চাঁদপুর, বুধবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১ আশ্বিন ১৪২৭, ২৭ মহররম ১৪৪২
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • মতলব উত্তরের আমিরাবাদ এলাকায় মেঘনা-ধনাগোদা সেচ প্রকল্পের মুল বেড়িবাঁধে মেঘনার আকস্মিক ভাঙ্গন শুরু
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৭৬-সূরা দাহ্র বা ইন্সান


৩১ আয়াত, ২ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৬। এমন একটি প্রস্রবণ যাহা হইতে আল্লাহ্র বান্দাগণ পান করিবে, তাহারা এই প্রস্রবণকে যথা ইচ্ছা প্রবাহিত করিবে।


৭। তাহারা কর্তব্য পালন করে এবং সেই দিনের ভয় করে, যেই দিনের বিপত্তি হইবে ব্যাপক।


 


 


অশিক্ষিত সন্তানের চেয়ে সন্তান না থাকাই ভালো।


-জন হে উড।


 


 


 


কবরের উপর বসিও না এবং উহার দিকে মুখ করিয়া নামাজ পড়িও না।


 


 


ফটো গ্যালারি
চাঁদপুরে দক্ষ মানবসম্পদ তৈরিতে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং
১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


বিশ্বায়নের এই যুগে ইন্ডাস্ট্রির সংখ্যা ক্রমশই বাড়ছে। আর এ কারণে নিশ্চিত কর্মসংস্থানের একমাত্র এবং পরিক্ষিত মাধ্যম হচ্ছে ইঞ্জিনিয়ারিং শিক্ষা। বিশ্বে জেনারেল শিক্ষার চেয়ে কারিগরি শিক্ষা বেশ জনপ্রিয় এবং মর্যাদাপূর্ণ।



বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের অধীনে সেমিস্টার পদ্ধতিতে ৪ বছর মেয়াদী ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে পড়াশোনা প্রচলিত শিক্ষা ব্যবস্থার পাশাপাশি বর্তমান সময়ের সবচেয়ে সম্ভাবনাময় ক্যারিয়ার হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। কেন না এ কোর্স সম্পন্ন করে সরকারি চাকরিতে ২য় শ্রেণির গেজেটেড কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করা যায়।



সরকারি-বেসরকারি চাকরির পাশাপাশি বৈদেশিক কর্মসংস্থানেরও রয়েছে যথেষ্ট সুযোগ। আর কেউ উচ্চতর ডিগ্রি নিতে চাইলে সে সুযোগতো রয়েছেই।



ডিপ্লোমা পাস করার পর B.Sc ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার সুযোগ ছাড়াও ২ বছরের A.M.I.Eপরীক্ষার মাধ্যমে B.Sc ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার সুযোগ।



ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং পাস করার পর মর্যাদাপূর্ণ চাকরি অথবা পছন্দমত ব্যবসা গ্রহণের সুযোগ রয়েছে। ডিপ্লোমা কোর্সের সার্টিফিকেট সারা বিশ্বে স্বীকৃত। সেশনজট মুক্ত শিক্ষা ব্যবস্থা। ডিপার্টমেন্ট অব কম্পিউটার টেকনোলজি :



তথ্য প্রযুক্তি বর্তমান বিশ্বকে গ্লোবাল ভিলেজে পরিণত করেছে। আধুনিক এই যোগাযোগ ব্যবস্থায় আমাদের জীবনযাপনের সঙ্গে সঙ্গে পাল্টে যাচ্ছে রাজনৈতিক, সামাজিক ও অর্থনৈতিক প্রেক্ষাপট। এই পরিবর্তনশীল সময়ের সাথে এগিয়ে যাবার প্রত্যয় নিয়ে আসে কম্পিউটার প্রযুক্তি।



তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর বিশ্বে নিজেকে আত্মনির্ভরশীল ব্যক্তি হিসেবে গড়ে তুলতে হলে কম্পিউটার টেকনোলজি পড়ার বিকল্প কিছু হতে পারে না। একমাত্র কম্পিউটার টেকনোলজিই পারে বহুমুখি কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দিতে। অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার ক্ষেত্রে কম্পিউটার টেকনোলজি অপরিহার্য।



