চাঁদপুর, সোমবার ৮ মার্চ ২০২১, ২৩ ফাল্গুন ১৪২৭, ২৩ রজব ১৪৪২
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী : বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ভাবনা-৮
স্বাধীনতার ৫০ বছর পরে এসেও মুক্তিযোদ্ধাদের যাচাই-বাছাই করা একটা অতৃপ্তির বিষয়
-----------------মোঃ আবু তাহের
কামরুজ্জামান টুটুল
০৮ মার্চ, ২০২১ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আবু তাহের। হাজীগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের সাবেক কমান্ডার। চলিত বছর চলমান বীর মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই কমিটি হাজীগঞ্জ উপজেলা শাখার সভাপতি, নাসিরকোট শহীদ স্মৃতি ডিগ্রি কলেজ গভর্নিং বডির সদস্য ও লায়ন ইন্টারন্যাশনাল ক্লাবের সদস্য। হাজীগঞ্জের দ্বাদশ গ্রাম ইউনিয়নের ইছাপুরা গ্রামের সন্তান তিনি। ঢাকা কলেজ থেকে স্নাতকোত্তর সম্পন্নকারী এই বীর মুক্তিযোদ্ধা ৩ কন্যা সন্তানের জনক এবং পেশাগত জীবনে একজন ব্যবসায়ী। স্ত্রী আয়েশা আক্তার হাজীগঞ্জ পাইলট বালিকা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা। বড় মেয়ে হাজীগঞ্জ ডিগ্রি কলেজের প্রভাষক, মেঝো মেয়ে চিকিৎসা বিদ্যায় গ্র্যাজুয়েশন শেষ করেছেন, আর ছোট মেয়ে আইন বিষয়ে উচ্চতর ডিগ্রি নিতে একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত।



স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণের জন্যে ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে চলে যান ভারতে। সেখানে গিয়ে ভারতীয় সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেন শর্মার অধীনে ভ্রাবো কোম্পানীর ৩ ব্যাচে ট্রেনিং শেষ করে দেশে চলে আসেন। দেশে এসে নিজ এলাকা চাঁদপুর-কুমিল্লা আঞ্চলিক মহাসড়কের উত্তর পাশ তথা হাজীগঞ্জের বাকিলা এলাকা থেকে শুরু করে বাখরপাড়া-রাধাসার-নাসিরকোট-নারায়ণপুর হয়ে দাউদকান্দির বিস্তীর্ণ এলাকায় যুদ্ধের মাঠে ছিলেন অক্লান্ত সৈনিক। পাকবাহিনীর সাথে সরাসরি যুদ্ধে নিজের কাছের ৩ বন্ধুকে যুদ্ধক্ষেত্রে হারিয়েছেন। চাঁদপুর কণ্ঠের নিয়মিত আয়োজন 'স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী : বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ভাবনা' শীর্ষক সাক্ষাৎকার পর্বে বলেছেন তাঁর না বলা কথাগুলো। যা নিচে তুলে ধরা হলো:-



মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের পর পঞ্চাশ বছর বেঁচে থেকে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর দেখা পেলেন। একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে আপনার অনুভূতি কি?



মোঃ আবু তাহের : বেঁচে থাকার এ অনুভূতি প্রকাশ করার মতো নয়। মহান আল্লাহর কাছে অশেষ শোকরিয়া এজন্যে যে, তিনি এতোটা দীর্ঘসময় আমাকে বাঁচিয়ে রেখেছেন। যুদ্ধে অংশগ্রহণের সময় যাদেরকে হারিয়েছি, আর যে সকল সহযোদ্ধা বয়সের কারণে এক এক করে চলে গেছেন তাদের কথা সুবর্ণজয়ন্তীর এই সময় বেশি করে মনে পড়ছে। আমার সৌভাগ্য জীবনের শেষ প্রান্তে এসে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী দেখলাম। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে যদি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকতেন, তাহলে আমরা মুক্তিযোদ্ধারা আজ সবচে' বেশি খুশি হতাম।



যে স্বপ্ন নিয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলেন সেই স্বপ্নের সমান্তরালে দেশের অগ্রযাত্রা লক্ষ্য করেছেন কি?



