jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৭১-সূরা নূহ্


২৮ আয়াত, ২ রুকু, মক্কী


২৬। নূহ আরও বলিয়াছিল, 'হে আমার প্রতিপালক! পৃথিবীতে কাফিরগণের মধ্য হইতে কোন গৃহবাসীকে অব্যাহতি দিও না।


২৭। তুমি উহাদিগকে অব্যাহতি দিলে উহারা তোমার বান্দাদিগকে বিভ্রান্ত করিবে এবং জন্ম দিতে থাকিবে কেবল দুষ্কৃতকারী ও অধিকার।


 


 


 


assets/data_files/web

মৌনতা নিরপেক্ষতার উত্তম পন্থা।


-শ্যামলচন্দ্র দত্ত।


 


 


 


 


যার দ্বারা মানবতা উপকৃত হয়, তিনিই মানুষের মধ্যে শ্রেষ্ঠ।


 


 


ফটো গ্যালারি
সাবেক সাংসদ এম এ মতিনের জানাজায় সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখতে হবে
কামরুজ্জামান টুটুল
২৬ মে, ২০২০ ১৪:২৯:১১
প্রিন্টঅ-অ+


চাঁদপুর ৫ (হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তি) নির্বাচনি এলাকার সাংসদ এম এ মতিনের জানাজায় অংশ গ্রহনকারীগনকে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে জানায়া অংশ নিতে হবে। করোনা ভাইরাসের সংক্রামন রোধে পুলিশের পক্ষ এমন সিদ্ধান্ত জানানো হয়েছে। প্রতি  জানাজায় সর্বোচ্চ ৫০ জন অংশগ্রহণ করতে পারবে। দুই কাতারে ২০/২৫ জন করে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে দাঁড়াতে হবে। আর জানাজার নামাজ হবে হাজীগঞ্জ পৌরসভার টোরাগড় গ্রামের মুন্সী বাড়ীতে। পরে সেখানে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হবে বর্ষিয়ান এই রাজনীতিবিদকে।



হাজীগঞ্জ থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আলমগীর হোসেন  চাঁদপুর কন্ঠকে জানান, করোনা সংক্রামন রোধে আমাদেরকে এমন সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে। জানাজার কাতান প্রতি ২০/২৫ জন দাঁড়াতে পারবে। সদ্য প্রয়াত এমএ মতিন দৌহিত্র ইয়াছির আরাফাত অনিক জানান দাদাকে রাজধানীর ৭ নম্বর সেক্টরে জামে মসজিদে জানাজা শেষে বাড়ির উদ্দেশ্যে নিয়ে আসা হবে। বাড়িতে আনার পরেই নির্দিষ্ট সময়ে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে।



অনিক আরো জানান, দাদাকে নিয়ে কিছুক্ষন আগে ঢাকা গাড়ি ছেড়েছে।

 বিএনপির কেন্দ্রীয় পার্টি অফিসের সম্মুখে ও শাহরাস্তি উপজেলায় জানাজা হওয়ার কথা ছিল। তা আর হচ্ছে না। প্রশাসনিকভাবে শুধু মাত্র বাড়ীতে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে সর্বোচ্চ ৫০ জন জানাজায় অংশ নিতে বলা হয়েছে।



এদিকে এম এ মতিনের জানাজায় জনসমাগম ঠেকাতে টোরাগড় এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।



এম এ মতিন ১৯৪৩ সালের ১৪ই মার্চ চাঁদপুর জেলার হাজীগঞ্জ পৌরসভার টোরাগড় গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত পরিবারের জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা বিশিষ্ট সমাজ সেবক ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব মরহুম আলহাজ্ব খান সাহেব জুনাব আলী মুন্সী তদানীন্তন পাকিস্তান আইন পরিষদের সমস্য ছিলেন। সেই সময় খান সাহেব খেতাবে ভূষিত হয়েছিলেন।



উল্লেখ্য মঙ্গলবার সকাল সোয়া ৯টায় এম এ মতিন বার্ধক্যজনিত কারনে ত্তরার একটি হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন।


আজকের পাঠকসংখ্যা
৮৫৫৪১০
পুরোন সংখ্যা