চাঁদপুর, মঙ্গলবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৭ আশ্বিন ১৪২৭, ৪ সফর ১৪৪২
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • --
হাইমচরে গৃহবধূ পারুল হত্যা রহস্য উদ্ঘাটন হবে কী?
হাইমচর প্রতিনিধি
২২ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


১২ বছরের সাংসারিক জীবনে পারুল ৪ সন্তানের জননী ছিলেন। শাহাদাত, সুমাইয়া, আশ্রাফ ও ৪ মাসের মুসাকে এতিম করে জীবনের সকল আশা-ভরসা ফেলে রেখে চলে গেলেন না ফেরার দেশে। সাংসারিক জীবনে পারুল সুখী ছিলেন না। তার স্বামী একাধিক বিয়ে করেছে, সেজন্যে খোঁজ-খবর নিতো না তার সন্তানদের। খেয়ে না খেয়ে কোনো রকম দিন কাটাতো পারুল। সন্তানদের মুখের দিকে তাকিয়ে সকল কষ্ট নিরবে হজম করতে হতো। অভাবের সংসারে থাকা সত্ত্বেও পারুল কারো কাছে হাত পাততো না। পারুলের বাবা-মা মাঝে মাঝে লুকিয়ে চাল, টাকা পয়সা দিতো। ২০০৮ সালে বাবা-মায়ের অমতে একই গ্রামের নাসির নেপালের ছেলে নজরুল ইসলাম ওরফে মিয়া নেপালের সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে নেপাল পারুলকে প্রতিনিয়ত মারধর করতো। সংসারে কোনো টাকা পয়সা দিতো না। নেপাল ২য় স্ত্রীকে নিয়ে নারায়ণগঞ্জ বাসাভাড়া করে থাকতো। মাঝে মাঝে সে তার ১ম স্ত্রী পারুলের সাথে দেখা করার জন্যে আসলে ২-৩ বার মারধর করে চলে যেতো। গত ১২ সেপ্টেম্বর রাত ৩টায় হাইমচর উপজেলার পশ্চিম চরকৃষ্ণপুর গ্রামে পারুলের ঘরে তাকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখে আশেপাশের লোকজন তার মৃতদেহ নামিয়ে মাটিতে রাখে।



এ ব্যাপারে স্থানীয় লোকজন জানান, পারুল একটি ভদ্র ঘরের মেয়ে ছিলো। তার স্বামী তাকে মারধর করতো শুনতাম, কিন্তু কারো কাছে বলতো না। নিরবে হজম করতো।



প্রত্যক্ষদর্শী সুফিয়া বেগম জানান, পারুলের মৃত্যুর আগের দিন তার স্বামীকে নদীতে গোসল করতে দেখিছি। পারুলের ছেলে শাহাদাত জানান, আমার মায়ের মৃত্যুর আগের দিন আমরা দাদির বাড়িতে চলে যাই। ঐদিন রাত ১টায় ঘুম থেকে জেগে দেখি আমার দাদি ঘরে নেই। বাড়িতে আসলে জানতে চাইলে দাদি বলেন, পাশের বাড়িতে পান খেতে গেছিলাম। তার কিছুক্ষণ পরে আমার মায়ের মারা যাওয়ার খবর শুনি।



ছোট মেয়ে সুমাইয়া বলেন, বৃহস্পতিবার আমার আব্বায় আমার মাকে মারধর করে চলে যায়। রাতে আমরা ঘরে শুয়ে থাকি, ঘুম থেকে উঠে দেখি, আমার মা ঝুলে আছে। পাশের বাড়ির মহিলা মাকে নিচে নামায়।



এ বিষয়ে প্রত্যক্ষদর্শী মিন্টুর মা জানান, পারুলের মেয়ে চিৎকার করে বলে, আমার মাকে বাঁচান, আমার মা ফাঁসি দিয়েছে। আমি ঘরের ভেতর গিয়ে দেখি পারুল মরে গেছে। তারপর মেয়ে বলেন, আমার মাকে বাঁচান। তখন আমি পারুলকে নিচে নামাই। আমি দেখি পারুল যে ওড়না দিয়ে ফাঁস দিয়েছে সেটা লুজ ছিল, আর ঘাড় বাঁকা ছিল। আমার মনে হয় না পারুল ফাঁস দিয়েছে। আমার বিশ্বাস তাকে মেরে ঝুলিয়ে রেখেছে।



নিহত পারুলের বড় ভাই রাসেল জানান, আমার বোনকে তার স্বামী প্রায় মারধর করতো। বাড়িতে খাওয়ার জন্যে কোন টাকা পয়সা দিতো না। আমরা টাকা পয়সা ও চাল কিনে দিতাম। ঐদিন তার স্বামী মিয়া নেপাল আমার বোনকে মেরে ওড়না দিয়ে ঝুলিয়ে রাখে। আমার বোন আত্ম্নহত্যা করতে পারে না। তাকে মেরে ঝুলিয়ে রেখেছে-এটা আমাদের দাবি। আমরা প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি, সঠিক তদন্ত করে অপরাধীর শাস্তির ব্যবস্থা করেন। অভিযুক্ত মিয়া নেপাল বর্তমানে জেল হাজত রয়েছে।



 


এই পাতার আরো খবর -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৭৬-সূরা দাহ্র বা ইন্সান


৩১ আয়াত, ২ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


১৯। তাহাদিগকে পরিবেশন করিবে চিরকিশোরগণ, যখন তুমি উহাদিগকে দেখিবে তখন মনে করিবে উহারা যেনো বিক্ষিপ্ত মুক্তা,


২০। তুমি যখন সেথায় দেখিবে, দেখিতে পাইবে ভোগ-বিলাসের উপকরণ এবং বিশাল রাজ্য।


 


দৈহিক সৌন্দর্যকে অনাবৃত রাখার চেয়ে আবৃত্ত রাখাই ভালো। -ফ্লেচার।


 


 


 


পুরাতন কাপড় পরিধান করো, অর্ধপেট ভরিয়া পানাহার করো, ইহা নবীসুলভ কার্যের অংশ বিশেষ ।


 


 


ফটো গ্যালারি
করোনা পরিস্থিতি
বাংলাদেশ বিশ্ব
আক্রান্ত ৩,৮৭,২৯৫ ৩,৯৬,৩৮,১৮৮
সুস্থ ৩,০২,২৯৮ ২,৯৬,৭৮,৪৪৬
মৃত্যু ৫,৬৪৬ ১১,০৯,৮৩৮
দেশ ২১৩
সূত্র: আইইডিসিআর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
আজকের পাঠকসংখ্যা
৬৪৭৬৭০
পুরোন সংখ্যা