চাঁদপুর। শনিবার ১৯ আগস্ট ২০১৭। ৪ ভাদ্র ১৪২৪। ২৫ জিলকদ ১৪৩৮

বিজ্ঞাপন দিন

বিজ্ঞাপন দিন

সর্বশেষ খবর :

  • --
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

২৯-সূরা আনকাবূত


৬৯ আয়াত, ৭ রুকু, ‘মক্কী’


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৩৩। এবং যখন আমার প্রেরিত ফিরিশতাগণ লূতের নিকট আসিল, তখন তাহাদের জন্য সে বিষন্ন হইয়া পড়িল এবং নিজকে তাহাদের রক্ষায় অসমর্থ মনে করি। উহারা বলিল, ‘ভয় করিও না, দুঃখও করিও না; আমরা তোমাকে ও তোমার পরিবারবর্গকে রক্ষা করিব, তোমার স্ত্রী ব্যতীত; সে তো পশ্চাতে অবস্থানকারীদের অন্তর্ভুক্ত;


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন

বিপদকে বিপদ দিয়েই অতিক্রম করা যায়।



-টমাস ফুলার।



যে নামাজে হৃদয় নম্র হয় না, সে নামাজ খোদার নিকট নামাজ বলিয়াই গণ্য হয় না।


 

ফটো গ্যালারি
গন্ধর্ব্যপুর দক্ষিণ ইউনিয়নে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভা
বঙ্গবন্ধুর অবদানে আমরা সার্বভৌম বাংলাদেশ পেয়েছি
কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা অধ্যাপক এ কে এম ফজলুল হক
১৯ আগস্ট, ২০১৭ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+

কামরুজ্জামান টুটুল জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে হাজীগঞ্জের ১০নং গর্ন্ধব্যপুর দক্ষিণ ইউনিয়নে পবিত্র কোরআন খতম, মিলাদ-মাহফিল ও শোক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত মঙ্গলবার স্থানীয় দেশগাঁও জয়নাল আবেদীন উচ্চ বিদ্যালয়ের হলরুমে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, শ্রমিক লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও তরুণলীগের উদ্যোগে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সাবেক সদস্য কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা অধ্যাপক একেএম ফজলুল হক।

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি গিয়াস উদ্দিন বাচ্চুর সভাপ্রধানে প্রধান অতিথি অধ্যাপক ফজলুল হক বলেন, বঙ্গবন্ধুর অবদানে আমরা সার্বভৌম বাংলাদেশ পেয়েছি। ১৫ আগস্ট বাঙালি জাতির জন্য একটি শোকাবহ দিন। স্বাধীনতার ষড়যন্ত্রকারীরা ভেবেছিল বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে এদেশের উন্নয়নকে নস্যাৎ করতে পারবে। তাই সেই কালো রাত্রিতে ছোট শিশু শেখ রাসেল'সহ পুরো পরিবারকে নির্মমভাবে হত্যা করেছে।

প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে আরো বলেন, বিপথগামী দেশ বিরোধীরা ভেবেছিল জাতীয় পতাকা, জাতীয় সংগীত আর থাকবে না। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর পরই জাতীয় নেতাদের হত্যা করা হয়। যাতে পরবর্তীতে দেশে নেতৃত্ব দেয়ার মতো কোন নেতা তৈরি না হয়। কিন্তু জাতির জনকের দুই কন্যা জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা আল্লাহর অশেষ রহমতে বিদেশে থাকার কারণে বেঁচে যান। শেখ হাসিনা বেঁচে থাকার কারণেই আজ দেশের এতো উন্নয়ন করা সম্ভব হয়েছে। এদেশের উন্নয়নের চিত্র দেখলে ষড়যন্ত্রকারীরা সহ্য করতে পারে না।

গন্ধর্ব্যপুর দক্ষিণ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলমের সঞ্চালনায় শোক সভায় আরো বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক শিক্ষা ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক ইকবালুজ্জামান ফারুক, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মান্নান, সদস্য সিরাজুল ইসলাম, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা শামসুল আলম সরকার স্বপন, হাটিলা পশ্চিম ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার সফিকুর রহমান, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান মুশু।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক সত্য ব্রত ভদ্র মিঠুন, বেলজিয়াম শাখা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুস সালাম, শহর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. জাকির হোসেন, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. বিল্লাল হোসেন, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান হিটু, উপজেলা ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, শ্রমিক লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও তরুণ লীগের নেতা-কর্মীসহ দেশগাঁও ডিগ্রি কলেজ, দেশগাঁও জয়নাল আবেদীন উচ্চ বিদ্যালয় ও স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীবৃন্দ। শোক দিবসের আলোচনাসভা শেষে মিলাদ মোনাজাত ও তবররুক বিতরণ করা হয়।

আজকের পাঠকসংখ্যা
১৩৫৩৩৪
পুরোন সংখ্যা