চাঁদপুর, সোমবার ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২৫ ভাদ্র ১৪২৬, ৯ মহররম ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৫-সূরা রাহ্মান


৭৮ আয়াত, ৩ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৬৬। উভয় উদ্যানে আছে উচ্ছলিত দুই প্রস্রবণ।


৬৭। সুতরাং তোমরা উভয়ে তোমাদের প্রতিপালকের কোন্ অনুগ্রহ অস্বীকার করিবে?


৬৮। সেথায় রহিয়াছে ফলমূল -খর্জুর ও আনার।


 


 


 


assets/data_files/web

বাণিজ্যই হলো বিভিন্ন জাতির সাম্য সংস্থাপক। -গ্লাডস্টোন।


 


 


যখন কোনো দলের ইমামতি কর, তখন তাদের নামাজকে সহজ কর।


 


 


 


ফটো গ্যালারি
বিদ্যাসাগর : মধুসূদনের ঋণ
মুহাম্মদ ফরিদ হাসান
০৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


সমাজ ও সাহিত্যের যে সুবিশাল আঙ্গিনা, সেই পরিধির মধ্যে ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর তাঁর সমগ্র জীবন যাপন করে গেছেন। অনেক প্রতিকূলতা চলতি পথে পাহাড় হয়ে দাঁড়িয়েছিল, সংস্কার-আচ্ছন্নদের বাক্যবাণ তাঁকে বিদ্ধ করেছিল নিদারুণভাবে_কিন্তু তাঁর অবিরাম পথচলার গতিরোধ করতে পারেনি। কুসংস্কার ও সঙ্কীর্ণতার দেয়াল ডিঙিয়ে বর্তমানে আমাদের সভ্যতা যতদূর এগিয়েছে, তার পেছনে বিদ্যাসাগরের অবদান বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ। এ উপমহাদেশে তাঁর মতো আপাদমস্তক সমাজসংস্কারক আমরা হাতেগোণা কয়েকজনকে পেয়েছি মাত্র। বিদ্যাসাগরের অপার উদারতার সাথে যাঁদের প্রত্যক্ষ পরিচয় ছিল তাঁদের মধ্যে মাইকেল মধুসূদন দত্ত ছিলেন অন্যতম। বিদ্যাসাগর তাঁর প্রতিভার বিশেষ অনুরাগী ছিলেন। মধুসূদন কবি হিসেবে সফল হলেও জীবনের অধিকাংশ সময় তিনি অর্থকষ্টে ভুগেছেন। দেনার দায়ে তাঁর জেলে যাওয়া, ব্যারিস্টারি পড়া বন্ধেরও উপক্রম হয়েছিল। ওই দুর্দিনে তাঁকে আর্থিক ও মানসিকভাবে পরমস্নেহে আগলে রেখেছিলেন ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর। ফলে সার্বিক বিচারে উপকৃত হয়েছে বাংলা সাহিত্য।



 



বিদ্যাসাগরের সাথে মধুসূদন দত্তের পরিচয় ১৮৫৬ সাল থেকে। তখনও তাঁদের সম্পর্ক গাঢ় হয়নি। ১৮৬০ সালে মধুসূদনের 'তিলোত্তমাসম্ভব কাব্য' প্রকাশিত হলে বিদ্যাসাগর এ কাব্যের সমালোচনা করেন। বন্ধু রাজনারায়ণকে এক পত্রে মধুসূদন লিখেছেন, 'আমি শুনেছি বিদ্যাসাগর এই কাব্যের অবজ্ঞা ভরে আলোচনা করেছেন।' এ 'অবজ্ঞা' ভরা আলোচনা নিয়ে মধুসূদন অভিমান করলেও তা দীর্ঘস্থায়ী হয়নি। কারণ পরবর্তীতে বিদ্যাসাগর তাঁর মতামত পরিবর্তন করেন। মধুসূদন রাজনারায়ণকে লিখেছেন, ''তুমি জেনে খুশি হবে যে বাংলার প-িত সমাজ তিলোত্তমাকে মান্যতা দিচ্ছে। প্রখ্যাত বিদ্যাসাগর মহাশয় পর্যন্ত অবশেষে এর মধ্যে 'গ্রেট মেরিট' খুঁজে পেয়েছেন।'' মূলত তিলোত্তমাসম্ভবকে ঘিরে বিদ্যাসাগর ও মধুসূদন দত্তের সম্পর্ক গভীরে পেঁৗছে। গবেষক বিনয় ঘোষ জানাচ্ছেন, ওই বছরই মধুসূদন বিদ্যাসাগরের প্রস্তর মূর্তি স্থাপনের জন্যে বেতনের অর্ধেক টাকা দানের প্রস্তাব করেন। এ থেকে অনুধাবন করা যায়, খুব দ্রুতই তাঁদের মধ্যে সুসম্পর্ক গড়ে ওঠে।