মোঃ আবু তাহের : স্বপ্নের সমান্তরাল অগ্রযাত্রা চোখে পড়েনি। অগ্রযাত্রা নিয়ে বলতে গেলে এভাবে বলতে চাই, মনে হচ্ছে দূরে বহু দূরে একটি একটি প্রদীপ নিভু নিভু করছে। সেই প্রদীপটি ধরে দেশটাকে অগ্রযাত্রার দিকে নিয়ে যাচ্ছেন জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা। স্বাধীনতার ৫০ বছরে দেশের যে কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন হওয়ার কথা তার যেটুকু হয়েছে তার সবটুকুই হয়েছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে।



দেশকে নিয়ে আপনার কোনো অতৃপ্তি আছে কি?



মোঃ আবু তাহের : হ্যাঁ অতৃপ্তি আছে। স্বাধীনতার ৫০ বছর পরে এসেও মুক্তিযোদ্ধাদের যাচাই-বাছাই করা একটা অতৃপ্তির বিষয়। কতোকাল চলবে এই যাচাই-বাছাই প্রক্রিয়া। জাতির পিতার কন্যা জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করবো যাচাই-বাছাই কার্যক্রমের মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধা না বাড়িয়ে এর লাগাম টেনে এই প্রক্রিয়া শেষ করুন। অপরদিকে বিভিন্নভাবে ইলাস্টিকের মতো মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে সেটাও অতৃপ্তির একটা কারণ।



স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে আপনি কাকে বা কাদেরকে বেশি স্মরণ করতে চান?



মোঃ আবু তাহের : স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে সবচে' বেশি স্মরণ করছি স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। মহান এ নেতার আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে সেদিন স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ নিয়েছি। একই সাথে স্মরণ করছি যাঁদের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছি। আজ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে রণাঙ্গনের যেই সকল সহযোদ্ধা ভাইদের কথা বেশি মনে পড়ছে, যাদেরকে আমরা সরাসরি যুদ্ধের মাঠে হারিয়েছি, আর যারা বয়সের কারণে দিন দিন আমাদের কাছ থেকে হারিয়ে যাচ্ছে।



সকলের উদ্দেশ্যে আপনার পছন্দের কিছু কথা বলুন।



মোঃ আবু তাহের : আমার জীবনের এই পড়ন্ত বেলায় এসে সকলের উদ্দেশ্যে একটাই পছন্দের কথা হলো, দেশটাকে ভালবাসুন, দেশটাকে ভালোবাসতে শিখুন, তবেই আমার সোনার বাংলাদেশ আরো এগিয়ে যাবে।



 


হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

১০০-সূরা 'আদিয়াত


১১ আয়াত, ১ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


৯। তবে কি সে সেই সম্পর্কে অবহিত নহে যখন কবরে যাহা আাছে তাহা উত্থিত হইবে।


১০। এবং অন্তরে যাহা আছে তাহা প্রকাশ করা হইবে?


১১। সেইদিন উহাদের কী ঘটিবে, উহাদের প্রতিপালক অবশ্যই তাহা সবিশেষ অবহিত।


 


 


মানুষ কদাচিত একইসঙ্গে ভালো ভাগ্য ও শুভবুদ্ধি আশীর্বাদস্বরূপ লাভ করে থাকে।


_লিভি।


 


 


প্রত্যেক কওমের জন্য একটি পরীক্ষা আছে এবং আমার উম্মতদের পরীক্ষা তাদের ধন-দৌলত।


 


 


ফটো গ্যালারি
করোনা পরিস্থিতি
বাংলাদেশ বিশ্ব
আক্রান্ত ৬,৪৪,৪৩৯ ১৩,২১,৯৪,৪৪৭
সুস্থ ৫,৫৫,৪১৪ ১০,৬৪,২৬,৮২২
মৃত্যু ৯,৩১৮ ২৮,৬৯,৩৬৯
দেশ ২১৩
সূত্র: আইইডিসিআর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
আজকের পাঠকসংখ্যা
১৩৬১০৮৯
পুরোন সংখ্যা