চাঁদপুর, বৃহস্পতিবার ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ৭ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৫ জমাদিউস সানি ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৬৭-সূরা মুল্ক


৩০ আয়াত, ২ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


৬। যাহারা তাহাদের প্রতিপালককে অস্বীকার করে তাহাদের জন্য রহিয়াছে জাহান্নামের শাস্তি, উহা কত মন্দ প্রত্যাবর্তনস্থল।


 


 


assets/data_files/web

আমার নিজের সৃষ্টিকে আমি সবচেয়ে ভালোবাসি।


-ফার্গসান্স।


 


 


 


যে শিক্ষা গ্রহণ করে তার মৃত্যু নেই।


 


 


ফটো গ্যালারি
হাজীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক পদে বিজিত প্রার্থীর ফলাফল প্রত্যাখ্যান
চাঁদপুর কণ্ঠ রিপোর্ট
২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


হাজীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করলেন বিজিত প্রার্থী আবু সুফিয়ান রানা। মঙ্গলবার ফলাফল ঘোষণা শেষে উক্ত স্থানেই ফলাফল প্রত্যাখ্যান করে অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগ করে পরে সংবাদকর্মীদের কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখ্যানের বিষয়টি জানান।



উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক পদে ১৮ ফেব্রুয়ারি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলার ১৪টি স্থানে কাউন্সিলরদের গোপন ব্যালটের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ করা হয়। ভোট গণনা শেষে ফলাফল ঘোষণা করেন নির্বাচন কমিশনের সদস্য অধ্যাপক মোজাম্মেল হোসাইন। এ সময় কমিশনের সদস্য অধ্যাপক নজরুল ইসলাম স্বপন ও অ্যাডভোকেট ওমর ফারুক টিটুসহ বিএনপির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।



নির্বাচনে ১২৩ ভোট সংগৃহীত হয়। এতে ৬৫ ভোট পেয়ে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন এমএ রহিম পাটোয়ারী। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আবু সুফিয়ান রানা পেয়েছেন ৫৮ ভোট। নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ এনে ফলাফল প্রত্যাখ্যান করে অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগ করেন আবু সুফিয়ান রানা।



আবু সুফিয়ান রানা অভিযোগ করে বলেন, বিজয়ী প্রার্থী এমএ রহিম পাটোয়ারী ৮নং হাটিলা পূর্ব ইউনিয়নে তার কেন্দ্রে (নিজ এলাকায়) অনুষ্ঠিত নির্বাচনে আমার এজেন্ট আব্দুল কাদেরকে জোরপূর্বক ভোটগ্রহণের কক্ষ থেকে বের করে দিয়ে অন্য কক্ষে বসিয়ে রাখেন। এ সময় তিনি আমার এজেন্টকে হুমকি-ধমকি ও ভয়-ভীতি প্রদর্শন করেন। এছাড়াও কাউন্সিলরদের গোপন ভোট না নিয়ে প্রকাশ্যে এমএ রহিম পাটোয়ারীর নামে সিল মারেন। প্রার্থী নিজে উপস্থিত থেকে এই কাজটি সম্পন্ন করেন। বিষয়টি আমি হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তি বিএনপির প্রধান সমন্বয়কসহ সিনিয়র নেতৃবৃন্দকে জানাই এবং নির্বাচন কমিশনের কাছে অভিযোগ করি।



আবু সুফিয়ান রানা আরো বলেন, আমার অভিযোগের সুরাহা না করে এবং উপরের নির্দেশে নির্বাচনে অনিয়ম করে আমাকে পরাজিত দেখানো হয়েছে। সুতরাং আমি এই ফলাফল প্রত্যাখ্যান করি। অভিযোগ এবং অনিয়মের বিষয়টি সুরাহা অথবা প্রয়োজনে পুনরায় নির্বাচনের দাবি জানান তিনি।



উল্লেখ্য, গত ১৪ ফেব্রুয়ারি হাজীগঞ্জ উপজেলা ও পৌর এবং শাহরাস্তি উপজেলা ও পৌর বিএনপির ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সম্মেলনে উপস্থিত প্রস্তাব ও সমর্থনের ভিত্তিতে হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তি উপজেলার চারটি ইউনিটের কমিটি ঘোষণা করা হয়। কিন্তু হাজীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক পদে একাধিক প্রার্থী থাকায় ওই দিন এ পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়নি। যার ফলে ১৮ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার এই পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৫৮৪৯১৮
পুরোন সংখ্যা