চাঁদপুর, সোমবার ১০ আগস্ট ২০২০, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৯ জিলহজ ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • চাঁদপুর পৌরসভা নির্বাচন হতে কোনো বাধা নেই : হাইকোর্ট; রিট খারিজ। ||  তথ্যসূত্র: চ্যানেল টুয়েন্টি ফোর।
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৭৩-সূরা মুয্যাম্মিল


২০ আয়াত, ২ রুকু, মক্কী


 


১৫। আমি তোমাদের নিকট পাঠাইয়াছি এক রাসূল তোমাদের জন্য স্বাক্ষীস্বরূপ যেমন রাসূল পাঠাইয়াছিলাম ফির'আওনের নিকট,


১৬। কিন্তু ফির'আওন সেই রাসূলকে অমান্য করিয়াছিল, ফলে আমি তাহাকে কঠিন শাস্তি দিয়াছিলাম।


 


 


 


 


 


নিরাপদ দূরত্ব হতে সাহসী হওয়া সহজ। -ঈশপ।


 


 


 


 


 


ধনের যদি সদ্ব্যবহার করা হয় তবে তা সুখের বিষয় এবং সদুপায়ে ধন বৃদ্ধির জন্য সকলেই বৈধভাবে চেষ্টা করতে পারে।


 


 


 


 


ফটো গ্যালারি
শোকের আগস্ট শক্তির আগস্ট
পীযূষ কান্তি বড়ুয়া
১০ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


আগস্টের বিশ্বাসঘাতকতায় কে বেশি লাভবান সে হিসেব আজ সামনে উপস্থিত। যারা সেদিন মনে করেছিলো বঙ্গবন্ধুকে সরিয়ে দিতে পারলেই তাদের মোক্ষ পূর্ণ হবে, তারা সেদিন ভুল ভেবেছিল। যে মহানায়ক এদেশের প্রতিটি ধূলিকণার মনের কথা জানতেন, যিনি এদেশের প্রতিটি গাছের পাতার বেদনা জানতেন, তাঁকে কি এতো সহজে সরানো যায়? যে দেশমাতৃকার বুকের ওপর তাঁর আদুরে দুলাল, তাঁর সেরা সন্তানটি দীর্ঘ পঞ্চান্ন বছর ধরে কেবল হেঁটেছে আর হেঁটেছে, তাঁকে কি আর অত সহজে নিশ্চিহ্ন করা যায়? ঘাতক আগস্ট আর তার দোসরেরা জানত না প্রকৃত নেতা গদি বা চেয়ারে থাকে না, প্রকৃত নেতা থাকে জনতার বুকের মধ্যে, কর্মীদের আদর্শিক চেতনায় আর সময়ের ইতিহাসে। তাই একুশ বছর পরে হলেও লুকিয়ে রাখা মুজিবের নাম আলোয় নিয়ে আসে নিয়তি। আসলে কী চেয়েছিল আগস্ট? একাত্তরে পরাজয়ের প্রতিশোধ? ক্ষমতার সিংহাসন নাকি কেবলমাত্র মুজিবের বিরোধিতা? পনর আগস্টের পূর্বাপর ঘটনাক্রম যদি বিশ্লেষণ করা যায় তাহলে দেখতে পাই, অতি গভীর নীল নকশায় পরিকল্পিত হয়েছে বাংলাকে মুজিবহীন করার পাঁয়তারা। বাবাহীন নাবালক সন্তানের যেমন ভবিষ্যৎ অন্ধকার, ঠিক তেমনি ঘাতকের দল ভেবেছিল বাঙালিকে জনকশূন্য করতে পারলেই কেল্লাফতে। অভিভাবক হারালেই বুঝি বাঙালি পড়বে মুখ থুবড়ে। কিন্তু ঘাতক জানতো না জনক প্রতিটা বাঙালিকে শুধু স্বাধীনতাই এনে দেননি, বরং চলনে বলনে চিন্তা-চেতনায় সাবালক করে দিয়ে গেছেন। ফলে জনক দেহান্তরিত হলেও জনক ছিলেন নেপথ্যে, জনক ছিলেন বাঙালির ঘুমে-জাগরণে, শয়নে স্বপনে।



