চাঁদপুর , শুক্রবার ২৪ জানুয়ারি ২০২০, ১০ মাঘ ১৪২৬, ২৭ জমাদউিল আউয়াল ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • --
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৬৪-সূরা তাগাবুন


১৮ আয়াত, ২ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


৭। কাফিররা ধারণা করে যে, উহারা কখনও পুনরুত্থিত হইবে না। বল, 'নিশ্চয়ই হইবে, আমার প্রতিপালকের শপথ! তোমরা অবশ্যই পুনরুত্থিত হইবে। অতঃপর তোমরা যাহা করিতে তোমাদিগকে সে সম্বন্ধে অবশ্যই অবহিত করা হইবে। ইহা আল্লাহর পক্ষে সহজ।'


 


 


assets/data_files/web

একজন জ্ঞানী এবং ভালো লোক কখনো হতাশায় ভোগে না।


-ক্যারয়িাস ম্যক্সিমাস।





 


 


যারা ধনী কিংবা সবলকায়, তাদের ভিক্ষা করা অনুচিত।


 


 


 


ফটো গ্যালারি
শ্রমিকদের মাঝে মুন্সিরহাট সিএনজি শ্রমিক ইউনিয়ন উপ-কমিটির ২৫০টি জ্যাকেট বিতরণ
স্টাফ রিপোর্টার
২৪ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


চাঁদপুর জেলা সিএনজি চালিত অটোরিকশা ট্যাঙ্কি্যাব সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন (রেজিঃ নং২৫০৩)-এর অধীনস্থ মতলব দক্ষিণ উপজেলার মুন্সিরহাট উপ-কমিটির উদ্যোগে ২৫০ জন শ্রমিকের মাঝে শীতের পোশাক জ্যাকেট বিতরণ করা হয়।



মতলব দক্ষিণ উপজেলার মুন্সিরহাট উপ-কমিটির সভাপতি সভাপতি মোঃ হুমায়ন কবিরের পরিচালনায় ও জেলা সিএনজি শ্রমিক ইউনিয়ন (২৫০৩)-এর সভাপতি কাজী শাহরিয়ার হোসেন ওমর ফারুকের সভাপতিত্বে উক্ত জ্যাকেট বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুর-২ আসনের সংসদ আলহাজ্ব অ্যাডঃ মোঃ নুরুল আমিন রুহুল এমপি। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন মতলব দক্ষিণ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এএইচএম গিয়াস উদ্দিন।



উক্ত অনুষ্ঠানে ২৫০ জন দুঃস্থ শ্রমিকের মাঝে ২৫০টি উন্নতমানের শীতের পোশাক জ্যাকেট বিতরণ করা হয়।



উক্ত সভায় জেলা সিএনজি চালিত অটোরিকশা ট্যাঙ্কি্যাব সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন (রেজিঃ-২৫০৩) সভাপতি কাজী শাহরিয়ার হোসেন ওমর ফারুক সভাপতির বক্তব্যে মাননীয় এমপি আলহাজ্ব অ্যাডঃ মোঃ নুরুল আমিন রুহুল ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিনের দৃষ্টি আকর্ষণ করে তাঁর বক্তব্যে উক্ত শ্রমিক ইউনিয়নের শ্রমিকদের বিভিন্ন দুঃখ দুর্দশা ও সমস্যার কথা তুলে ধরে এমপি মহোদয়ের সহযোগিতা চান। পাশাপাশি তিনি দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, সরকারের স্থানীয় সরকারের অন্যতম প্রতিষ্ঠান হলো পৌরসভা। এ প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে দেশের তৃণমূল পর্যায়ের উন্নয়ন হয়। আর এ উন্নয়নে যে অর্থ ব্যয় হয় তার বড় একটি অংশ আসে আমাদের শ্রমিকদের কষ্টের টাকায়। অর্থাৎ পৌর পরিষদের আয়ের অন্যতম উৎস হচ্ছে সিএনজি অটোরিকশা, ট্যাঙ্কি্যাব থেকে টোল সংগ্রহ। প্রতি বছর টেন্ডারের মাধ্যমে ঠিকাদার নিয়োগ অথবা পৌর পরিষদ তাদের নিজস্ব লোক নিয়োগ দিয়ে এ টোল আদায় করে। তিনি বলেন, মাননীয় এমপি মহোদয়, এ উপজেলার আমার সকল সিএনজি চালিত অটোরিকশা, ট্যাঙ্কি্যাব সড়ক পরিবহনের শ্রমিক ভাইগণ পৌরসভা কর্তৃপক্ষের নির্ধারিত টোল দীর্ঘ বহু বছর যাবত দিয়ে আসলেও আমার শ্রমিক ভাইদের জন্য নির্ধারিত কোনো স্ট্যান্ড না থাকায় এ শ্রমিকরা প্রতিনিয়ত নির্যাতিত নিপীড়নের শিকার হচ্ছেন। শুধু তাই নয়, এ কারণে আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়। এ অবস্থায় এ শ্রমিকগণ মানবেতর জীবনযাপন করতে হচ্ছে। এ বিষয়ে তিনি এমপির দৃষ্টি আকর্ষণ করলে এমপি মহোদয় তাৎক্ষণিক এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহণ করার নির্দেশ প্রদান করেন।



 



 


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
৪৯৯৬১৫
পুরোন সংখ্যা