চাঁদপুর, বৃহস্পতবিার ৩০ জানুয়ারি ২০২০, ১৬ মাঘ ১৪২৬, ৪ জমাদউিস সানি ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • শাহরাস্তিতে ডাকাতি মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড ও ৪ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে চাঁদপুরের জেলা ও দায়রা জজ আদালত। || 
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৬৪-সূরা তাগাবুন


১৮ আয়াত, ২ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


১২। তোমরা আল্লাহর আনুগত্য কর এবং রাসূলের আনুগত্য কর; যদি তোমরা মুখ ফিরাইয়া লও, তবে আমার রাসূলের দায়িত্ব কেবল স্পষ্টভাবে প্রচার করা।


 


assets/data_files/web

যে তার দেশকে ভালোবাসতে পারে না, কিছুই সে ভালোবাসতে পারে না। -বায়রন।


 


নিশ্চয় আল্লাহ অত্যাচারীকে শাস্তি প্রদান করেন।...কোন দেশ যখন অত্যাচারী হয়, তোমার প্রভু তাকে শাস্তি প্রদান করেন, তার শাস্তি অতীব ভীষণ।


 


 


 


 


ফটো গ্যালারি
ফরিদগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগীদের দুর্ভোগ
এক্স-রে মেশিন প্যাকেট বন্দী, অ্যানালাইজার অচল!
এমকে মানিক পাঠান
৩০ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


রোগ নির্ণয়ের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার আশায় ৩১ শয্যাবিশিষ্ট ফরিদগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রতিদিন হাজির হন অসহায় রোগীরা। কিন্তু এখানে দীর্ঘমাস ধরে প্যাকেট বন্দী হয়ে পড়ে আছে নতুন এক্স-রে মেশিন। ফলে রোগীদের কাক্সিক্ষত চিকিৎসা পেতে দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে।

আবার অ্যানালাইজার মেশিন থাকলেও তা অকেজো হয়ে আছে। পাশাপাশি রয়েছে জনবল সঙ্কট। এ নিয়ে উপজেলার প্রায় ৫ লক্ষাধিক জনসাধারণ অধ্যুষিত ফরিদগঞ্জ উপজেলায় অসহায় রোগীরা তাদের প্রাপ্য সরকারি চিকিৎসাসেবা নিতে নানা দুর্ভোগ পোহাচ্ছে।

প্যাথলজি বিভাগে রোগ নির্ণয়ের জন্যে ২ জন মেডিকেল টেকনোলোজিস্টের স্থলে আছে মাত্র ১ জন। সাবেক সাংসদ ড. মোহাম্মদ শামছুল হক ভূঁইয়ার বদৌলতে ওই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত সাবেক ইউএইচপিও ডাঃ জাহাংগীর আলম শিপনের প্রচেষ্টায় অত্যাধুনিক মানের একটি এক্স-রে মেশিন পাওয়া গেলেও তা কক্ষ সঙ্কটের কারণে চালু করা যাচ্ছে না। এছাড়াও মাত্র দেড়-দুই লাখ টাকার অভাবে সরকারি নতুন অ্যানালাইজার মেশিন আনতে পারছে না সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। সরকারি বরাদ্দ না পাওয়ায় এ মেশিন সংগ্রহ করা সম্ভব না হওয়ায় হাসপাতালে আগত অসহায় শত শত নারী-পুরুষ তাদের রোগ নির্ণয়ের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। বাধ্য হয়ে চড়া মূল্যে অন্যত্র পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে গিয়ে বিপাকে পড়তে হচ্ছে রোগীদেরকে।

এ নিয়ে টেকনোলোজিস্ট গোলাম ফারুক তফাদার বলেন, প্যাথলজিতে দুজন টেকনোলোজিস্টের স্থলে আমি একজন থাকায় রোগ নির্ণয়ের জন্যে আমাকে হিমশিম খেতে হচ্ছে।  দীর্ঘদিন থেকে অচল হয়ে আছে অ্যানালাইজার মেশিনটি।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডাঃ আশরাফ আহাম্মেদ চৌধুরী গতকাল বুধবার এ প্রতিনিধিকে বলেন, হাসপাতালের নির্মাণাধীন নূতন ভবনের কাজ শেষ না হওয়ায় নূতন এক্স-রে মেশিনটি স্থাপন করা সম্ভব হচ্ছে না। এছাড়া নতুন একটি অ্যানালাইজার মেশিন সরবরাহের জন্যে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে চিঠি প্রেরণ করা হয়েছে।  





 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৯৮৫৪৩২
পুরোন সংখ্যা