বাংলাকে জনকহীন করার পাঁয়তারায় জন্ম হলো বাসন্তীর। কী সুকৌশলে একজন প্রতিবন্ধী নারীর লজ্জাকে জিম্মি করে তারা সেদিন জনকের জন্যে রচনা করে চলেছিল প্রতিহিংসার মঞ্চ! সেই প্রতারণায় যোগ হলো সংবাদপত্র নিয়ে মিথ্যে প্ররোচনা। অথচ ঊনিশশো পঁচাত্তরের সতর জুন হতে কার্যকর হওয়া অর্ডিন্যান্স মোতাবেক একশ বিয়াল্লিশটি দৈনিক, সাপ্তাহিক, মাসিক ও সাময়িক পত্রিকার প্রকাশনা বহাল রাখা হয়েছিল। কিন্তু বিশ্বকে জানানো হলো বাক স্বাধীনতা হরণের কথা। একটি মিথ্যেকে দশবার বলতে বলতে তাকে সত্যে পরিণত করার গোয়েবলীয় কৌশলে প্রতারণার মঞ্চফাঁদ তৈরি করা হয়েছিল।



একজন নিরপরাধ ও আদর্শ যুবকের চরিত্রকে হনন করতে করতে তারা প্রায় কিংবদন্তীতে পরিণত করে তুলেছিল। মিথ্যে অপবাদে শেখ কামালের জীবনকে এঁকে তোলা হয়েছিল এক পথভ্রষ্ট যুবকের প্রতিকৃতিতে। অথচ সংস্কৃতিবান, ক্রীড়া পাগল শেখ কামালের মতো দেশপ্রেমী যুবকের উপমা আজও মেলা ভার। কিন্তু তবুও উর্দি হারানো উর্দিধারী ডালিমের বিষে কামালের চরিত্র হয়ে ওঠে জনকহত্যার এক বড় প্রচারণা।



সাম্রাজ্যবাদী মার্কিনীদের বটমলেস বাস্কেট থিওরী জনকের বিরুদ্ধে সিআই-এর এক গভীর ষড়যন্ত্রের চালে পরিণত হয়। চারদিকের গুটানো ফাঁদ আর পরিস্থিতির প্রতিকূলতা আগস্টের ঘাতক চারিত্রকে এনে দিয়েছে পরিণতির মুখ্যকেন্দ্র।



আগস্ট কোনো নিছক উর্দিধারীদের ঘটনা নয়। আগস্ট নিছক কোনো রাষ্ট্রব্যবস্থার অস্থিরতা নয়। আগস্ট মূলত সাম্রাজ্যবাদ, সামপ্রদায়িকতা, আঞ্চলিক রাজনীতি আর পরাজিত গোষ্ঠীর সম্মিলিত মঞ্চায়ন, যারা বাঙালিকে অভিভাবকশূন্য করে মানচিত্র হতে নিশ্চিহ্ন করতে চেয়েছিল। কিন্তু ইতিহাসের নিরপেক্ষতা, জনকের আদর্শ আর সময়ের সমন্বয়ে বাঙালি আবার ঘুরে দাঁড়িয়েছে একুশ বছর পরে হলেও। জনক দুহিতার মমতাময়ী হাত ধরে আধুনিক বাংলাদেশ আজ পথ চলতে শুরু করেছে মহাসড়কে। আগস্ট তাই কেবল শোকের নয়, আত্মপ্রত্যয় ও আত্মনির্মাণেরও মাস। শোকের আগস্টে মনন শক্তির উদ্বোধনে আমরা আজ শ্রদ্ধা জানাই জনকের পবিত্র স্মৃতিতে।



 


করোনা পরিস্থিতি
বাংলাদেশ বিশ্ব
আক্রান্ত ৩,৩৯,৩৩২ ২,৯২,০১,৬৮৫
সুস্থ ২,৪৩,১৫৫ ২,১০,৩৫,৯২৬
মৃত্যু ৪,৭৫৯ ৯,২৮,৬৮৬
দেশ ২১৩
সূত্র: আইইডিসিআর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
আজকের পাঠকসংখ্যা
৯৭৮৫৪৮
পুরোন সংখ্যা