বন্যার কথায়। বন্যায় দেশের প্রায় ৩০টি জেলা কম-বেশি প্লাবিত। মানুষ এখন আর শুধু ঘরবন্দী নয়, পানিবন্দী হয়ে নিদারূণ কষ্টে দিনাতিপাত করছে। করোনাসংকটের মধ্যে এ বন্যা যেন মরার ওপর খড়ার ঘা হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। দেশ এমনিতেই এক চরম ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। যুদ্ধ করছে এক অদৃশ্য শত্রু করোনার বিরুদ্ধে। আক্রান্ত ও নিহত মানুষের মিছিল দিনদিন লম্বা হচ্ছে। করোনার প্রভাবে দেশের অর্থনীতি নাজুক। কলকারখানায় উৎপাদন কমেছে। বহু মানুষ চাকরি হারিয়ে গ্রামে ফিরে গেছে। জীবন বাঁচানোর তাগিদে পেশা বদলের চিন্তায় নিমগ্ন কর্মহারা মানুষগুলো। মধ্যবিত্ত বিলীন হয়ে যাচ্ছে। গরিব আরও গরিব হচ্ছে। দেশের শিক্ষাব্যবস্থা অনেকটায় স্থবির। বন্যা এসব সংকটকে বহুগুণে বাড়িয়ে দিয়েছে।



 



পদ্মা, মেঘনা, ব্রহ্মপুত্র, যমুনা ও তিস্তা নদীর পানি বিপৎসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ার ফলে দেশে বন্যার সৃষ্টি হয়েছে। উজান থেকে নেমে আসা পানির আধিক্য এবং অতিবৃষ্টিই বন্যার মূল কারণ। বন্যা শুধু মানুষের জীবনকে বিপর্যস্ত করে তা কিন্তু নয়, গোটা দেশের অর্থনীতিকেই বিপর্যস্ত করে ফেলে। বাংলাদেশের অর্থনীতি এখনও কৃষিনির্ভর। বন্যায় সেই কৃষির ব্যাপক ক্ষতি হয়ে থাকে। গ্রামীণ অবকাঠামো ক্ষতিগ্রস্ত হয়। বাংলাদেশে গ্রামে বসবাসকারী মানুষের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি।



 



তাদের অধিকাংশই আবার দিন আনে দিন খায়। বন্যায় রাস্তাঘাট সবকিছু ডুবে যায় বলে তাদের রোজগারের পথ অনেকটায় বন্ধ হয়ে যায়। ফলে বন্যাকবলিত এলাকায় খাদ্যের অভাবে মানুষগুলো মানবেতর জীবনযাপন করতে বাধ্য হয়। বন্যার করালগ্রাসে মানুষের ঘরবাড়ি, কৃষিজমি, বাড়িঘর নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যায়। বহু মানুষ ভূমিহীন হয়ে পড়ে। এবারের বন্যার প্রভাবও তার ব্যতিক্রম নয়। বহু মানুষ ইতোমধ্যে তাদের সবকিছু হারিয়ে নিঃস্ব। ফসল হারিয়ে বাকরুদ্ধ। অনিশ্চিত ভবিষ্যতের জন্য চিন্তিত।



 



বাংলাদেশ কৃষিপ্রধান দেশ। সরকারের আয়ের একটি বড় অংশ আসে কৃষি থেকে। কিন্তু প্রতিবছর বন্যার কারণে ফসলের উৎপাদন ব্যাহত হয়। ফলে প্রিয় বাংলাদেশ অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়, যা দেশের সার্বিক উন্নয়নের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। বন্যার ফলে দেশে প্রতিবছর নানা প্রজাতির কৃষিজফসল নষ্ট হয়। এতে খাদ্যসংকট দেখা দেয়। দেশের খাদ্য চাহিদা মেটাতে অনেক সময় বাইরের দেশগুলো থেকে খাদ্য আমদানি করতে হয়। অর্থনীতির ওপর চাপ পড়ে।



 



বাংলাদেশের ভূ-প্রাকৃতিক গঠন বন্যার প্রধানতম কারণ হিসেবে বিবেচিত হয়ে থাকে। পদ্মা-মেঘনা-যমুনাসহ বিভিন্ন নদী বাংলাদেশকে আড়াআড়িভাবে অতিক্রম করে বঙ্গোপসাগরে পতিত হয়েছে। বর্ষাকালে নদীগুলোর পানিপ্রবাহ বৃদ্ধি পেয়ে বন্যার সৃষ্টি করে থাকে। বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল ঢালু। আবার প্রতিবছরই বিভিন্ন কারণে নদীর গভীরতা কমে যাচ্ছে। এতে বাড়তি পানি নিষ্কাশনের সুযোগ দিনদিন কমে যাচ্ছে। ফলে অতিরিক্ত পানি বন্যার সৃষ্টি করে থাকে। বাংলাদেশের দক্ষিণে বঙ্গোপসাগর উত্তরে হিমালয় পর্বত অবস্থিত। তাই ভূ-প্রাকৃতিক কারণে বাংলাদেশ বৃষ্টিবহুল অঞ্চল হিসেবে পরিচিত।



