চাঁদপুর। শুক্রবার ১২ অক্টোবর ২০১৮। ২৭ আশ্বিন ১৪২৫। ১ সফর ১৪৪০
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • হাজীগঞ্জে আটককৃত বিএনপি'র ১৭ নেতাকর্মীকে জেলহাজতে প্রেরন
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪২-সূরা শূরা


৫৪ আয়াত, ৫ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৩৪। অথবা তিনি তাদের কৃতকর্মের ফলে সেগুলোকে ধ্বংস করে দিতে পারেন এবং অনেককে তিনি ক্ষমাও করেন।


৩৫। আর আমার নিদর্শনাবলি সম্পর্কে যারা তর্কে লিপ্ত হয়, তারা যেন অবহিত থাকে যে, তাদের (আযাব হতে) কোনো মুক্তি নেই।


৩৬। বস্তুতঃ তোমরা যা প্রদত্ত হয়েছে তা পার্থিব জীবনের ভোগ; কিন্তু আল্লাহর নিকট যা আছে তা উত্তম ও স্থায়ী, (ওগুলি) তাদের জন্যে যারা ঈমান আনে ও তাদের প্রতিপালকের উপর নির্ভর করে।


৩৭। (ওগুলি তাদের জন্য) যারা কবিরা গোনাহসমূহ ও অশ্লীল কর্ম হতে বেঁচে থাকে এবং যখন তারা ক্রোধান্বিত হয় ক্ষমা করে দেয়।


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


 


 


 


ধনে এবং জ্ঞানে বড় হলেই মানুষ মনের দিক থেকে বড় হয় না। -স্মিথ।


 


 


 


যাবতীয় পাপ থেকে বেঁচে থাকার উপায় হলো রসনাকে বিরত রাখা।


 


ফটো গ্যালারি
লঞ্চ চলাচল শুরু
মিজানুর রহমান
১২ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


ঘূর্ণিঝড় 'তিতলি' ভারতের উড়িষ্যা উপকূল অতিক্রম করার পর সেটি দুর্বল হতে শুরু করায় বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ রূটে লঞ্চ চলাচল শুরু হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর আড়াইটায় চাঁদপুর ঘাট থেকে লঞ্চ চলাচল শুরু হয় বলে জানিয়েছেন চাঁদপুর নদী বন্দরের সহকারী পরিচালক মোঃ শহীদুল ইসলাম।



আবহাওয়া অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, সমুদ্র বন্দরগুলোতে দেয়া ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত কমিয়ে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। আর নদী বন্দরে দেখাতে বলেছে ২ নম্বর নৌ হুঁশিয়ারি সংকেত। এ কারণে উপকূলীয় এলাকা ছাড়া দেশের অভ্যন্তরে নৌ চলাচল শুরু করার অনুমতি দেয়া হয়েছে।



ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে বিরূপ আবহাওয়ার কারণে গত বুধবার দুপুরের পর থেকে সারাদেশে অভ্যন্তরীণ নৌরূটে নৌযান চলাচল বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয় বিআইডবিস্নউটিএ। ফলে বুধবার বিকেল সাড়ে ৩টার পর ঢাকার সদরঘাট থেকে এবং বিকেল ৪টায় চাঁদপুর ঘাট থেকে কোনো লঞ্চ ছাড়া হয়নি। আকস্মিকভাবে লঞ্চ চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় নৌ পথের যাত্রীরা মারাত্মক দুর্ভোগে পড়ে। বুধবার বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত ঢাকা সদরঘাটে চাঁদপুর ও দক্ষিণাঞ্চলগামী অনেক মানুষ আসে। কিন্তু লঞ্চ না ছাড়ায় তাদের অনেকেই বাসা-বাড়িতে ফিরে যান আবার অনেকেই লঞ্চঘাটে রাত কাটান। আবার গতকাল সকাল থেকেও সদরঘাটে চাঁদপুর ও শরীয়তপুরের যাত্রীরা আসতে থাকে। কিন্তু লঞ্চ না ছাড়ায় খুবই বিপাকে পড়েন তারা। চাঁদপুরঘাটেও একই অবস্থার সৃষ্টি হয়। এ দু' দিন নৌপথের যাত্রীরা সীমাহীন দুর্ভোগে পড়ে।



ঘূর্ণিঝড় তিতলি হারিকেনের শক্তি নিয়ে বৃহস্পতিবার ভোরে ভারতের উড়িষ্যা-অন্ধ্র উপকূল অতিক্রম করার পর বৃষ্টি ঝরিয়ে দুর্বল হতে শুরু করে। এরপর বাংলাদেশের আবহাওয়া অধিদপ্তর সংকেত নামিয়ে আনে। তবে এ ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে বুধবার থেকেই বৃষ্টি ও বাতাস হয়। পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় বিআইডবিস্নউটিএ কর্তৃপক্ষ বেলা ১টার দিকে লঞ্চ ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেয়।



এদিকে ঘূর্ণিঝড় তিতলির প্রভাবে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হওয়ায় চাঁদপুরের জনজীবনে এর বিরূপ প্রভাব পড়ে। সবচেয়ে দুর্ভোগের শিকার হয় খেটেখাওয়া সাধারণ মানুষ ও নদীরপাড়ের নৌকা-ট্রলার যাত্রীরা। বিকেল ৩টার পর বৃষ্টি কমে আসলে জনমনে স্বস্তি ফিরে আসে।



 



 


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
১৯১১২০
পুরোন সংখ্যা