চাঁদপুর, বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০১৯, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ৯ শাওয়াল ১৪৪০
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • চাঁদপুর ডায়াবেটিক হাসপাতালের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক, কিংবদন্তীতুল্য সমাজসেবক আলহাজ্ব ডাঃ এম এ গফুর আর বেঁচে নেই। আজ ভোর ৪টায় ঢাকার শমরিতা হাসপাতালে ইন্তেকাল করেছেন।ইন্নালিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাইহে রাজিউন।বাদ জুমা পৌর ঈদগাহে জানাজা শেষে বাসস্ট্যান্ড গোর-এ-গরিবা কবরস্থানে তাঁকে দাফন করা হবে।
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৪-সূরা কামার


৫৫ আয়াত, ৩ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


 


 


 


assets/data_files/web

যাকে মান্য করা যায় তার কাছে নত হও। -টেনিসন।


 


 


যারা ধনী কিংবা সবকালয়, তাদের ভিক্ষা করা অনুচিত।


 


 


ফটো গ্যালারি
ইভটিজিংকে কেন্দ্র করে দু পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৪
গোলাম মোস্তফা
১৩ জুন, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+

ইভটিজিংয়ের ঘটনা জানাতে গিয়ে দু পক্ষের সংঘর্ষে ৪ জন আহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। শুধু তাই নয়, ইভটিজিংয়ের শিকার হওয়া ওই নারী উল্টো ইভটিজার দ্বারা হামলার শিকার হয়েছেন। গতকাল ১২ জুন বিকেল ৫টায় ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতাল প্রাঙ্গণে এ ঘটনা ঘটে।

ঘটনা সূত্রে জানা যায়, ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতালের সম্মুখে থাকা ব্যক্তিমালিকানাধীন একটি অ্যাম্বুলেন্সের ড্রাইভার আঃ রাজ্জাক হাসপাতালের সামনে হান্নান কমপ্লেঙ্রে নিচতলার ইনসাফ ডিজিটাল এঙ্-রে এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে কর্মরত এক নারীকে প্রায়ই বিভিন্নভাবে উত্ত্যক্ত ও ইভটিজিং করতো। এ ঘটনার কারণে ওই নারী ঘটনাটি ল্যাবের মালিকপক্ষকে জানায়। তাৎক্ষণিক মালিকপক্ষ থেকে এ বিষয়ে অ্যাম্বুলেন্স ড্রাইভার আঃ রাজ্জাককে বিষয়টি নিয়ে জিজ্ঞসা করার জন্যে গেলে তাকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। না পাওয়ার পর ইনসাফ ডিজিটাল এঙ্ রে ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মালিকপক্ষের হুমায়ুন এ বিষয়ে হাসপাতালের সম্মুখে বেশ কিছু অ্যাম্বুলেন্স ড্রাইভার ও অ্যাম্বুলেন্স মালিকদের একজন সুমনকে জানায়। তিনি বিষয়টি শুনে ইভটিজার ড্রাইভার আঃ রাজ্জাককে ফোন করে ডেকে আনেন। এরপর আঃ রাজ্জাক ঘটনাস্থলে আসলে উভয়ের মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে হাতাহাতি ও মারামারির ঘটনা ঘটে। এ মারামারি থামাতে গিয়ে অ্যাাম্বুলেন্স মালিক সুমন আহত হন। পাশাপাশি ইনসাফ ল্যাবের মালিক হুমায়ুন ও আলমগীর আহত হয়। ঘটনায় ইভটিজার আঃ রাজ্জাকও আহত হয়।

এরপরই ইভটিজার আঃ রাজ্জাক মোবাইল ফোনে তার সংঘবদ্ধ একটি গ্রুপকে খবর দিয়ে ঘটনাস্থলে আনে। ওই ইভটিজার আঃ রাজ্জাকের নেতৃত্বে ইনসাফ ল্যাবে গিয়ে ওই নারীকে মারধর করে মারাত্মক আহত করে। এ ঘটনা চলাকালে চাঁদপুর মডেল থানার এএসআই আনোয়ার সিভিলে যাওয়ার পথে লোকজনের ভীড় দেখে হোন্ডা থামিয়ে ঘটনা শুনে উভয় পক্ষের লোকজনকে রাত ৮টায় মডেল থানায় আসার জন্যে বলে। এরপর পরই চাঁদপুর মডেল থানার টহলরত পুলিশ ফোর্স এসআই আঃ মান্নানের নেতৃত্বে ঘটনাস্থলে আসে। তারা ঘটনা শুনে চলে আসে। এদিকে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ঘটনা সমাধানের জন্যে চাঁদপুর মডেল থানায় উভয় পক্ষের সমঝোতা চলছে।

আজকের পাঠকসংখ্যা
১০০৩৫৫
পুরোন সংখ্যা