চাঁদপুর। শনিবার ১৮ আগস্ট ২০১৮। ৩ ভাদ্র ১৪২৫। ৬ জিলহজ ১৪৩৯
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪০-সূরা আল মু'মিন


৮৫ আয়াত, ৯ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৪৯। যারা জাহান্নামে আছে, তারা জাহান্নামের রক্ষীদেরকে বলবে, তোমরা তোমাদের পালনকর্তাকে বল, তিনি যেন আমাদের থেকে একদিনের আযাব লাঘব করে দেন।


৫০। রক্ষীরা বলবে, তোমাদের কাছে কি সুস্পষ্ট প্রমাণাদিসহ তোমাদের রসূল আসেননি? তারা বলবে, হ্যাঁ। রক্ষীরা বলবে, তবে তোমরাই দোয়া কর। বস্তুত কাফেরদের দোয়া নিষ্ফলই হয়।


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


 


 


যে দুর্ভাগ্যকে সহ্য করতে পারে না, সে সত্যি হতভাগ্য।


-টেরেন্স।


 


 


ব্যয় করার আগে নিজের পরিবার-পরিজনের কথা খেয়াল করো, সর্বাগ্রে নিজ পরিবার হতে ব্যয় শুরু করো।


 


 


 


 


 


 


 


ফটো গ্যালারি
প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ
১৮ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+

গত ১৫ আগস্ট দৈনিক চাঁদপুর কণ্ঠের ১ম পাতায় 'কচুয়ায় প্রবাসীর স্ত্রী ও শিশু সন্তানের উপর হামলা' শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদটি আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে। সংবাদে আমাকে ও আমার ভাইকে জড়িয়ে যে সব প্রকাশিত হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন।

প্রকৃত ঘটনা হচ্ছে, আমরা ৪ ভাই ও ২ বোন। বাবা-মা বাড়িতে থাকেন। আমার বড় ভাই মোঃ আনোয়ার হোসেন ফিরোজ ১৯৯২ সালে ১ম বিয়ে করেন। পরবর্তীতে তার ১ম স্ত্রী ও সন্তানদের অনুমতি না নিয়ে গোপনে তিনি আরেকটি বিয়ে করেন। ওই স্ত্রীকে আমাদের বাড়িতে উঠানোকে কেন্দ্র করে বাবা-মায়ের সাথে তার মতবিরোধ সৃষ্টি হয়। কিন্তু পরে তিনি বাবা-মায়ের অমতে তার ২য় স্ত্রী পারুল বেগমকে সংসারে উঠান। পারুল বেগম সংসারের চাবিকাঠি নিজের হাতে নিতে তার ভাই চান্দিনার বহু অপকর্মের হোতা ওয়াসিমকে দিয়ে বাবা-মাকে বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি দেখান। ঘটনার দিন গত ১১.০৮.২০১৮ খ্রিঃ শনিবার পারুল বেগমকে বাবা-মা মোটরের মাধ্যমে বাড়ির পানি উঠানোর কথা বললে তিনি উত্তেজিত হয়ে ওঠেন এবং উল্টো মিথ্যা ঘটনা সাজিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়ে সংবাদকর্মীকে দিয়ে ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করে আমাদের পরিবারের মানসম্মান ক্ষুণ্ন করে। তাকে কেউ মারধর করেনি বরং সে উত্তেজিত হয়ে আমার বৃদ্ধ বাবাকে মারধরের চেষ্টাকালে নিজের লাঠিতে নিজে সামান্য আহত হয়।

এছাড়া পূর্বেও তার ১ম স্ত্রীর বড় ছেলে শেখ হাসান শাওনকে আমার বাবা মেরে ফেলেছে বলে গুজব রটিয়ে তার ১ম স্ত্রী শাহীনা বেগমকে দিয়ে মিথ্যা মামলা দায়ের করে। অথচ তার বড় ছেলে শাওন বর্তমানে সৌদি আরবে রয়েছে। এদিকে গত ১৬ আগস্ট বৃহস্পতিবার ওই পারুল বেগম বিজ্ঞ নারী ও শিশু ট্রাইব্যুনাল আদালতে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন-২০০০ সংশোধিত ২০০৩-এর ১১(গ)/৩০ ধারায় মামলা দায়ের করলে বিজ্ঞ আদালতের নিকট মামলাটি অবিশ্বাস্য হওয়ায় মামলা আমলে না নিয়ে ফেরৎ দেন। বর্ণিত মামলার ফাইলিং আইনজীবী ছিলেন বিজ্ঞ অ্যাডঃ আহছান হাবিব।

আমরা প্রকাশিত ওই মিথ্যা সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

নিবেদক:

মোঃ খলিলুর রহমান, পিতা : মোঃ জালাল আহম্মেদ, গ্রাম : পাড়াগাঁও, কচুয়া,

জিডি-৮৭৯/১৮ চাঁদপুর।

আজকের পাঠকসংখ্যা
১৪৬৮১৮৮
পুরোন সংখ্যা