২০১১ সালে প্রতিটি কোর্সে কম্পিউটার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। সমস্ত সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান সমূহে ই-গভর্নেস চালু করতে যাচ্ছে, সেহেতু অনুমান করা যাচ্ছে যে, কম্পিউটার টেকনোলজির কর্মসংস্থানের ব্যাপ্তি কত বিশাল হতে পারে।



ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং টেকনোলজি আপানাকে সামিল করবে কম্পিউটার প্রযুক্তিবিদদের প্রথম সারিতে। এই ডিপ্লোমা ইন কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি হবে অবারিত কম্পিউটার সম্পর্কিত কর্মক্ষেত্রে প্রবেশের আপনার প্রথম চাবিকাঠি।



কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং এর কর্মক্ষেত্রসমূহ :



দেশে বিদেশে Computer Software Compaû গুলোতে Assistant Programmer পদে চাকরির সুযোগ আছে। সরকারি বেসরকারি প্রায় সব প্রতিষ্ঠানের Hardware Engineering and Assistant Networking Administrator

পদে প্রচুর চাকরির সম্ভাবনা আছে। বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি ব্যাংকগুলোতে Maintenance and IT Officer

পদে চাকরির সুযোগ আছে।



বিভিন্ন Print Media and Electronics Media, Graphics Designer, Hardware Engineering, Animation, Programmer and Network Engineering

পদে প্রচুর চাকরির সুযোগ আছে। বর্তমানে যে কোনো মোবাইল কোম্পানি ও ওয়ার্লেস কোম্পানিতে প্রচুর চাকরির সুযোগ রয়েছে। সরকারি ও বেসরকারি পলিটেকনিক গুলোতে জুনিয়ার ইনস্ট্রাক্টর পদে ও ভকেশনাল ইনস্টিটিউটগুলোতে ইনস্ট্রাক্টর পদে অসংখ্য চাকুরির সুযোগ রয়েছে।



কম্পিউটার এ উচ্চ শিক্ষার সুযোগ :



একজন Computer Diploma Engineer যে সকল বিষয়ে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করতে পারবেন, সেগুলো হলো :



Computer Science & Engineering



B.Sc (Hons) in Computer Science



B.Sc (Hons) in information Science



B.Sc(Hons) in information and Computer Technology



Software Engineering



B.Sc. (Hons) in Data Communication and Networking



Multimedia Technology



Bachelor of Computer Application



GKRb Computer Diploma Engineer উপরোক্ত বিষয়গুলোতে যেকোন দেশে সরাসরি ২য় বর্ষে ভর্তি হতে পারবে। এছাড়া অন্য যে কোনো ঝঁনলবপঃ এ ১ম বর্ষে ভর্তির সুযোগ রয়েছে। বাংলাদেশের বাহিরে ভারত, মালয়েশিয়া, ব্রিটেন, সাইপ্রাস, জার্মানি ইত্যাদি দেশেও এসব বিষয়ে পড়ার সুযোগ রয়েছে।



ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্সের মেয়াদ ও ভর্তির যোগ্যতা :



** ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং শিক্ষাক্রম ৪ বছর মেয়াদী ৮ সেমিস্টারে সম্পন্ন হয়, প্রতি সেমিস্টার ৬ মাস অন্তর বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের নিয়ন্ত্রণে পরিচালিত হয়। ডিপ্লোমা ইন কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স সাফল্যের সঙ্গে সম্পন্ন করার পর শিক্ষার্থীগণ বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক ডিপ্লোমা-ইন কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং-এর সনদপত্র লাভ করে ।



** ডিপ্লোমা ইন কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্সে ভর্তির নূ্যনতম যোগ্যতা এসএসসি (বিজ্ঞান/মানবিক/ব্যবসায় শিক্ষা/ভোকেশনাল) পরীক্ষায় কমপক্ষে জিপিএ ২.০০ পেয়ে পাস করতে হবে। এইচএসসি উত্তীর্ণ/অনুত্তীর্ণ বা পরীক্ষার্থীরাও ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবেন, যে কোনো বয়সের ছাত্র/ছাত্রীরা ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবেন ।



বিএসডিআইকে কেন বেছে নিবেন?



