চাঁদপুর, মঙ্গলবার ৩১ মার্চ ২০২০, ১৭ চৈত্র ১৪২৬, ০৫ শাবান ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • চাঁদপুর বন্দর কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাককে দায়িত্ব অবহেলার দায়ে বরখাস্ত এবং স্ট্যান্ড রিলিজ। নতুন কর্মকর্তা আবুল বাসার মজুমদার
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৬৯-সূরা হাক্কা ঃ


৫২ আয়াত, ২ রুকু, মক্কী


 


২০। 'আমি জানিতাম যে, আমাকে আমার হিসাবের সম্মুখীন হইতে হইবে।'


২১। সুতরাং সে যাপন করিবে সন্তোষজনক জীবন;


২২। সুউচ্চ জান্নাতে


 


আল হাদিস


 


যা ইচ্ছা আহার করতে পারো, যা ইচ্ছা পরিধান করতে পারো, যদি তোমাকে অপব্যয় ও গর্ব স্পর্শ না করে।


বাণী চিরন্তন


মধুর ব্যবহার লাভ করতে হলে মাধুর্যময় ব্যক্তিত্বের সংস্পর্শে আসতে হয়। -উইলিয়াম উইন্টার।


 


 


 


 


 


assets/data_files/web

যে যা বলে বলুক, তুমি তোমার নিজের পথে চল।


-দান্তে।


 


 


পুরাতন কাপড় পরিধান করো, অর্ধপেট ভরিয়া পানাহার করো, ইহা নবীসুলভ কার্যের অংশ বিশেষ।


 


ফটো গ্যালারি
চাঁদপুরে ৩শ’ দরিদ্র মানুষের খাবারের ব্যবস্থা করলো জেলা প্রশাসন
৩১ মার্চ, ২০২০ ১৭:০০:১৯
প্রিন্টঅ-অ+


করোনা ভাইরাস প্রতিরোধকালীন হতদরিদ্র ও খেটে খাওয়া শ্রমিকদের মধ্যে ৩শ’ জনের প্রতিদিনের দুপুরের খাবারের ব্যবস্থা করেছে চাঁদপুরের জেলা প্রশাসন। গতকাল ৩০ মার্চ সোমবার দুপুরে শহরের আল-আরাফ হোটেল, চাঁদপুর হোটেল ও নতুন বাজার ক্যাফে ঝীলে এ খাবারের আয়োজন করা হয়।

এর মধ্যে চাঁদপুর হোটেল ও আল-আরাফ হোটেলে টেবিলে বসেই ২শ’ দরিদ্র মানুষ দুপুরের খাবার গ্রহণ করেন। আর ক্যাফে ঝীলে ১শ’ মানুষের হাতে খাবারের প্যাকেট তুলে দেয়া হয়।

উল্লেখিত ৩টি হোটেলের খাবার পরিবেশন পরিদর্শন ও প্যাকেট খাবার বিতরণ করেন চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান। উপস্থিত ছিলেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মেহেদী হাসান মানিক ও চাঁদপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা বাবু।

আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান বলেন, জেলা প্রশাসনের ভিক্ষুকমুক্ত তহবিল থেকে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধকালীন ক্ষতিগ্রস্ত লোক ও খেটে খাওয়া মানুষদের প্রতিদিন একবার খাবারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। খাবারের মধ্যে রয়েছে, রুটি/ভাত, তরকারি, ডাল ও সবজি। ভাইরাস প্রতিরোধকালীন এভাবে খাবার বিতরণ অব্যাহত থাকবে।

এছাড়াও জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে চাঁদপুর শহরের গরিবদের মাঝে চাল বিতরণ, জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে সততা স্টোর, দুটি ডিপার্টমেন্টাল স্টোরে ২০% ছাড়ে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য বিক্রি, একটি ফার্মেসি ও একটি হাসপাতালে একেবারে প্রয়োজনীয় ঔষধের ৫০% কম মূল্যে বিক্রি করা হচ্ছে। এসব ঔষধের ৫০% টাকা জেলা প্রশাসন পরিশোধ করবে।


আজকের পাঠকসংখ্যা
৭৭৩৬৯৭
পুরোন সংখ্যা