চাঁদপুর, শনিবার ২৩ মে ২০২০, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ২৯ রমজান ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • চাঁদপুরে আরো ১২ জনের করোনা শনাক্ত, মোট আক্রান্ত ১৫৯
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৬৯-সূরা হাক্কা :


৫২ আয়াত, ২ রুকু, মক্কী


১৬। এবং আকাশ বিদীর্ণ হইয়া যাইবে আর সেই দিন উহা বিশ্লিষ্ট হইয়া পরিবে।


১৭। ফিরিশ্তাগণ আকাশের প্রান্তদেশে থাকিবে এবং সেই দিন আটজন ফিরিশ্তা তোমার প্রতিপালকের আরশকে ধারণ করিবে তাহাদের ঊধর্ে্ব।


 


বেদনা হচ্ছে পাপের শাস্তি।


-বুদ্ধদেব।


 


 


স্বভাবে নম্রতা অর্জন কর।


 


সৌদি আরবে বাংলাদেশীর স্ট্রোক করে মৃত্যু
লাশ ফিরে পেতে সরকারের কাছে অবুঝ শিশু সন্তান ও বৃদ্ধা মা বাবার আকুতি
২৩ মে, ২০২০ ১৬:৪৬:৪০
প্রিন্টঅ-অ+

মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সৌদিআরব দাম্মাম দীর্ঘ দিনের প্রবাসী টেলু পাটওয়ারী নামে এক বাংলাদেশী শ্রমিকের স্ট্রোক করে মৃত্যু হয়েছে ।


 


সৌদিআরব নিহতের প্রতিবেশী মো. মাহবুব মোল্লা সোহাগ জানান. আমাদের পার্শ্ববর্তী দাম্মাম শহরের খোবারে বসবাস করতেন তিনি । অত্যন্ত সচ্চ ও ভালো একজন মানুষ ছিলেন টেলু পাটওয়ারী। তিনি গত ২২মে  শুক্রবার ভোর রাতে হঠাৎ স্ট্রোক করলে তাকে দাম্মাম  মারকাজি সরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।  হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক টেলু পাটওয়ারীর মৃত্যুবরণ করেছে বলে জানান।  । তার পারিবারিক আর্থিক অবস্থা ভালো নয়। তাই আমি বাংলাদেশ সরকার ও সৌদি আরবের দুতাবাসকে অনুরোধ করবো মরহুম টেলু পাটওয়ারী লাশকে দেশে ফিরে নিতে সর্বোত্ত সহযোগিতা করার জন্য ।


পারিবারিক সূত্রে জানা যায়,  চাঁদপুর জেলার  ফরিদগঞ্জ উপজেলা সুবিদপুর পূর্ব ইউনিয়নের দক্ষিণ  সুবিদপুর ৬নং ওয়ার্ডের রফিকুল্যা পাটওয়ারী ছেলে মরহুম টেলু পাটওয়ারী (৪৬)।


১৯৯৯ সাল থেকে তিনি প্রবাসে রয়েছেন। দীর্ঘ দিনের প্রবাসী থাকলেও  আর্থিক ভাবে পরিবারকে সচ্চতা করতে পারেননি ।  মরহুমের সাংসারিক জীবনে অসুস্থ বৃদ্ধা বাবা রফিকুল্যা পাটওয়ারী (৮০) ও বৃদ্ধা মা (৬৫) এবং ১৩ বছর ১০ বছর ও ৭ বছরের অবুঝের তিনটি কন্যা সন্তান ও স্ত্রী রেখে না ফেরার দেশে চলে গেছেন ।


মরহুমের স্ত্রী জানান, আমার বৃদ্ধ শ্বশুর ও শ্বাশুরী ও অবুঝ তিনটি মেয়ে নিয়ে আমি এখন কি করবো। তার পাঠানো টাকার উপর আমার পরিবার নির্ভর ছিলো।  আমি এখন অবুঝ ৩টি মেয়ে ও বৃদ্ধা মা ও বাবাকে নিয়ে কি করে বেঁচে থাকবো সে ছিলো আমাদের সবকিছু । আমি বাংলাদেশ সরকারের কাছে অনুরোধ করবো আমার অবুঝ সন্তান ও বৃদ্ধা মা ও বাবার জন্য আমার স্বামী টেলু পাটওয়ারীর লাশ যেনো আমাদের কাছে পৌঁছয়ে দেয়। 


মরহুমের গ্রামের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় টেলু পাটওয়ারীর মৃত্যুর সংবাদে শোকের ছাঁয়া যেনো পরিবেশ  ভিরাজ। সবকিছুই যেনো স্থব্ধতা বিরাজ করছে। ৩টি কন্যা শিশু সন্তান ও বৃদ্ধা মা বাবার আহাযারিতে আকাশ বাতাস করুন শব্দে ভারী হয়ে আচ্ছে। এবং স্ত্রীর বোবা কান্না ২ চোখে যেনো হতাশার ছাঁয়া গ্রাস করছে  ।


আজকের পাঠকসংখ্যা
৫৬৮৫৫৮৪
পুরোন সংখ্যা