 



মধুসূদন দত্তের বিলেতে ব্যারিস্টারি পড়তে যাওয়ার 'সক্রিয় সমর্থক' ছিলেন বিদ্যাসাগর। ১৮৬২ সালের ৯ জুন ব্যারিস্টারি পড়তে কবি বিলেত পাড়ি জমান। তাঁর জমিজমা তখন কলকাতার মহাদেব চট্টোপাধ্যায়ের কাছে পত্তনি দেয়া হয়। রাজা দিগম্বর মিত্র ও বৈদ্যনাথ মিত্র পত্তনিদারের কাছ থেকে টাকা আদায় করে বিলেতে পাঠানোর দায়িত্ব নেন। ঠিক হলো মধুসূদন তাদের পাঠানো অর্থে বিলেতে দিনযাপন করবেন। কিন্তু ভাগ্য বিরূপ, মধুসূদন পত্তনির টাকা কয়েকবার পেয়েছেন মাত্র। পরে তাঁকে আর টাকা পাঠানো হয়নি। ওইসময় মধুসূদন পাওনা টাকার জন্যে চিঠি লিখলেও উত্তর পেতেন না। ফলে তিনি সীমাহীন আর্থিক অনটনে পড়েন। অর্থ সাশ্রয়ের জন্যে ১৮৬৩ সালের মাঝামাঝিতে কবি লন্ডন থেকে প্রথমে প্যারিস এবং পরে ভার্সাইতে যান। এসময় দেনার দায়ে তাঁর ফ্রান্সের জেলে যাওয়ার শঙ্কা তৈরি হয়েছিল। তখন পর্যন্ত মধুসূদন বিদ্যাসাগরকে কোনো চিঠি লিখেননি। অভাব যখন তীব্রতর হলো এবং আর কোনো উপায় অবশিষ্ট রইল না, তখনই তীব্র আকুতি ও নিজের দুর্দশা জানিয়ে কবি বিদ্যাসাগরকে পত্র লিখলেন। চিঠি পেয়ে ওই অনটনের দিনে আর্থিক ও মানসিকভাবে তাঁর পাশে দাঁড়ান 'দয়ার সাগর' বিদ্যাসাগর।



 



