চাঁদপুর, সোমবার ২১ অক্টোবর ২০১৯, ৫ কার্তিক ১৪২৬, ২১ সফর ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৭-সূরা হাদীদ


২৯ আয়াত, ৪ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


 


 


০৩। তিনিই আদি, তিনিই অন্ত; তিনিই ব্যক্ত ও তিনিই গুপ্ত এবং তিনি সর্ববিষয়ে সম্যক অবহিত।


৪। তিনিই ছয় দিবসে আকাশম-লী ও পৃথিবী সৃষ্টি করিয়াছেন; অতঃপর 'আরশে সমাসীন হইয়াছেন। তিনি জানেন যাহা কিছু ভূমিতে প্রবেশ করে ও যাহা কিছু উহা হইতে বাহির হয় এবং আকাশ হইতে যাহা কিছু নামে ও আকাশে যাহা কিছু উত্থিত হয়। তোমরা যেখানেই থাক না কেনো_তিনি তোমাদের সঙ্গে আছেন, তোমরা যাহা কিছু করো আল্লাহ তাহা দেখেন।


 


সংশয় যেখানে থাকে সফলতা সেখানে ধীর পদক্ষেপে আসে।


-জন রে।


 


 


যে ব্যক্তি উদর পূর্তি করিয়া আহার করে, বেহেশতের দিকে তাহার জন্য পথ উন্মুক্ত হয় না।


 


যে শিক্ষা গ্রহণ করে তার মৃত্যু নেই।


 


ফটো গ্যালারি
ইনার হুইল ক্লাব অব চাঁদপুর সেন্ট্রালের সংবর্ধনা অনুষ্ঠান
শিক্ষক সমাজের কারণে দেশের মেধা বিকাশ ও কীর্তিমানের সৃষ্টি হয় : ডাঃ সৈয়দা বদরুন নাহার চৌধুরী
শিক্ষক হিসেবে কখনো পেশার পরিপন্থী বা কোনো অনৈতিক কাজ করিনি : অধ্যক্ষ প্রফেসর বিলকিস আজিজ
গোলাম মোস্তফা
২১ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


ইনার হুইল ক্লাব চাঁদপুর সেন্ট্রাল (জেলা-৩২৮)-এর উদ্যোগে আন্তর্জাতিক শিক্ষক দিবস উপলক্ষে গতকাল ২০ অক্টোবর রোববার বিকেলে চাঁদপুর শহরের রেলওয়ে কিন্ডারগার্টেন মিলনায়তনে পাবনা সরকারি মহিলা কলেজ থেকে অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ প্রফেসর বিলকিস আজিজকে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়। প্রধান আলোচক ছিলেন স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত নারী মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ সৈয়দা বদরুন নাহার চৌধুরী।



ক্লাবের সভাপতি তাছলিমা মুনি্নর সভাপ্রধানে এবং রাসেল হাসানের উপস্থাপনায় ক্লাব সদস্য মাহমুদা সাথীর কোরআন তেলাওয়াতের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা হয়। এরপর জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা হয়। ক্লাবের ভাইস প্রেসিডেন্ট তাসনুভা তন্বীর ইনার হুইল প্রার্থনার পর স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সাবেক সভাপতি মুক্তা পীযূষ। অতিথি হিসেবে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন রোটারী জেলা ৩২৮২-এর পদ্মা জোনের অ্যাসিসটেন্ট গভর্নর রোটাঃ মফিজ উদ্দিন সরকার। সংবর্ধিত অতিথিকে শুভেচ্ছা জানিয়ে কবিতা পাঠ করেন বিশিষ্ট লেখক ডাঃ পীযূষ কান্তি বড়ুয়া। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর সাহিত্য একাডেমীর মহাপরিচালক ও দৈনিক চাঁদপুর কণ্ঠের প্রধান সম্পাদক রোটাঃ কাজী শাহাদাত পিএইচএফ।



ডাঃ সৈয়দা বদরুন নাহার চৌধুরী তাঁর বক্তব্যে বলেন, শিক্ষকরা হচ্ছেন সমাজের শ্রদ্ধেয় ব্যক্তি। আজকে যিনি সংবর্ধিত হচ্ছেন, তিনি আবার একজন নারী। তিনিও তাঁর পেশাগত জীবনে এ চাঁদপুরবাসীর কাছে অত্যন্ত শ্রদ্ধেয়। অতএব সমাজের এ শ্রদ্ধেয় ব্যক্তিকে যারা সম্মানিত করেছে, এতে তারা আরো বেশি সম্মানিত হয়েছেন। তিনি বলেন, এমন নারীকে সম্মানিত করে ইনার হুইল ক্লাব অব চাঁদপুর সেন্ট্রাল চাঁদপুরের পুরো নারী সমাজকে সম্মানিত করেছেন। তিনি বর্তমান সরকারপ্রধান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, নারীদের ক্ষমতায়নে তিনি যা করেছেন, তা সত্যি আমাদের নারী সমাজের জন্যে গর্বের বিষয়।



