চাঁদপুর। শুক্রবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৭। ৭ আশ্বিন ১৪২৪। ১ মহররম ১৪৩৯

বিজ্ঞাপন দিন

বিজ্ঞাপন দিন

সর্বশেষ খবর :

  • দুর্যোগপূর্ন আবহাওয়ার কারণে আজ দুপুরের পর থেকে চাঁদপুর থেকে সকল নৌরূটে লঞ্চ চলাচল বন্থ জানান বন্দর কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

২৯-সূরা আনকাবূত


৬৯ আয়াত, ৭ রুকু, ‘মক্কী’


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৬৫। উহারা যখন নৌযানে আরোহন করে তখন উহারা বিশুদ্ধচিত্ত হইয়া একনিষ্ঠভাবে আল্লাহকে ডাকে। অতঃপর তিনি যখন স্থলে ভিড়াইয়া উহাদিগকে উদ্ধার করেন, তখন উহারা র্শিকে লিপ্ত হয়। 


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


 


সুনাম মূল্যবান মলম অপেক্ষা শ্রেষ্ঠ।


                         -বাইবেল।


যে নামাজে হৃদয় নম্র হয় না, সে নামাজ খোদার নিকট নামাজ বলিয়াই গণ্য হয় না।


 

ফটো গ্যালারি
চতুরঙ্গ ৯ম ইলিশ উৎসবের ৫ম দিনে মোবাইল ফোনে সুজিত রায় নন্দী
ইলিশ উৎসব চাঁদপুরবাসীর জন্য একটি আন্দের এবং গর্ব করার উৎসব
স্টাফ রিপোর্টার
২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


চতুরঙ্গ সাংস্কৃতিক সংগঠনের আয়োজনে ৯ম প্রাণ ফ্রুটিঙ্ ইলিশ উৎসবের ৫ম দিনে গতকাল ২১ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার জেলা শিল্পকলা একাডেমী মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। বিকেল ৩টায় ক ও খ গ্রুপে ইলিশ বিষয়ক আলোকচিত্র ও ইলিশ নিয়ে ছড়া/কবিতা প্রতিযোগিতা।



 



বিকেল সাড়ে ৫টায় ইলিশ বিষয়ক মুক্ত ভাবনা অনুষ্ঠিত হয়। চতুরঙ্গের মহাসচিব হারুন আল রশীদের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি বিএম হান্নান, বিশিষ্ট লেখক পীযূষ রায় চৌধুরী, দৈনিক মতলবের আলোর ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক কেএম মাসুদ, শুভ্র রক্ষিত, রফিকুজ্জামান রনি, মাইনুল ইসলাম মানিক। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় মতলবের নৃত্যাঞ্জলি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করে।



 



সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় ইলিশ বিষয়ক আলোচনা সভায় মোবাইল ফোনে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী। তিনি তাঁর বক্তব্যে বলেন, মিয়ানমারে যেভাবে মানুষ হত্যার শিকার হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে আমরা তাদের মধ্যে ত্রাণ দিতে এসেছি। তাই আমি অনুষ্ঠানে উপস্থিত না হতে পেরে দুঃখ প্রকাশ করছি। ইলিশ উসৎব চাঁদপুরবাসীর জন্য একটি আন্দের উৎসব এবং গর্ব করার উৎসব। চাঁদপুরের জনগণ মা ইলিশ রক্ষায় একত্রিত হয়ে মা ইলিশের অভিযান সফল করবেন বলে বিশ্বাস করি। আমরা চতুরঙ্গের ইলিশ উৎসবের সাথে সব সময় থাকবো। এ উৎসবে জেলে ভাইদের সম্পৃক্ত করে সচেতন করতে হবে। জেলেদের সরকারের পক্ষ থেকে প্রশিক্ষণ দেয়ার ব্যবস্থা করা হবে। জেলেদের সহযোগিতার পরিমাণ আরো বৃদ্ধির আহ্বান জানাই। ইলিশ উৎসবটি চাঁদপুরে ব্র্যান্ড হিসেবে পরিচিত। সাংস্কৃতিক সংগঠনের অনুষ্ঠান যদি বিবেচনা করা হয়, তাহলে ইলিশ উৎসব হচ্ছে প্রথম সারির অনুষ্ঠান।



 



চতুরঙ্গ সাংস্কৃতিক সংগঠনের উপদেষ্টা মুক্তিযোদ্ধা মহসিন পাঠানের সভাপতিত্বে ও মহাসচিব হারুন আল রশীদের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. মজিবুর রহমান ভূঁইয়া, চাঁদপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ ওয়ালী উল্যাহ অলি, সংগীত নিকেতনের অধ্যক্ষ স্বপন সেনগুপ্ত, শিক্ষক সত্য চক্রবর্তী, মৎস্যজীবী নেতা মানিক দেওয়ান, ফেরদৌস মোর্শেদ জুয়েল।



 



এসময় উপস্থিত ছিলেন, চতুরঙ্গ সাংস্কৃতিক সংগঠনের চেয়ারম্যান অ্যাড. বিনয় ভুষণ মজুমদার, জেলা শিল্পকলা একাডেমীর কালচারাল অফিসার আবু সালেহ মো. আব্দুল্লাহ, বিশিষ্ট লেখক পীযূষ রায় চৌধুরী, মৎস্যজীবী নেতা তছলিম বেপারী, ইলিশ উৎসবে অংশগ্রহণকারী সকল সাংস্কৃতিক সংগঠনের কর্মকর্তা, মৎস্যজীবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও সদস্য এবং চতুরঙ্গ সাংস্কৃতিক সংগঠন ও প্রাণ গ্রুপের কর্মকর্তারা। সবশেষে রাত সাড়ে ৮টায় চতুরঙ্গের নৃত্য দলের নৃত্য ও সংগীত পরিবেশন করেন শিল্পীরা।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৪৮৭৬৬০
পুরোন সংখ্যা