চাঁদপুর। শুক্রবার ৮ ডিসেম্বর ২০১৭। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৪। ১৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৩৩-সূরা আহ্যাব

৭৩ আয়াত, ৯ রুকু, মাদানী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

১২। আর স্মরণ কর, মুনাফিকরা ও যাহাদের অন্তরে ছিল ব্যাধি, তাহারা বলিতেছিল, ‘আল্লাহ এবং তাঁহার রাসূল আমাদিগকে যে প্রতিশ্রুতি দিয়াছিলেন তাহা প্রতারণা ব্যতীত কিছুই নহে।’

১৩। আর উহাদের এক দল বলিয়াছিল, ‘হে ইয়াছরিববাসী! এখানে তোমাদের কোন স্থান নাই, তোমরা ফিরিয়া চল’ এবং উহাদের মধ্যে একদল নবীর নিকট অব্যাহতি প্রার্থনা করিয়া বলিতেছিল, আমাদের বাড়িঘর অরক্ষিত; অথচ ওইগুলো অরক্ষিত ছিল না, আসলে পলায়ন করাই ছিল উহাদের উদ্দেশ্য।

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


একজন লোকের জ্ঞানের পরিধি তার অভিজ্ঞতা দ্বারা খ-ায়িত করা যায় না।

-জনলক।


যে সব ব্যক্তি নিন্দুক এবং যারা অপমানকারী, তাদের সর্বনাশ, অর্থাৎ তারা কষ্টদায়ক পরিণতি প্রাপ্ত হবে।


ফটো গ্যালারি
ফরিদগঞ্জে বৃদ্ধ রিক্সাচালকের আত্মহনন
ফরিদগঞ্জ ব্যুরো
০৮ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


ফরিদগঞ্জ উপজেলায় সম্পত্তি বুঝিয়ে না দেয়ায় বাবা-মায়ের সাথে অভিমান করে মফিজুল হক (৬০) নামে এক রিক্সাচালক বিষপানে আত্মহত্যা করার খবর পাওয়া গেছে। বুধবার বিকেলে উপজেলার চান্দ্রা ইউনিয়নের দেইচর গ্রামের ভূঁইয়া বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। মফিজুল হক ওই বাড়ির হাফেজ উদ্দিন ভঁূইয়ার ছেলে।



মফিজুল হকের স্ত্রী মিনু বেগম জানান, মফিজুল হক রিক্সা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতেন। তাদের ২ ছেলে ও ২ কন্যা সন্তান রয়েছে। মফিজুল হকসহ তারা মোট তিন ভাই ছিলেন। কয়েক বছর আগে তার আরেক ভাইও একই কারণে অভিমান করে আত্মহত্যা করেছেন।



তিনি আরো জানান, মফিজুল হকের অন্য ভাইকে তার বাবা-মা সব সম্পত্তি বুঝিয়ে দিলেও তাকে সব ভাগের সম্পত্তি বুঝিয়ে দেয়া হয়নি। এজন্যে তাকে তার সব সম্পত্তি বুঝিয়ে দেয়ার জন্যে তিনি তার বাবা-মাকে চাপ প্রয়োগ করেন। ঝগড়ার এক পর্যায় তিনি অভিমান করে বলেন, তাকে যদি সম্পূর্ণ সম্পত্তি বুঝিয়ে না দেয়া হয়, তাহলে সে তাদের সামনেই বিষপান করে আত্মহত্যা করবেন। এ কথা বলার পর মঙ্গলবার রাতে তার বাবা-মা বাড়ি থেকে চলে যান। পরে বুধবার বিকেলে মফিজুল হক কীটনাশক জাতীয় বিষপান করেন। দ্রুত তাকে চিকিৎসার জন্যে চাঁদপুর সরকারি হাসপাতালে এনে ভর্তি করালেও কিছুক্ষণ পরেই তার মৃত্যু হয়।



হাসপাতালের কর্মরত চিকিৎসক ডাঃ পীযূষ সাহা জানান, তিনি অতিরিক্ত মাত্রায় বিষপান করেছেন। হাসপাতালে আনার পর তার পাকস্থলী ওয়াশ করা হয়েছে। কিন্তু পরিবারের লোকজন তাকে দেরি করে আনাতে এবং সময়মতো প্রয়োজনীয় ঔষধ না আনতে না পারায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
১৪৭৯০৩
পুরোন সংখ্যা