 



প্রতিবছর বর্ষা মৌসুমে বাংলাদেশে প্রচুর বৃষ্টিপাত হয়ে থাকে। ফলে বন্যার সৃষ্টি হয়। বাংলাদেশে অবস্থিত নানা ধরনের বিল, হাওর, জলাশয় ও নদী বর্ষাকালে অতিরিক্ত পানি সংরক্ষণ করে থাকে, যা পরবর্তীতে শুষ্ক মৌসুমে সেচ কাজে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। কিন্তু নদীবাহিত পলি জমে এসব জলাশয় ও নদ-নদী ভরাট হয়ে যাওয়ায় পানি ধারণক্ষমতা দিন দিন কমে যাচ্ছে। ফলে অতিরিক্ত পানি নদীর চারপাশের সমতল ভূমিতে ছড়িয়ে পড়ে প্লাবনের সৃষ্টি করছে। বর্ষাকালে মৌসুমী বায়ু দক্ষিণ-পূর্ব ও উত্তর-পশ্চিমে প্রবাহিত হয় বলে দক্ষিণমুখী নদীর স্বাভাবিক গতিপথ বাধাগ্রস্ত হয়। একই সাথে প্রবল বৃষ্টির ফলে বঙ্গোপসাগরের পানি বৃদ্ধি পায়। এই অতিরিক্ত পানির স্রোত আবার দেশের অভ্যন্তরে আসে। ফলে অতিরিক্ত পানি আটকে থেকে বন্যার সৃষ্টি হয়। অন্যদিকে হিমালয় পর্বতে জমে থাকা বরফ সূর্যের তাপে গলতে থাকে। এই বরফগলা পানি বাংলাদেশে প্রবেশ করে অনেক সময় বন্যার সৃষ্টি করে থাকে।



 



শুধু প্রকৃতিগত কারণেই দেশে বন্যা হয়ে থাকে তা কিন্তু নয়। মনুষ্যসৃষ্ট কারণেও দেশে বন্যা হয়ে থাকে। প্রশাসনের নাকের ডগায় ক্ষমতাশালী মানুষগুলো দেশের খাল-বিল, ছোট ছোট নদী-নালা, পুকুর-ডোবা ভরাট করে নানা স্থাপনা গড়ে তুলেছে। ফলে পানি নিষ্কাশনের পর্যাপ্ত ব্যবস্থার অভাবে বর্ষা মৌসুমে অতিরিক্ত পানি উপচেপড়ে বন্যা ঘটাচ্ছে। এই ঢাকা শহরের কথায় ধরা যাক। মেগাসিটি ঢাকার মধ্যদিয়ে প্রবাহমান প্রায় সকল খাল, নদী-নালা, পুকুর-ডোবা ভূমিদস্যুরা ভরাট করে বহুতল ভবন নির্মাণ করেছে। বুড়িগঙ্গা, তুরাগ, শীতলক্ষ্যা দখলে-ভরাটে শীর্ণকায় নালায় পরিণত হয়েছে। তাই সামান্য বৃষ্টিতেই তিলোত্তমা ঢাকা বন্যার রূপ ধারণ করে ব্যাপক জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করে থাকে। দেখার যেনো কেউ নেই। ওয়াসার নজিরবিহীন ব্যর্থতা নগরবাসীকে ক্ষুব্ধ করেছে। এছাড়া নদীর উপর নির্মিত অবকাঠামো মানুষের সুবিধার পাশাপাশি কখনো কখনো অসুবিধাও সৃষ্টি করে থাকে। নদীর উপর ব্রিজ, কালভার্ট, জলবিদ্যুৎ প্রকল্প তৈরি করার ফলে এগুলোর স্বাভাবিক প্রবাহ বাধাগ্রস্ত হয়।



 



