চাঁদপুর, সোমবার ২৩ মার্চ ২০২০, ৯ চৈত্র ১৪২৬, ২৭ রজব ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৬৭-সূরা মুল্ক


৩০ আয়াত, ২ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


৩। যিনি সৃষ্টি করিয়াছেন স্তরে স্তরে সপ্তাকাশ। দয়াময় আল্লাহর সৃষ্টিতে তুমি কোন খুঁত দেখিতে পাইবে না; তুমি আবার তাকাইয়া দেখ, কোন ত্রুটি দেখিতে পাও কি?


 


 


 


শিক্ষা মানুষকে সব অবস্থাই সহনশীল হতে শেখায়।


-উইলিয়াম বিললিং।


 


 


 


যে শিক্ষিত ব্যক্তিকে সম্মান করে, সে আমাকে সম্মান করে।


 


 


ফটো গ্যালারি
মিলু শামসের 'দীর্ঘায়িত দুঃখগুলো'
মুহম্মদ সালাহউদ্দীন
২৩ মার্চ, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


স্মৃতি ও বর্তমান প্রবহমান জীবনের বহুরূপতার অন্তর্ভেদী চিত্র অংকন করতে গিয়ে কবি মিলু শামস মুখ্যত পরিপাশ্র্বের চিত্র অাঁকতে চেয়েছেন। আর সেই চিত্রের মধ্যে ধরা পড়েছে নাগরিক মধ্যবিত্তের প্রতিকৃতি। কবি স্বকালের অস্থিরতার বৈপরীত্যে শিল্পভাষ্য হিসেবে পাঠককে অসম্ভব কোনো স্বপ্নরাজ্যের প্রলোভন দেখাননি বলেই দুঃখের অনুষঙ্গ অনিবার্য হয়ে উঠেছে। বর্তমান সময়ের সংশয়চিত্র কবির মনকে নিদারুণভাবে ব্যথিত করেছে। অলঙ্কারাধিক্য, অতি কথন ও স্থূলতা মিলু শামসের 'দীর্ঘায়িত দুঃখগুলো' গ্রন্থে সনি্নবেশিত কবিতাগুলোকে গ্রাস করে শিল্পমান ক্ষুণ্ন করেনি। কবিতাগুলো তাঁর দীর্ঘ নিরীক্ষাধর্মী ও পরিণত বয়সের পরিপক্ক লেখা।



তিনি কবিতায় নাগরিক জীবনে ব্যস্ততা, বাধ্যতা ও কঠোরতা কীভাবে আমাদেরকে প্রতিনিয়ত গ্রাস করে চলছে তার হৃদয়গ্রাহী ও চিরন্তন চিত্র তুলে ধরেছেন। মিলু শামস 'কাজের টেবিলে দশটি আঙ্গুল' কবিতায় বলেন : তারপর আবার-/ আরও একটি দিন/ কর্মঘণ্টায় বাঁধা দশটি আঙ্গুল/আরও আরও দিন..। 'কথা ছিল' কবিতাটি মধ্যবিত্তের মানসিক যন্ত্রণার সাবলীল ও স্বতঃস্ফূর্ত উচ্চারণ। তিনি ক্ষয়িষ্ণু সমাজ কাঠামোর সারশূন্যতা তুলে ধরে বলেন-আর আমি একটি অলিখিত পদ্যের/ খেলাপি ঋণে জর্জরিত হয়ে/ সঙ্কোচ ও অনুশোচনায়/ ক্রমাগত তলিয়ে যেতে থাকি। 'ফাল্গুনের ভোরে নিরুপমা দি' কবিতায় কথোপকথনের মাধ্যমে তিনি ৪৭ সালে দেশ ভাগের নামে যন্ত্রণাময় ব্যবচ্ছেদের যে মর্মস্পর্শী চিত্র তুলে ধরেছেন পাঠক বহুদিন ধরে তা মনে রাখবে। তিনি বলেন : র‌্যাডক্লিফ লাইনের ধারে/বাস্তুহারা বাংলা/ উড়িয়া, অসমীয়া ভাষার করুণ কিন্নর কাহিনী/-একুশে ফেব্রুয়ারি?/ মুখ থুবড়ে পড়বে এমন/ জানতো র‌্যাডক্লিফের ছুরি। 'যুদ্ধ' কবিতায় তিনি আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের কথা স্মরণ করতে গিয়ে শৈশবের প্রতিজ্ঞার কথা মনে করে আবেগ তাড়িত হয়ে বলেন : আমাদের আয়ুর দৈর্ঘ্যে/ শৈশবে দেখা স্বপ্নের যুদ্ধটা/ আর করা হল না।



জীবন সত্যের বিচিত্ররূপ প্রকাশ করতে গিয়ে কবি তাঁর বিভিন্ন কবিতায় চলমান জীবনে প্রতিঘাতের শাশ্বত দিকগুলো উন্মোচন করেছেন। 'সীমানা প্রাচীর' কবিতায় বলেছেন : জীবনভর ডালপালা নিয়ে তার/ এমনই খেলা চলেছে বারবার/ শিশুদের, বড়দের/ এবার প্রদোষে/ হিম অন্ধকারে/ শেকড় উপড়ে/ নিজেই ঝাঁপ দিল সে-/ মানুষ আর ছায়া মানবের/ সীমানা প্রাচীর থেকে/ মৃত্তিকার অতলে..।



'দীর্ঘায়িত দুঃখগুলো' গ্রন্থের কবিতাগুলোর মধ্যে দুঃখের দ্বীপ দৃশ্যমান হলেও সেখানে দাঁড়িয়ে তিনি কিছুটা হলেও আলোর হাতছানি দেখতে পান। 'হেসে ওঠো জীবনের রোদে' কবিতায় তিনি বলেছেন : কতকাল, শীর্ণ শরীরে তার সজল প্রেমের স্রোত / ভালবাসা হেঁটে এলো এই ভৈরবী ভোরে/ সাত সমুদ্র তেরো নদী পাড়-/ এখানে নোঙর ফেলো, করো জীবনের চাষবাস।



কবিতা গ্রন্থ 'দীর্ঘায়িত দুঃখগুলো' প্রকাশ করেছে 'উৎস প্রকাশন', প্রচ্ছদ শিল্পী মোস্তাফিজ কারিগর। মূল্য ১৫০টাকা।



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৫৫৭৬৬৭
পুরোন সংখ্যা