১৮৬৪ থেকে ১৮৬৬ সাল পর্যন্ত মধুসূদন বিদ্যাসাগরকে ২১টি চিঠি লিখেন। যার মধ্যে ফ্রান্স থেকে ১৩টি এবং লন্ডন থেকে ৭টি চিঠি লিখেন। কবি বিদ্যাসাগরকে প্রথম পত্রটি লিখেন ১৮৬৪ সালের ২ জুন ভার্সাই থেকে। একই মাসের ৯ জুন তিনি বিদ্যাসাগরের উদ্দেশ্যে দ্বিতীয় পত্র লিখেন। এসব পত্রে মধুসূদনের দুরাবস্থার কথা ফুটে উঠেছে। ১৮৬৪ সালের ২ সেপ্টেম্বর মধুসূদন লিখেছেন, ''গত ২৮ জুলাই রোববার সকালে আমি আমার পড়ার ঘরে বসে আছি। এমন সময় আমার স্ত্রী অশ্রুভরা চোখে এসে বললেন, 'ছেলেরা মেলায় যেতে চায়, কিন্তু আমার হাতে আছে মাত্র তিনটি ফ্রাঙ্ক।'... আমি তাকে বলেছিলাম, আজ ডাক আসার দিন। আমি কোনও না কোনও সংবাদ আজ পাবই। আমি যে লোকের কাছে আমার প্রার্থনা জানিয়ে চিঠি লিখেছি, প্রাচীন ভারতীয় ঋষির প্রজ্ঞা ও মণীষা তাঁর কর্মোদ্যমে তিনি একজন ইংরেজের মত প্রবল, তাঁর হৃদয় বাঙালি মায়ের মত কোমল। আমি ঠিকই বলেছিলাম। একঘণ্টা পরই তোমার চিঠির সঙ্গে তোমার পাঠানো ১৫০০ ফ্রাঙ্ক পেলাম। তোমায় কী বলে ধন্যবাদ জানাবো বন্ধু, তুমি শুধু যশস্বী নও, তুমি মহৎ...।'' একই বছরের ১৮ ডিসেম্বর মধুসূদন বিদ্যাসাগরকে লিখেছেন, 'তোমার চিঠি ও ২৪৯০ ফ্রাঙ্কের একটি ড্রাফট পেয়েছি, ঠিক সময়েই পেয়েছি। আমাদের হাতে তখন একটি ফ্রাঙ্কও ছিলো না, আমরা ব্যাকুল হয়ে তোমার পত্রের জন্যই অপেক্ষা করছিলাম।' মধুসূদন দত্তের এমন অসহায়-অভাবগ্রস্ত দিনযাপন শুনে বিদ্যাসাগর বিষণ্ন হতেন। অনেকসময় মধুসূদনের চিঠি পড়ে তিনি কাঁদতেনও। বিদ্যাসাগরের অন্যতম জীবনীকার বিহারিলাল সরকার জানিয়েছেন, 'তিনি (মধুসূদন) নিরুপায় হইয়া, সকরুণ বাক্-বিন্যাসে পত্র লিখিয়া, বিদ্যাসাগরের নিকট সাহায্য প্রার্থনা করিয়াছিলেন। বিদ্যাসাগর মহাশয়ও, সত্য সত্যই মাইকেলের সেই পত্র পাঠ করিতে করিতে রুদ্ধকণ্ঠে অশ্রু বিসর্জ্জন করিয়াছিলেন।'



 



অনেক সময় কবি টাকা চেয়ে চিঠি লিখলেও বিদ্যাসাগরের হাতে টাকা থাকতো না। তিনি তখন ঋণ করে হলেও মধুসূদনকে টাকা পাঠাতেন। বিদ্যাসাগরের এমন অবস্থার বর্ণনা করেছেন বিহারিলাল সরকার। তিনি ১৮৯৫ সালে প্রকাশিত 'বিদ্যাসাগর' গ্রন্থে লিখেছেন, 'হস্তে এক কপর্দ্দকও ছিল না, কিন্তু ছয় সহস্র টাকা ঋণ করিয়া তিনি তদ্দ-েই মাইকেলকে পাঠাইয়া দেন। টাকার প্রয়োজন হইলে তিনি প্রায়ই বন্ধু-বান্ধবদিগের নিকট হইতে কোম্পানী কাগজ লইয়া বন্ধক দিতেন; পরে সময় মত টাকা সংগ্রহ করিয়া, সুদে-আসলে সব পরিশোধ করিতেন।' মধুসূদনও জানতেন তার কারণে বিদ্যাসাগর বিপদে আছেন। তিনি চিঠিতে লিখেছেন, 'আমি বিলক্ষণ বুঝিতে পারিতেছি যে এ হতভাগার বিষয়ে হস্তনিক্ষেপ করিয়া, আপনি এক বিষম বিপদজালে পড়িয়াছেন! কিন্তু কি করি! আমার আর একটা বন্ধু নাই যে তাহার শরণ লইয়া আপনাকে মুক্ত করি।'



 



