চাঁদপুর । সোমবার ১৬ জুলাই ২০১৮ । ১ শ্রাবণ ১৪২৫ । ২ জিলকদ ১৪৩৯
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৩৯-সূরা আয্-যুমার

৭৫ আয়াত, ৮ রুকু, মক্কী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

৪৯। মানুষকে যখন দুঃখ-কষ্ট স্পর্শ করে, তখন সে আমাকে ডাকতে শুরু করে, এরপর আমি যখন তাকে আমার পক্ষ থেকে নেয়ামত দান করি, তখন সে বলে, এটা তো আমি পূর্বের জানা মতেই প্রাপ্ত হয়েছি। অথচ এটা এক পরীক্ষা, কিন্তু তাদের অধিকাংশই বোঝে না।

৫০। তাদের পূর্ববর্তীরাও তাই বলত, অতঃপর তাদের কৃতকর্ম তাদের কোনো উপকারে আসেনি।

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


সাবধানী লোক কদাচিৎ ভুল করে।

 -কনফুসিয়াস।


রাসূল সাঃ বলেছেন, নামাজ আমার নয়নের মণি।  





                        


ফটো গ্যালারি
সিআইপি বেড়িবাঁধের খাল দখল করে জোরপূর্বক মাছ চাষ
চাঁদপুর কণ্ঠ রিপোর্ট
১৬ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


চাঁদপুর সদর উপজেলার বাগাদী ইউনিয়ন এলাকায় সিআইপি বেড়ি বাঁধের খাল অবৈধভাবে জোরপূর্বক দখল করে মাছ চাষ করা হচ্ছে। এ খাল দখলকে কেন্দ্র করে সেখানে যে কোনো সময় ঘটতে পারে অপ্রীতিকর ঘটনা। গিয়াসউদ্দিন নান্নু নামে যুবলীগ নেতা পরিচয় দানকারী স্থানীয় এক ব্যক্তির ছত্রছায়ায় কিছু দুষ্কৃতকারী এ দখলদারিত্ব করছে বলে এলাকাবাসী জানায়।



জানা যায়, চাঁদপুর সেচ প্রকল্পের সিআইপি বেড়িবাঁধের চরবাগাদী পাম্প হাউজ (নানুপুর সস্নুইচ গেইট) হতে মতিন মাওলানার ব্রিজ পর্যন্ত খালে প্রায় দুই বছর যাবৎ মাছ চাষ করা নিয়ে সে এলাকায় চলছে গ্রুপিং। এ গ্রুপিংকে কেন্দ্র করে যে কোনো সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের সংঘর্ষের ঘটনা। একটি পক্ষ বলছে, সরকারি খাল বৈধভাবে লীজ এনে যারা মাছ চাষ করছিলো। তাদেরকে বিতাড়িত করে ওই দুর্বৃত্তরা অবৈধভাবে জোরপূর্বক দখল করে মাছ চাষ করছে। যার ফলে সরকার রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। জানা গেছে, ২০১৫ সালে পাম্প হাউজ হতে মোস্তান বাড়ি পর্যন্ত প্রায় ১০ একর খালের লীজ নিয়ে ৮/১০ জন মুক্তিযোদ্ধাসহ প্রায় ৬০ জন সদস্য তিনটি গ্রুপে লীজ এনে মাছ চাষ করছিলো। তারা নিয়মিত সরকারকে রাজস্বও দিচ্ছিলো। পানি উন্নয়ন বোর্ডের দেয়া কাগজপত্র অনুযায়ী খালটিতে তারা মাছ চাষ করে আসছিলো। কিন্তু তাদের লীজের মেয়াদ থাকা সত্ত্বেও বর্তমানে খাল দখলকারীরা তাদের উচ্ছেদ করে দেয়। এই কুচক্রী মহল সরকার দলীয় লোক পরিচয় দিয়ে প্রভাব খাটিয়ে খাল দখল করে মাছ চাষ করে যাচ্ছে। প্রকৃতপক্ষে এরা বর্তমানে লীজবিহীনভাবে খাল দখল করে রেখেছে। সিআইপি বাঁধের এ খালটি থেকে মাছ চাষাবাদ করে বিরাট অঙ্কের অর্থ লাভবান হওয়া যায়। এ জন্যে 'জোর যার মুল্লুক তার' প্রবাদের ন্যায় অবৈধভাবে খাল দখল করে মাছ চাষ করে অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হচ্ছে সরকারি দলের পরিচয়দানকারী ওই দুর্বৃত্তরা।



নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক ক'ব্যক্তি জানান, খালের নানুপুর স্নুইচ গেট হতে মতিন মাওলানার ব্রিজ পর্যন্ত বর্তমানে কারো নামে লীজ নেই। যুবলীগ নামধারী এক নেতার সহযোগিতায় দুর্বৃত্তরা জোরপূর্বক খাল দখল করে মাছ চাষাবাদ করে যাচ্ছে। জানা গেছে, কথিত যুবলীগ নেতা গিয়াসউদ্দিন নান্নুর ছোট ভাই রুবেল, সাদ্দাম, একই এলাকার হাবীব, আরিফ, রবিন, বাবু, সেন্টু, মানিকসহ অনেকেই এ খালে অবৈধভাবে মাছ চাষের সাথে জড়িত। এই অবৈধ দখলদারিত্ব থেকে খালটি মুক্ত করে বৈধ লীজারদের কাছে ফিরিয়ে দিতে কর্তৃপক্ষের কাছে দাবি জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৬৭৫৮২৯
পুরোন সংখ্যা