চাঁদপুর, শনিবার ২৪ আগস্ট ২০১৯, ৯ ভাদ্র ১৪২৬, ২২ জিলহজ ১৪৪০
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৪-সূরা কামার


৫৫ আয়াত, ৩ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৫২। উহাদের সমস্ত কার্যকলাপ আছে আমলনামায়,


৫৩। আছে ক্ষুদ্র ও বৃহৎ সমস্ত কিছুই লিপিবদ্ধ।


৫৪। মুত্তাকীরা থাকিবে স্রোতস্বিনী বিধৌত জান্নাতে,


৫৫। যোগ্য আসনে, সর্বময় কর্তৃত্বের অধিকারী আল্লাহর সানি্নধ্র্যে।


 


 


assets/data_files/web

সংশয় যেখানে থাকে সফলতা সেখানে ধীর পদক্ষেপে আসে।


-জন রে।


 


 


যে ব্যক্তি উদর পূর্তি করিয়া আহার করে, বেহেশতের দিকে তাহার জন্য পথ উন্মুক্ত হয় না।


 


যে শিক্ষা গ্রহণ করে তার মৃত্যু নেই।


 


ফটো গ্যালারি
মুসল্লিদের কাছে ক্ষমা চাইলেন ও ইমামের কাছে তওবা করলেন হাজীগঞ্জের এক মাদক ব্যবসায়ী
কামরুজ্জামান টুটুল
২৪ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


মামুন মিজি (৩০) নামে কুখ্যাত এক মাদক ব্যবসায়ী মসজিদে উপস্থিত হয়ে আর মাদক বিক্রি করবে না বলে মুসলি্লদের কাছে ক্ষমা চাইলেন। একই সময় এই মাদক ব্যবসায়ী ঐ মসজিদে প্রকাশ্যে ইমামের হাত ধরে তওবা করলেন। গতকাল শুক্রবার (২৩ আগস্ট) জুমার নামাজের সময় এমন ঘটনাটি ঘটে হাজীগঞ্জ পৌর এলাকার টোরাগড় মিজি বাড়ি জামে মসজিদে। সে ঐ এলাকার বিল্লাল হোসেনের ছেলে।



স্থানীয় মুসলি্লদের সূত্রে জানা যায়, মামুন এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। দীর্ঘদিন ধরে সে এই মাদক ব্যবসার সাথে সরাসরি জড়িত। সম্প্রতি পুলিশের মাদক বিরোধী চিরুনী অভিযানে মামুন এলাকাছাড়া ছিলো। তার পরিবার তাকে বহুবার চেষ্টা করেও এই অবৈধ পেশা থেকে ফেরাতে পারেনি।



হাজীগঞ্জ থানা পুলিশ জানায়, মাদক, বাল্যবিবাহ. গুজবসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ধারাবাহিক কাজের অংশ হিসেবে শুক্রবার পৌর এলাকার টোরাগড় মিজি বাড়ি জামে মসজিদে মুসলি্লদের মাঝে বক্তব্য রাখেন থানার অফিসার ইনচার্জ আলমগীর হোসেন। ওসির বক্তব্য শেষ হওয়ামাত্র মুসলি্ল হিসেবে নামাজ পড়তে আসা মামুন হঠাৎ মসজিদে দাঁড়িয়ে হাত জোড় করে আর মাদক বিক্রি করবে না বলে প্রতিজ্ঞা করে। এর পরেই সে সকল মুসলি্লর সামনে তাকে তওবা করানোর জন্যে ইমামকে অনুরোধ করেন। মামুনের এ ঘটনায় তখন সবাই হতবাক হয়ে মামুনকে বাহবা দিতে থাকেন।



মামুনের ক্ষমা ও তওবা করার বিষয়টি চাঁদপুর কন্ঠকে নিশ্চিত করে হাজীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আলমগীর হোসেন বলেন, সে তওবা ও ক্ষমা চাইলেই আমরা তাকে আইনি ছাড় দিতে পারি না। তবে ভবিষ্যতে মাদক বিক্রি করে কিনা এ বিষয়ে আমাদের নজরদারি অব্যাহত থাকবে। আর সে ভালো হলে আমাদের কাছে ভালো লাগবে।



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৮৭৮৯৭
পুরোন সংখ্যা