পরদেশে অভাব-অনটনে দিন কাটালেও কলকাতায় গল্প-গুজব ছিল মধুসূদন বিলাসিতায় ডুবছেন। মধুসূদনের 'তথাকথিত বন্ধুরা' তার নামে এসব কুৎসা রটাতেন। এ খবর কবির কানে পেঁৗছায়। তিনি আশঙ্কা করেন যদি বিদ্যাসাগর এই কুৎসায় কান দেন, তাহলে তার সহযোগিতাপ্রাপ্তি বন্ধ হতে পারে। তাই বিদ্যাসাগরকে চিঠি লিখে অপপ্রচারে কান না দিতে অনুরোধ করেছিলেন। মধুসূদন লিখেছেন, 'কুৎসাবাদীদের অপপ্রচারে বিশ্বাস করবেন না, আমার উপর আস্থা রাখবেন।' অবশ্য বিদ্যাসাগরও পরচর্চাকারীদের কথায় কখনো কান দেননি। তাঁর কাছে মধুসূদনের প্রতিভাকে বরাবরই বৃহৎ মনে হয়েছিল। কিন্তু মধুসূদনকে যতই আর্থিক সহযোগিতা পাঠানো হচ্ছিল তাঁর অভাব কাটছিল না। বিদ্যাসাগরকে পাঠানো তাঁর অধিকাংশ চিঠিই অর্থসংক্রান্ত ছিল। ১৮৬৪ সালে বিদ্যাসাগর শ্রীশচন্দ্র বিদ্যারত্ন থেকে ৫ হাজার ও অনুকূলচন্দ্র মুখোপাধ্যায়ের কাছ থেকে ৩ হাজার টাকা ধার করে মধুসূদনকে পাঠান। কিন্তু কবির আরো অর্থের প্রয়োজন ছিল। ১৮৬৫ সালের ১৮ মে কবি বিদ্যাসাগরকে তাঁর সম্পত্তির পাওয়ার অব অ্যাটর্নি প্রদান করেন। বিদ্যাসাগর সেই সম্পত্তি বন্ধক রেখে অনুকূলচন্দ্র মুখোপাধ্যায় থেকে আরো ১২ হাজার টাকা নিয়ে মধুসূদনকে পাঠান। তিনি অনুকূলচন্দ্রকে বলেছিলেন, মধুসূদন দেশে ফিরলে টাকা পরিশোধ করে দিবেন। কিন্তু কবি ১৮৬৬ সালে দেশে এলেও ধারের টাকা ফেরত দেননি। চিন্তিত বিদ্যাসাগর লিখেছেন, '...উভয় স্থলেই আমি অঙ্গীকার ভ্রষ্ট হইয়াছি। সত্ত্বর টাকা না পাইলে বিলক্ষণ অপদস্থ ও অপমানগ্রস্ত হইব তার কোন সংশয় নাই। এক্ষণে কিরূপে আমার রক্ষা হইবেক, এই দুর্ভাবনায় সর্বক্ষণ আমার অন্তঃকরণকে আকুল করিতেছে এবং ক্রমে ক্রমে এত প্রবল হইতেছে যে রাত্রিতে নিদ্রা হয় না। অতএব আপনার নিকট বিনয় বাক্যে প্রার্থনা এই, সবিশেষ যত্ন ও মনোযোগ করিয়া ত্বরায় আমায় পরিত্রাণ করেন।' অবশ্য গবেষক ব্রজেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, মধুসূদন তাঁর সম্পত্তি বিক্রি করে ঋণ শোধপূর্বক শেষ পর্যন্ত বিদ্যাসাগরকে দায়মুক্ত করেছিলেন।



 