** পাসকৃত সকল শিক্ষার্থীদের ইন্টার্নশীপ ও চাকরির সহায়তা



** অভিজ্ঞ শিক্ষকম-লী



** ইংরেজি ভাষায় দক্ষতা অর্জনে ব্রিটিশ কাউন্সিলের সহায়তায় বিশেষ প্রোগ্রাম



** তুলনামূলকভাবে স্বল্পব্যয়ে মানসম্পন্ন শিক্ষা



** সুবিশাল খেলার মাঠসহ ক্যাম্পাস



** আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন ল্যাব ও লাইব্রেরী সুবিধা



** দরিদ্র ও মেধাবী ছাত্র/ছাত্রীদের জন্য স্কলারশিপ



** ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং পাসের পর ছাত্র-ছাত্রীদের ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে উচ্চ শিক্ষা লাভ করার সুযোগ।



বাংলাদেশ স্কিল ডেভেলপমেন্ট ইন্সটিটিউট (বিএসডিআই) যুগোপযোগী এই কোর্সের মাধ্যমে দক্ষ মানব সম্পদ তৈরিতে জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে সমান অবদান রাখবে। উপরোক্ত কোর্সগুলোর প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি এবং আন্তর্জাতিক শ্রম বাজারে এই সেক্টরে দক্ষ মানবসম্পদ রপ্তানির ক্ষেত্রে এবং দেশীয় শ্রম বাজারের চাহিদা পূরণ করে বাংলাদেশ স্কিল ডেভেলপমেন্ট ইন্সটিটিউট (বিএসডিআই) দক্ষ মানবসম্পদ তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।



এসএসসি/সমমান পরীক্ষায় কমপক্ষে জিপিএ ২.০০ পেয়ে পাস করতে হবে, এইচএসসি উত্তীর্ণ/অনুত্তীর্ণ বা পরীক্ষার্থীরাও আবেদন করতে পারবেন। যে কোন বয়সের ছাত্র/ছাত্রীরা ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবেন ।



বর্তমানে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ডিপ্লোমা ইন টেঙ্টাইল, কম্পিউটার, ইলেক্ট্রিক্যাল এবং সিভিল প্রোগ্রামে ভর্তি চলছে।



** অফিস চলাকালে ভর্তির আবেদনপত্র, তথ্যবিবরণী ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র প্রতিষ্ঠান হতে সংগ্রহ করতে হবে। ভর্তির আবেদনপত্র বোর্ড নির্ধারিত সময়ের মধ্যে জমা দিতে হবে। নির্বাচিত প্রার্থীদের এসএসসি/সমমান পরীক্ষার মূল নম্বরপত্র/ট্রান্সক্রিপ্ট, সনদপত্র, ৪ কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ বোর্ড কর্তৃক নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ভর্তি হতে হবে।



যোগাযোগ : নং: ১৪, আশিকাটি, বাবুরহাট, চাঁদপুর।



০১৭১৩৪৯৩২৩৯, ০১৭১৩৪৯৩০৯১-ডবনww-w.bsdicp.edu.daffodil.computer



E-mail-info@bsdi-bd.org



 



 


এই পাতার আরো খবর -
করোনা পরিস্থিতি
বাংলাদেশ বিশ্ব
আক্রান্ত ৩,৩৯,৩৩২ ২,৯২,০১,৬৮৫
সুস্থ ২,৪৩,১৫৫ ২,১০,৩৫,৯২৬
মৃত্যু ৪,৭৫৯ ৯,২৮,৬৮৬
দেশ ২১৩
সূত্র: আইইডিসিআর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
আজকের পাঠকসংখ্যা
৯৫০৪৮২
পুরোন সংখ্যা