চাঁদপুর, বুধবার ২৯ মে ২০১৯, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ২৩ রমজান ১৪৪০
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫০-সূরা কাফ্

৪৫ আয়াত, ৩ রুকু, মক্কী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।

১৪। ‘তোমরা তোমাদের শাস্তি আস্বাদন কর, তোমরা এই শাস্তিই ত্বরান্বিত করিতে চাহিয়াছিলে।’

১৫। সেদিন নিশ্চয় মুত্তাকীরা থাকিবে প্রস্রবণ বিশিষ্ট জান্নাতে,


assets/data_files/web

একটা হাত পরিষ্কার করতে অন্য একটা হাতের সাহায্য দরকার।


-সিনেকা।


 


 


ব্যভিচারী হইতে ঈমান দূরে পলায়ন করে, কিন্তু সে ব্যভিচার ত্যাগ করিলেই ঈমান আবার তাহার নিকট প্রত্যাবর্তন করিবে।


ফটো গ্যালারি
আউটসোর্সিং
অনলাইনে ছবি বিক্রি
২৯ মে, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


অনেকের জন্যে ফটোগ্রাফি একটি নেশা, আবার অনেকের জন্যে পেশা। নেশা বা পেশা যা-ই হোক না কেনো, চাইলে ভালো মানের ছবি অনলাইনে বিক্রি করে বাড়তি আয় করা সম্ভব। ডিএসএলআর ক্যামেরাই হোক আর ভালো মোবাইল ফোন ক্যামেরাই হোক, নির্দিষ্ট ওয়েবসাইট বা ক্রেতার চাহিদা পূরণে সক্ষম যেকোনো ছবিই বিক্রি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।



ছবির অনলাইন বাজার



অনলাইনে ছবি বিক্রি করার জন্যে অনেক মার্কেটপ্লেস বা ওয়েবসাইট আছে। বিভিন্ন ওয়েবসাইটে কাজ করার শর্তাবলি ভিন্ন ভিন্ন হয়। একেকটি ওয়েবসাইটে লাখ লাখ ছবি বিভাগ অনুযায়ী সাজানো থাকে ক্রেতাদের প্রদর্শনের জন্য। আর অনলাইনে ছবি ক্রেতার সংখ্যাও কম নয়। শাটার স্টক, আই-স্টক ফটো, অ্যালামাই, ফটোলিয়া (অ্যাডোবি স্টক), ক্রেস্টক, বিগস্টকফটো, গেটি ইমেজেস, ড্রিমসটাইমসহ আরও অনেক মার্কেটপ্লেসে ছবি বিক্রি করা যায়।



নিবন্ধন ও মান যাচাই



প্রতিটি ওয়েবসাইটে ছবি বিক্রি করার আগে নির্দিষ্ট ফরম পূরণ করে নিবন্ধন করতে হয়। কাজের মান যাচাইয়ের জন্যে ওয়েবসাইটে নির্দিষ্টসংখ্যক ছবি জমা দিতে হয় অথবা পোর্টফোলিও তৈরি করতে হয়। মান যাচাইয়ের পর উত্তীর্ণ ছবিগুলো ওয়েবসাইটে প্রদর্শনের জন্যে অনুমতি দেয়া হয়।



কারা কেনেন, কেনো কেনেন



বিভিন্ন করপোরেট প্রতিষ্ঠান, বিজ্ঞাপনী সংস্থা, গণমাধ্যম, বস্নগ ও অনলাইন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানগুলো মূলত তাদের কাজে ব্যবহারের জন্যে ছবি কিনে থাকে। সব ধরনের ছবিই বিক্রি হতে পারে। ছবির বিষয়বস্তু হতে পারে প্রকৃতি, ভ্রমণ, খাবারদাবার, সাজসজ্জা, শিক্ষা, চিকিৎসা, আন্দোলন, যানবাহন, যন্ত্রপাতি, সামাজিক ও পারিবারিক সম্পর্ক ইত্যাদি। প্রাতিষ্ঠানিক কাজে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রয়োজন পড়ে কপিরাইটমুক্ত ছবি। গুগল ইমেজ সার্চ থেকে সরাসরি ছবি নিলে স্বত্ব নিয়ে ঝামেলা তৈরি হওয়ার আশঙ্কা থাকে। তাই তারা গুগল থেকে সরাসরি ছবি না নিয়ে অনলাইন বাজার থেকে কপিরাইটমুক্ত ছবি কিনে থাকেন।



কত সম্মানী পাওয়া যায়



বিভিন্ন ওয়েবসাইটে ছবি বিক্রি করে যে অর্থ পাওয়া যায়, তার একটি অংশ ছবির মালিককে সম্মানী হিসেবে দেয়া হয়। ওয়েবসাইটগুলো বিভিন্ন সাবস্ক্রিপশন প্যাকেজের মাধ্যমে ছবি বিক্রি করে থাকে। দৈনিক বা মাসিক ছবির সংখ্যার ওপর প্যাকেজের মূল্য নির্ধারিত হয়। বিভিন্ন মার্কেটপ্লেস বা ওয়েবসাইট ভেদে ছবি বিক্রির ২০ থেকে ৭০ শতাংশ পর্যন্ত ছবির মালিককে সম্মানী হিসেবে দেওয়া হয়। তবে একজন বিক্রেতা যদি একটি নির্দিষ্ট ছবি শুধু একটি নির্দিষ্ট ওয়েবসাইটে (এঙ্ক্লুসিভলি) বিক্রি করেন, তাহলে বেশি সম্মানী পেতে পারেন আর যদি একটি নির্দিষ্ট ছবি বিভিন্ন ওয়েবসাইটে (নন-এঙ্ক্লুসিভলি) বিক্রি করেন, তাহলে সম্মানীর পরিমাণ কমে যেতে পারে। সম্মানীর পরিমাণ কম হলেও ছবি বিক্রির পরিমাণ বেশি হলে কোনো নির্দিষ্ট মার্কেটপ্লেস থেকে বেশি আয় করা সম্ভব।



যা খেয়াল রাখা উচিত



কাজ শুরুর আগে নিচের বিষয়গুলো মাথায় রাখা ভালো।



১. নিবন্ধন করার আগে মার্কেটপ্লেসের শর্তাবলি ভালোভাবে জেনে নেওয়া



২. বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে স্থান পাওয়া ছবিগুলো দেখে ছবির মান ও ধরন সম্পর্কে ধারণা নেওয়া



৩. ছবির রেজল্যুশন ও উচ্চতা-প্রস্থের অনুপাত সম্পর্কে সচেতন থাকা



৪. ছবিতে আলোর পরিমাণ যথাযথ রাখা



৫. ছবিটি কেনার পর ক্রেতার যেন খুব বেশি সম্পাদনার প্রয়োজন না পড়ে, সেদিকে নজর রাখা



৬. বাংলাদেশ থেকে টাকা তোলা যাবে কি না



৭. কত শতাংশ সম্মানী হিসেবে পাওয়া যাবে



৮. কত দিন পরপর টাকা তোলা যাবে



৯. সর্বনিম্ন কত টাকা তোলা যাবে



-মোঃ মাসুদ



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৫১৬৮৮১
পুরোন সংখ্যা