১৮৬৬ সালের ১৭ নভেম্বর মধুসূদন ব্যারিস্টারি পাস করে ১৮৬৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে কলকাতায় ফিরে আসেন। তাঁর ইচ্ছে ব্যারিস্টারি করা। তিনি এজন্যে ব্যবস্থা করে দিতে বিদ্যাসাগরকে অনুরোধ করেন। বিদ্যাসাগরের সহযোগিতায় মধুসূদন কলকাতায় ব্যারিস্টারি শুরু করলেও অমিতব্যয়িতার কারণে তাঁর কাছে অর্থ থাকত না। তিনি বন্ধুদের আপ্যায়নে প্রচুর খরচ করতেন। আয়ের কিছু অংশ ইউরোপে স্ত্রী-সন্তানদের পাঠাতেন। অনেকসময় তিনি আদালতেও যেতে চাইতেন না। ফলে অভাব পিছু ছাড়তো না। তিনি এ সময়ও বিদ্যাসাগরের কাছে টাকা চাইতেন। 'বংশ-পরিচয়' গ্রন্থের ১৩তম খ-ে জ্ঞানেন্দ্রনাথ কুমার লিখেছেন, 'কবিবর মাইকেল অনেক সময়ে তাঁহার নিকট হইতে টাকা কাড়িয়া পর্য্যন্ত লইয়া যাইতেন।' বিহারলাল সরকার জানিয়েছেন, ''হস্তে এক কপর্দ্দক নাই, মাইকেল, বিদ্যাসাগর মহাশয়ের নিকট গিয়া উপস্থিত হইলেন; দেখিলেন, থাকে থাকে টাকা সাজান; দু-দশটা লইবার জন্য হস্ত প্রসারণ করিলেন; ''নিস্ নে, নিস্ নে'' করিতে করিতে, মুঠো ভরিয়া তুলিয়া লইলেন।'' এ লেখক জানিয়েছেন বিদ্যাসাগর মধুসূদনের এমন কা-েও বিরক্ত হতেন না। অর্থকষ্টে ভুগে ১৮৬৯ সালে মধুসূদনের স্ত্রী-সন্তান কলকাতায় ফিরে আসেন। 'বিদ্যাসাগর ও বাঙালী সমাজ' গ্রন্থে বিনয় ঘোষ জানিয়েছেন, বিদ্যাসাগর ছোট আদালতে জজ পদে মধুসূদনকে চাকুরি দেয়ার চেষ্টা করেছিলেন। ওইসময় এ পদে চাকুরি দিতে তিনি ছোটলাটকে অনুরোধ জানিয়ে একটি পত্র লিখেন। ১৮৭০ সালে মধুসূদন ব্যারিস্টারি ছেড়ে হাইকোর্টে প্রিভিকাউন্সিল আপীলের অনুবাদ বিভাগে পরীক্ষকের পদে যোগ দেন। সেখানে তিনি এক-দেড় হাজার টাকা বেতন পেলেও আর্থিক দুর্দশা কাটিয়ে উঠতে পারেননি।



 



বিদ্যাসাগরের মতো সুহৃদ মাইকেল মধুসূদন দত্তের আর ছিল না। তাঁর জীবনীকার সত্যই লিখেছেন, 'বিদ্যাসাগর মহাশয় যদি সাহায্য না করিতেন, তাহা হইলে, মাইকেলকে নিশ্চিতই অনাহারে মরিতে হইত।' এ কথা কবি নিজেও ভালো করে জানতেন। তাই তিনি নানাভাবে বিদ্যাসাগরের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। কোনো পত্রে বিদ্যাসাগরকে তিনি 'করুণার সাগর', কোনো পত্রে 'সত্যিকার বন্ধু ও সত্যনিষ্ঠ মানুষ' হিসেবে উল্লেখ করেছেন। মধুসূদন এক পত্রে বিদ্যাসাগরকে লিখেছেন, 'আপনি জানেন, পৃথিবীতে এমন কোনো কর্ম্ম নাই, যাহা আমি আপনার জন্য করিতে কুণ্ঠিত হইব।' কবি তাঁকে 'বীরাঙ্গনা কাব্য' উৎসর্গ করেন। উৎসর্গপত্রে তিনি লিখেছেন, 'বঙ্গকূলচূড় শ্রীযুক্ত ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর মহোদয়ের চিরস্মরণীয় নাম এই অভিনব কাব্যশিরে শিরোমণিরূপে স্থাপিত করিয়া, কাব্যকার ইহা উক্ত মহানুভবের নিকট যথোচিত সম্মানের সহিত উৎসর্গ করিল।' মধুসূদন বিদ্যাসাগরের প্রতি কৃতজ্ঞতাজ্ঞাপক কবিতাও লিখেছিলেন। ১৮৬৬ সালে প্রকাশিত 'চতুর্দ্দশপদী কবিতা' গ্রন্থের একটি কবিতায় কবি লিখেছেন : 'বিদ্যার সাগর তুমি বিখ্যাত ভারতে।/করুণার সিন্ধু তুমি, সেই জানে মনে;/ দীন যে, দীনের বন্ধু! উজ্জ্বল জগতে/হেমাদ্রির হেম-কান্তি অমস্নান কিরণে।' একবার একই সময়ে বিদ্যাসাগর ও মধুসূদন অসুস্থ হয়ে পড়েন। বিদ্যাসাগরকে দেখতে যেতে পারেননি বলে কবি তাঁর উদ্দেশ্যে ১৬ লাইনের একটি কবিতা লিখে পাঠান। সেখানে তিনি লিখেন, 'শুনেছি লোকের মুখে পীড়িত আপনি/হে ঈশ্বরচন্দ্র! বঙ্গে বিধাতার বরে/বিদ্যার সাগর তুমি, তব সম মণি,/মলিনতা কেন কহ ঢাকে তার করে?'



