চাঁদপুর, বুধবার ১৫ মে ২০১৯, ১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ৯ রমজান ১৪৪০
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫০-সূরা কাফ্


৪৫ আয়াত, ৩ রুকু, মক্কী


১৯। মৃত্যু যন্ত্রণা সত্যই আসিবে; ইহা হইতেই তোমরা অব্যাহতি চাহিয়া আসিয়াছ।


২০। আর শিঙ্গায় ফুৎকার দেওয়া হইবে, উহাই শাস্তির দিন।


 


 


assets/data_files/web

মনের যাতনা দেহের যাতনার চেয়ে বেশি। -উইলিয়াম হ্যাজলিট।


 


দয়া ঈমানের প্রমাণ; যার দয়া নেই তার ঈমান নেই।


 


ফটো গ্যালারি
চাঁদপুর সদরে গরু চোরচক্র ফের সক্রিয় ২ দিনে ৫টি গরু চুরি
বিশেষ প্রতিনিধি
১৫ মে, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


চাঁদপুর সদরে আবারো সক্রিয় হয়ে ওঠেছে আন্তঃজেলা গরুচোর চক্র। তাদের চুরির থাবা থেকে বলদ, বাছুর এমনকি দুধেল গাভী পর্যন্ত বাদ যাচ্ছে না। গত ১১ মে শনিবার রাতেও চাঁদপুর সদরের শাহমাহমুদপুর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের ভাটেরগাঁও গ্রামে গরু চুরির ঘটনা ঘটেছে। একইদিন রামপুর ইউনিয়নের ছোটসুন্দর গ্রামে তাহের নামে এক গৃহস্থেরও ২টি গরু চুরি হয়।



১৩ মে সোমবার দুপুরে শাহমাহমুদপুর ইউনিয়নে চুরির ঘটনাস্থলে সরজমিনে গিয়ে জানা যায়, মোর্শেদ পাটওয়ারী নামে ১ গৃহস্থ দীর্ঘদিন যাবৎ নিজ বাড়িতে গরুর খামার পরিচালনা করছিলেন। শনিবার রাত ১২টার পর তারা যখন ঘুমিয়ে যান, তখন পিকঅ্যাপ ভ্যান নিয়ে হাজির হয় আন্তঃজেলা চোর চক্রের সদস্যরা। এরা ওই গৃহস্থের গরুর খামারের দরজায় ঝুলানো তালা ভেঙ্গে নিয়ে যায় ২টি লাল ও ১টি কালো রঙের গাভী গরু। যার আনুমানিক মূল্য হবে প্রায় আড়াই লাখ টাকা।



এ ব্যাপারে ওই ক্ষতিগ্রস্ত গৃহস্থ মোর্শেদ পাটওয়ারীর সাথে আলাপ হলে তিনি জানান, আমাদের ৪টি গরুর মধ্যে ৩টি গাভী গরু চোরের দল মধ্যরাতে নিয়ে গেছে। তিনি আরো জানান, ফরিদা আফরোজ নামে এক মহিলার সাথে আমাদের জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলছে। তারা এই চোরচক্র লেলিয়ে দিয়েছে কি না তা তদন্ত করে দেখা দরকার। তবে গরু চোররা পিকআপ ভ্যান নিয়ে কামরাঙ্গা বাজার দিয়ে যাওয়ার সময় স্থানীয় বাজার প্রহরী বাসু নামে এক ব্যক্তি চোরদের দেখেছেন বলে জানতে পেরেছি। এ গরু চুরির বিষয়ে থানায় আমরা লিখিত অভিযোগ করেছি।



এ বিষয়ে চাঁদপুর সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ নাসিম উদ্দিনের সাথে আলাপ হলে তিনি জানান, গরু চোরদের উপদ্রব থেকে গৃহস্থদের নিরাপত্তা দিতে আমরা ইতিমধ্যেই কার্যক্রম শুরু করেছি। শাহমাহমুদপুরে গরু চুরির ঘটনাটি থানায় জানানোর পর পরই আমরা চোরদের ধরতে পদক্ষেপ নেয়া শুরু করেছি। আশা করি খুব দ্রুত এ বিষয়ে ভালো একটা খবর আমরা সবাইকে জানাতে পারবো। তবে পুলিশের পাশাপাশি গৃহস্থরাও তাদের পোষ্য পশুদের নিরাপত্তার ব্যাপারে সতর্ক থাকা জরুরি। তাহলেই এই আন্তঃজেলা গরু চোরদের দ্রুত আইনের আওতায় আনা সম্ভব হবে বলে মনে করছেন সচেতন মহল।



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
১৮৭৫৯০
পুরোন সংখ্যা