দেশে বন্যার অন্যতম আরেকটি কারণ হলো বনাঞ্চল ধ্বংস করা। বনাঞ্চল ধ্বংস করার ক্ষতিকর প্রভাব পড়েছে আমাদের প্রকৃতি ও জীববৈচিত্রের ওপর। অতি মুনাফার লোভে আমরা নির্বিচারে বনাঞ্চল উজাড় করে ফেলেছি। শিল্প-কারখানা থেকে নিঃসৃত কার্বন পরিবেশ ও প্রকৃতির ব্যাপক ক্ষতিসাধন করলেও আমরা নির্বিকার থেকেছি। বন উজাড় করে নিত্যনতুন ইটভাটা তৈরি করেছি। যা আমাদের প্রকৃতি ও জলবায়ু পরিবর্তন করে কখনো অনাবৃষ্টি কখনো অতিবৃষ্টি বন্যার সৃষ্টি করছে।



 



এছাড়া ভারতের তৈরি ফারাক্কা বাঁধের কু-প্রভাবে দেশ প্রতিবছর আকস্মিক বন্যায় প্লাবিত হয়ে থাকে। খরা মৌসুমে বন্ধুরাষ্ট্র ভারত ফারাক্কা বাঁধের প্রতিটি দরজা বন্ধ করে বাংলাদেশকে মরুভূমিতে পরিণত করার প্রয়াসে লিপ্ত থাকলেও বর্ষা মৌসুমে সম্পূর্ণ নিজেদের স্বার্থে বাঁধের সবকটা দরজা খুলে দিয়ে দেশে অপ্রত্যাশিত বন্যা সৃষ্টিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। তাই ফারাক্কা বাঁধকে বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান বন্যার কারণ বলা হয়ে থাকে। যা আমাদের জন্য অভিশাপ।



 



এছাড়া শুধু ফারাক্কা বাঁধই নয়, ভারত তিস্তাসহ প্রায় সবকটি নদীর উজানে তাদের সীমান্তে একতরফাভাবে বাঁধ নির্মাণ করে খরা মৌসুমে পানি প্রত্যাহার করে বাংলাদেশের মরুকরণে ভূমিকা রাখলেও বর্ষা মৌসুমে পানি ছেড়ে প্রতিবছর ব্যাপক ক্ষতিসাধন করে থাকে। কিন্তু সমাধান আমাদের হাতে নেই। সাম্প্রতিক সময়ে ভারত বন্ধুত্বের অজুহাতে শুধু নিতেই অভ্যস্ত দিতে নয়। তাই তো তিস্তাসহ অভিন্ন নদীর পানিবণ্টনের বিষয়টি ঝুলে আছে বছরের পর বছর।



 



যেহেতু বন্যার সাথেই আমাদের বসবাস। তাই বন্যা প্রতিরোধে আমরা কিছু স্বল্পমেয়াদি ও দীর্ঘমেয়াদি কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারি। যেমন নদীর গতিপথ পরিষ্কারের জন্য উন্নত প্রযুক্তিতে ড্রেজিং করে নদীর গতিপথে জমে থাকা পলি অপসারণ করতে পারি। এতে করে নদীর পানি ধারণক্ষমতা বহুলাংশে বৃদ্ধি পাবে।



 



যেসব হাওর বিল ভরাট হয়ে গেছে সেগুলো দখলমুক্ত করে পুনঃখননের ব্যবস্থা নেয়া যেতে পারে। দখল হয়ে যাওয়া অসংখ্য নদী দখলমুক্ত করে নদীর দুইপাড়ে স্থায়ী বনাঞ্চল তৈরি করা যেতে পারে। এতে করে একদিকে যেমন নদী পাড় ভেঙে মাটিতে ভরাট হওয়ার হাত থেকে নদী রক্ষা পাবে। অন্যদিকে নদীর গভীরতা বজায় রাখা সম্ভব হবে। আর নদী ভরাট করে যেসব অবৈধ স্থাপনা গড়ে উঠেছে বা ভরাটের ফলে নদীর গতিপথ পরিবর্তন হয়ে গেছে তা অনতিবিলম্বে অপসারণ করে নদীকে তার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আনার উদ্যোগ গ্রহণ এখন আর সস্নোগান নয় সময়ের দাবি।



 



এছাড়া অবকাঠামো নির্মাণে সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। নদীর উপর রাস্তাঘাট, ব্রিজ-কালভার্ট এমনভাবে তৈরি করতে হবে যাতে সেগুলো নদীর গতিপথে বাধা সৃষ্টি করতে না পারে। নদীর পাড়ে ব্যাপকভাবে সামাজিক বনায়ন করা হলে নদীভাঙন রোধ করা সম্ভবপর হবে।



 



উপরোক্ত উপায়ে কেবল বন্যার ভয়াবহ কমানো যেতে পারে মাত্র কিন্তু স্থায়ীভাবে তা বন্ধ করা যাবে না। কাজেই বন্যাপরবর্তী পুনর্বাসনে বিভিন্ন ধরনের প্রতিকারমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ আশুপ্রয়োজন। যেমন :