 



এ কথা সত্য যে, মাইকেল মধুসূদন দত্তের দোষ-ত্রুটি কম ছিল না। তবু বিদ্যাসাগর সবকিছু দূরে সরিয়ে রেখে তাঁর লেখক-সত্তাকে সম্মান করতেন। সে কারণে তিনি চাইতেন না মধুসূদনের মতো প্রতিভা অকালে ঝরে পড়ুক। তিনি মধুসূদনের বিক্ষিপ্ত-বিপর্যস্ত জীবনে ছায়ার মত ছিলেন। কিন্তু শেষ রক্ষা করতে পারেননি। এর কারণ হিসেবে গবেষকরা মধুসূদনের 'অমিতব্যয়িতা', 'বিলাসিতা', 'খামখেয়ালিপনা', 'উপার্জনে অমনোযোগিতা'কে দায়ী করেন। সর্বশেষ মধুসূদনের দেনাদার ও অর্থের পরিমাণ জানিয়ে কৈলাসচন্দ্র বসু বিদ্যাসাগরকে চিঠি লিখেন। চিঠির সূত্র অনুযায়ী ওইসময় মধুসূদনের কাছ থেকে ২৩ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান ৪২ হাজার ৩শ' ১০ টাকা পেতেন। বিদ্যাসাগরের পক্ষে এ ঋণ শোধ করা সম্ভব ছিল না। ১৮৭২ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর লেখা চিঠিতে বিদ্যাসাগর মধুসূদনকে লিখেছেন, 'তোমার আর আশা-ভরসা নাই। আমি কি আর কেহই তোমাকে রক্ষা করিতে পারিবে না। তালি দিয়া আর চলিবে না।'



 



মৃত্যুর ২/১ বছর পূর্ব থেকে বিদ্যাসাগরের সাথে মধুসূদনের সুসম্পর্ক ছিল না। বিহারিলাল লিখেছেন, 'মাইকেল শেষে বিদ্যাসাগর মহাশয়ের সহিত আদৌ সদ্ব্যবহার করেন নাই। একবার বিদ্যাসাগর মহাশয় মাইকেলকে বাবু সম্বোধন করিয়া পত্র লিখিয়াছিলেন। মাইকেল সে পত্র প্রত্যাহার করেন। অতঃপর বিদ্যাসাগর মহাশয় বিলাত-ফেরত বাঙ্গালীকে বড় প্রীতির চক্ষে দেখিতেন না।' বিদ্যাসাগরের জীবনীকার চ-ীচরণ বন্দ্যোপাধ্যায় লিখেছেন, 'আশ্চর্য্যের বিষয় এই যে যিনি এত অসুবিধা ভোগ করিয়া এরূপ বিপুল ঋণভার গ্রহণ করিয়া তাঁহাকে দেশে আনাইয়াছিলেন, স্বদেশে পদার্পণ করা অবধি জীবনের শেষ দিন পর্য্যন্ত এক দিনের জন্য তিনি বিদ্যাসাগরহেন সুহৃদের পরামর্শে কিংবা উপদেশে চলিতে প্রয়াস পান নাই।' উল্টো তাঁর ব্যবহারে বিদ্যাসাগরের চোখ অশ্রুসজল হয়েছিলো।



 



