চাঁদপুর, বৃহস্পতিবার ২৬ মার্চ ২০২০, ১২ চৈত্র ১৪২৬, ৩০ রজব ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৬৭-সূরা মুল্ক


৩০ আয়াত, ২ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


৬। যাহারা তাহাদের প্রতিপালককে অস্বীকার করে তাহাদের জন্য রহিয়াছে জাহান্নামের শাস্তি, উহা কত মন্দ প্রত্যাবর্তনস্থল।


 


 


assets/data_files/web

আমার নিজের সৃষ্টিকে আমি সবচেয়ে ভালোবাসি।


-ফার্গসান্স।


 


 


 


যে শিক্ষা গ্রহণ করে তার মৃত্যু নেই।


 


 


ফটো গ্যালারি
চাঁদপুর লঞ্চ টার্মিনালে দুর্ঘটনা
স্পীডবোটের ২ আরোহীর ১ জনকে জীবিত ও নিখোঁজ চালকের মৃতদেহ ১৮ ঘণ্টা পর উদ্ধার
শওকত আলী
২৬ মার্চ, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


চাঁদপুর লঞ্চ টার্মিনাল পন্টুন এলাকায় বাঁধা যাত্রীবাহী এমভি ময়ূর-৭ লঞ্চের নিচে স্পীডবোট তলিয়ে যাওয়ায় নিখোঁজ চালক মোঃ জাহাঙ্গীর আলম (৪০)-এর মরদেহ উদ্ধার করেছে নৌ-পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরী দল। গতকাল বুধবার সকালে মেঘনা নদীতে ঘণ্টাব্যাপী চেষ্টা চালিয়ে ডুবুরীরা তার মরদেহ উদ্ধার করে চাঁদপুর মডেল থানা পুলিশকে হস্তান্তর করে। এর আগে মঙ্গলবার বিকেল থেকে রাত সাড়ে ৯টা পর্যন্ত উদ্ধার কাজে চেষ্টা চালায় চাঁদপুর নৌ ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরী দল। নিহত জাহাঙ্গীর আলম ভোলা জেলা সদরের পূর্ব ইলিশ্যা গ্রামের বাসিন্দা।



ভোলা থেকে আসা নিহত জাহাঙ্গীরের বড় ভাই আলাউদ্দিন জানান, আমার ভাই ইলিশ্যা এলাকায় স্পীডবোট চালাতো। জাহাঙ্গীর ও তার ছেলে আরিফ হোসেন মঙ্গলবার বিকেলে স্পীডবোট নিয়ে ভোলা থেকে তাদের এক আত্মীয়কে নিতে চাঁদপুর লঞ্চঘাটে আসে। ঢাকা থেকে লঞ্চ আসার অপেক্ষায় এমভি ময়ূর-৭ লঞ্চের পেছনে সে স্পীডবোট বেঁধে অবস্থান করছিলো। নোঙ্গর করার জন্যে ময়ুর-৭ লঞ্চটি পেছনে গেলে ধাক্কা খেয়ে স্পীডবোটসহ জাহাঙ্গীর আলম মেঘনা নদীতে তলিয়ে যায়। এ সময় স্পীডবোটে থাকা আরিফকে নৌ-পুলিশ উদ্ধার করলেও জাহাঙ্গীরকে উদ্ধার করতে পারেনি।



উদ্ধার হওয়া আরিফ হোসেন জানান, করোনা ভাইরাসের কারণে ভোলার সাথে ঢাকার লঞ্চ চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। যার ফলে তাদের নিকটাত্মীয়রা চাঁদপুরের লঞ্চে করে ঢাকা থেকে চাঁদপুর আসে। তাদেরকে নেয়ার জন্যে তারা স্পীডবোট নিয়ে চাঁদপুর আসে। চাঁদপুর আসার পর তারা চাঁদপুর নৌ-টার্মিনালের পন্টুনের সাথে থাকা যাত্রীবাহী এমভি ময়ুর-৭ লঞ্চের পেছনে স্পীডবোটটি বেঁধে রেখে তাদের আত্মীয়ের জন্যে অপেক্ষা করতে থাকে। এ সময় এমভি ময়ুর-৭ লঞ্চটি ঢাকায় যাত্রার উদ্দেশ্যে নৌ-টার্মিনাল থেকে চালু করলে প্রচ- স্রোতের সৃষ্টি হয়। এতে লঞ্চের সাথে বাঁধা থাকা স্পীডবোটটি লঞ্চের নিচে তলিয়ে যায়।



চাঁদপুর নৌ থানার অফিসার ইনচার্জ জিহাদুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চত করে বলেন, আইনী প্রক্রিয়া শেষে জাহাঙ্গীরের মরদেহ পরিবারের লোকদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ব্যাপারে চাঁদপুর নৌ-থানায় একটি জিডি করা হয়েছে। নৌ-পুলিশের ডিআইজি ও এসপিকে বিষয়টি অবগত করা হয়েছে।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৮৮৮২১০
পুরোন সংখ্যা