তিনি আরো বলেন, যে জাতি গুণীকে সম্মান দিতে জানে না সে জাতি কখনও সম্মানিত হতে পারে না। আমি ডাঃ সৈয়দা বদরুন নাহার হয়েছি এই শিক্ষক সমাজের কারণে। শিক্ষক সমাজের কারণে দেশের মেধা বিকাশ ও কীর্তিমানের সৃষ্টি হয়। এই কৃতিত্বের অংশীদার এ শিক্ষক সমাজ। তাঁরা আমাদের সমাজের আয়না। আমাদের সমাজের শ্রদ্ধেয় ব্যক্তিত্ব।



সংবর্ধিত অতিথির বক্তব্যে অধ্যক্ষ প্রফেসর বিলকিস আজিজ বলেন, মূলত ছোটবেলা থেকেই ছোট ভাই-বোন সকলকে পড়াতে বসতাম। এছাড়া আমার পিতাও শিক্ষকতা করেছেন। তাই আমার ছাত্রজীবনের স্বপ্ন থেকেই এ পেশায় আসা। শিক্ষকতা পেশার স্মৃতি তুলে ধরে তিনি বলেন, পেশাগত জীবনে দেশের নামকরা কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতা করেছি। দেখেছি অনেক ক্ষেত্রে শিক্ষার পরিবেশ পরিপূর্ণ থাকে না।



তিনি আরো বলেন, আমার খুব ইচ্ছে ছিলো শিক্ষার কাঙ্ক্ষিত পরিবেশসমৃদ্ধ একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ার। যে প্রতিষ্ঠানে প্রতিটি বিষয়ে আলাদা অবকাঠামোসহ শিক্ষার পরিবেশ থাকবে। কিন্তু সেই স্বপ্ন স্বপ্নই রয়ে গেলো। সেটি বাস্তবায়ন করা হলো না। তিনি বলেন, শিক্ষকরা আসলে প্রতিটি ছাত্র-ছাত্রীর মানসিকতার বিকাশ ঘটায়। তার ভেতরে ভালো যেটা সেটাকে বিকশিত করে খারাপটাকে পরিহার করানোর চেষ্টা করে। শিক্ষকদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি যারা গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন তারা হচ্ছেন প্রাথমিক শিক্ষার শিক্ষকগণ। তারাই মূলত ছাত্র-ছাত্রীদেরকে একটি পর্যায়ে নিয়ে আসে।



তিনি ব্যক্তিগত স্মৃতি তুলে ধরে বলেন, ব্যক্তিগতভাবে আমি খুব জেদী। কিন্তু পেশাগত জীবনে কোনো সহকর্মীর অকল্যাণের জন্যে কাজ করিনি। আর পেশার পরিপন্থী বা অসৎ কোনো কাজ করিনি। সবশেষে তিনি সংবর্ধনার জন্যে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।



সংবর্ধিত অতিথির জীবনবৃত্তান্ত পাঠ করেন গণি মডেল হাইস্কুলের সহকারী শিক্ষক রাসেল হাসান। সংবর্ধিত অতিথিকে ফুলের মালা দিয়ে বরণ করে নেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদিক মিতু আক্তার ও সদস্য মাহমুদা সাথী। ক্রেস্ট প্রদান করেন সংগঠনের পিপি মাহমুদা খানম, আইপিপি মুক্তা পীযূষ ও প্রেসিডেন্ট তাসলিমা মুনি্ন। এছাড়াও সংগঠনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন উপহার প্রদান করা হয়। উপস্থিত সকল শিক্ষককে সংগঠনের পক্ষ থেকে ব্যানার প্রদান করা হয়। সবশেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।



অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ক্লাবের সহ-সভাপতি রৌশন আক্তার, সদস্য মারিয়া মিথিলা, রুবিনা মরিয়ম, রাবেয়া শিল্পী, মার্জিয়া আক্তার, মাহমুদা বেগম প্রমুখ।



 



 


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
৮৫৯৯৮২
পুরোন সংখ্যা