মাইকেল মধুসূদন দত্ত ১৮৭৩ সালের ২৯ জুন দুপুর ২টায় আলিপুরের দাতব্য হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন। চ-ীচরণ বন্দ্যোপাধ্যায় সরাসরি বিদ্যাসাগরের সানি্নধ্য লাভ করেছিলেন। মধুসূদনের মৃত্যুতে বিদ্যাসাগরের প্রতিক্রিয়া কেমন হয়েছিল তার প্রত্যক্ষ বর্ণনা চ-ীচরণ দিয়েছেন। তিনি লিখেছেন, মধুসূদনের স্মৃতিচিহ্ন রক্ষার্থে অর্থ সহযোগিতার জন্যে তারা বিদ্যাসাগরের কাছে গিয়েছিলেন। ''তিনি বহু আলাপ ও বিলাপের পর অশ্রুপূর্ণ নয়নে বলিয়াছিলেন, 'দেখ প্রাণপণ চেষ্টা করিয়া যাহার জান্ রাখিতে পারি নাই, তাহার হাড় রাখিবার জন্য আমি ব্যস্ত নই...।' এই কথাগুলি বলিয়া শেষে যে বিলাপ করিয়াছিলেন, অন্তরের যে গভীর পরিতাপ ও আক্ষেপের পরিচয় পাড়িয়াছিলেন, তাহা শুনিয়া কোন হৃদয়বান ব্যক্তিই অশ্রু সংবরণ করিতে পারিতেন না।''



 



একথা সত্য, মধুসূদনের মধ্যে বেহিসাবী ও বেখেয়ালিপনা স্বভাব প্রবলভাবে ছিল এবং তার নির্মম মূল্যও তাঁকে শোধ করতে হয়েছে। বিদ্যাসাগর তাঁকে শেষরক্ষা করতে পারেননি সত্য, কিন্তু এও সত্য তিনি না থাকলে অনেক আগেই মধুসূদন নিঃশেষ হয়ে যেতেন। চিরাচরিত বিদ্যাসাগর মধুসূদনের পাশে থেকে বাংলাসাহিত্যকে ঋণী করেছেন। কেননা, সকল ভুল-ভ্রান্তি স্বীকার করেও শেষ পর্যন্ত মধুসূদন দত্ত বাংলাসাহিত্যের অন্যতম শ্রেষ্ঠ কবি। আর একজন শক্তিশালী কবি পাওয়া যে কোনো দেশ, ভাষা ও সাহিত্যের জন্যে বৃহৎপ্রাপ্তির বিষয়।



 



 



তথ্যসূত্র :



 



বিদ্যাসাগর/বিহারিলাল সরকার। প্রকাশ ১৮৯৫।



বিদ্যাসাগর/চ-ীচরণ বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রকাশ ১৩০২ বঙ্গাব্দ।



বিদ্যাসাগর ও বাঙালী সমাজ (৩য় খ-)/বিনয় ঘোষ। প্রথম প্রকাশ ১৯৫৯।



বংশ-পরিচয় (১৩তম খ-)/জ্ঞানেন্দ্রনাথ কুমার। প্রকাশকাল বৈশাখ, ১৩৪১।



মাইকেল মধুসূদন দত্তের জীবন-চরিত/যোগীন্দ্রনাথ বসু। প্রকাশ ১৩০১ বঙ্গাব্দ।



একজন বিপন্ন মহাকবি ও তাঁর বন্ধু/আবু হেনা মোস্তফা কামাল।



বিদ্যাসাগরচরিত/আবীর কর। দ্য ওয়াল। পূজা ১৪২৫ সংখ্যা।



মধুসূদনের চিঠিগুলো ইংরেজি থেকে অনুদৃত।



 



 



মুহাম্মদ ফরিদ হাসান। প্রকাশিত গ্রন্থ : সাহিত্যের অনুষঙ্গ ও অন্যান্য প্রবন্ধ (২০১৮)। সম্পাদক : গল্পের কাগজ 'বাঁক'। মোবাইল : ০১৮৭৫৬২৬৯৮৮।



 



 



 



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৮৮৪৩৫০
পুরোন সংখ্যা