(ক) পানিবন্দী মানুষের বাসস্থানের সুবিধা প্রদানের জন্য দেশের বন্যাকবলিত এলাকায় পর্যাপ্ত আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ করা যেতে পারে। যাতে তারা বন্যাকালে নিরাপদ আশ্রয় খুঁজে পায়।



(খ) বন্যাকবলিত মানুষদের খাদ্য-পানীয় সরবরাহ নিশ্চিতে কার্যকরী সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে খাদ্যসাহায্য প্রদানের উদ্যোগ বৃদ্ধি ও তা চলমান রাখা অতীব জরুরি।



(গ) বন্যার পানি নেমে গেলে মানুষ বিভিন্ন পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হতে পারে। অতীত অভিজ্ঞতাও সেটাই বলে। তাই আক্রান্তদের চিকিৎসাসেবা প্রদানে সার্বিক প্রস্তুতি গ্রহণ এখনই করতে হবে। স্থানীয় হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোকে প্রয়োজনীয় ওষুধসহ প্রস্তুত করে রাখতে হবে।



(ঘ) বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষদের নানা ধরনের প্রকল্পের আওতায় এনে তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা সরকারের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। তাই বন্যার পর ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের পুনর্বাসনে সহজশর্তে সার, বীজ, কীটনাশক সরবরাহ করতে হবে। নামমাত্র সুদে বা বিনা সুদে কৃষিঋণ প্রদানের উদ্যোগ হতে পারে দেশের কৃষিখাতের উন্নয়নে মাইলফলক।



 



একটা কথা সবসময় মনে রাখতে হবে যে, কৃষক বাঁচলে দেশের কৃষি বাঁচবে। আর কৃষি বাঁচলে দেশের অর্থনীতি বাঁচবে। আমরা বাঁচব। তাই দেশের অর্থনীতির স্বার্থে দেশের কৃষিকে বাঁচাতে সরকারকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে হবে। আর যে কৃষক মাথার ঘাম পায়ে ফেলে ফসল উৎপাদন করে আমাদের খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিত করে তাদের বহুবিদ প্রণোদনা দিয়ে স্বাভাবিক শ্বাস-প্রশ্বাস নিশ্চিত করতে হবে। খেটে খাওয়া কৃষকের চাহিদা কিন্ত খুবই নগণ্য। তারা চায় শুধু তাদের উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্যমূল্য।



 



দুঃজনক হলেও সত্য যে, আমাদের রাষ্ট্রব্যবস্থা সময়ে সময়ে কৃষকের এই অতিসামান্য চাহিদাটুকুই মেটাতে পারে না কিছু অতিলোভী মুনাফাখোর মানুষদের জন্য। যেমন এবারও চামড়া সিন্ডিকেটের কারণে এতিমের হক চামড়ার মূল্যে ভাগ বসিয়েছে এক শ্রেণির মুনাফাখোর। করোনা মহামারিও এদের মানুষ করতে পারেনি। দুর্নীতি-অনিয়ম থেকে এদের বিরত রাখতে পারেনি। ধিক্কার মানুষরূপী এমন অমানুষদের প্রতি।



 



যাক সেসব কথা। বন্যা বাংলাদেশের মানুষের কাছে নতুন কোনো বিষয় নয়। নানা ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির মতো এই ঘাতক বন্যা দেশের মানুষের কাছে চিরায়িত সংস্কৃতির এক অভিন্ন অংশে পরিণত হয়েছে। ভৌগোলিক অবস্থানগত কারণে এটি বন্ধ করা আমাদের পক্ষে মোটেই সম্ভব নয়। তারপরও বন্যার ক্ষতিকর প্রভাব যতটুকু পারা যায় ততটুকু কমানোর চেষ্টা করা উচিত। এ জন্য প্রয়োজন সর্বস্তরের জনগণের সম্মিলিত প্রচেষ্টা।



 



লেখক : অধ্যাপক, আইবিএ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।



 



 


করোনা পরিস্থিতি
বাংলাদেশ বিশ্ব
আক্রান্ত ৩,৩৯,৩৩২ ২,৯২,০১,৬৮৫
সুস্থ ২,৪৩,১৫৫ ২,১০,৩৫,৯২৬
মৃত্যু ৪,৭৫৯ ৯,২৮,৬৮৬
দেশ ২১৩
সূত্র: আইইডিসিআর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
আজকের পাঠকসংখ্যা
৯২২৮১১
পুরোন সংখ্যা