চাঁদপুর, বুধবার ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ২৮ কার্তিক ১৪২৬, ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৭-সূরা হাদীদ


২৯ আয়াত, ৪ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


২৭। অতঃপর আমি তাহাদের পশ্চাতে অনুগামী করিয়াছিলাম আমার রাসূলগণকে এবং অনুগামী করিয়াছিলাম মারইয়াম তনয় ঈসাকে, আর তাহাকে দিয়াছিলাম ইঞ্জীল এবং তাহার অনুসারীদের অন্তরে দিয়াছিলাম করুণা ও দয়া। আর সন্নাসবাদ-ইহা তো উহারা নিজেরাই আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের জন্য প্রত্যাবর্তন করিয়াছিল। আমি উহাদের ইহার বিধান দেই নাই; অথচ ইহাও উহারা যথাযথভাবে পালন করে নাই। উহাদের মধ্যে যাহারা ঈমান আনিয়াছিল, উহাদিগকে আমি দিয়াছিলাম পুরস্কার এবং উহাদের অধিকাংশই সত্যত্যাগী।


 


 


অপ্রয়োজনে প্রকৃতি কিছুই সৃষ্টি করে না। -শংকর।


 


 


কবর এবং গোসলখানা ব্যতীত সমগ্র দুনিয়াই নামাজের স্থান।


 


 


 


ফটো গ্যালারি
পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) উপলক্ষে ইফার আলোচনা
ধর্ম পালনে শান্তি হয়, বিভেদ নয়
----------আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল
স্টাফ রিপোর্টার
১৩ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


চাঁদপুরে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের (ইফা) জেলা কার্যালয়ে গতকাল মঙ্গলবার সকালে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) উদ্যাপন উপলক্ষে সাবীনা খতম, ইসলামিক সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ, আলোচনা ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।



এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল। তিনি বলেন, ইসলাম শন্তির ধর্ম। ধর্ম পালনে শান্তি হয়। বিভেদ নয়। আজকে কিছু সংখ্যক লোক ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি করতে চায়। বাংলাদেশে এ দিবস পালন নতুন কিছু নয়। ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) যুগ যুগ ধরে মুসলিম সমাজ পালন করছে। এদেশের ওলামায়ে কেরাম রবিউল মাসে ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) নিয়ে আলোচনা করেন এবং বাকী এগার মাস সীরাতুন্নবী (সাঃ) নিয়ে আলোচনা করেন। তিনি আরো বলেন, দেশ স্বাধীন হওয়ার পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান রাষ্ট্রীয়ভাবে ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) পালনের ঘোষণা দেন। সেই ধারাবাহিকতায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) গুরুত্ব ও তাৎপর্য নিয়ে পালন করতে নির্দেশ দিয়েছেন। মানুষ এখন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে সহজভাবে হজ্ব পালন করতে পারছেন। এটা সরকারের বড় একটা সফলতা। এছাড়া ইসলামী সাংস্কৃতিক চর্চা ও মডেল মসজিদ প্রতি উপজেলায় তৈরি হচ্ছে।



ইফার উপ-পরিচালক মোহাম্মদ খলিলুর রহমানের সভাপ্রধানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন দৈনিক চাঁদপুর কণ্ঠের বার্তা সম্পাদক এএইচএম আহসান উল্লাহ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন ঈফার ফিল্ড অফিসার মোঃ বিল্লাল হোসেন।



অনুষ্ঠান পরিচালনায় ছিলেন ইফার সদর উপজেলা ফিল্ড সুপার ভাইজার মুহাম্মদ শামসুদ্দিন। অনুষ্ঠানে মিলাদ-কিয়াম পরিচালনা করেন চাঁদপুর দারুচ্ছুন্নাত দীনিয়া মাদ্রাসার শিক্ষক হাফেজ মাওঃ মোঃ মনির হোসাইন। দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন জেলা ইমাম মুয়াজ্জিন কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক মাওঃ মোঃ আব্দুর রহমান গাজী।



অনুষ্ঠানের প্রথমে ইফার মসজিদ ভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা এবং কুরআন শিক্ষা কেন্দ্রের শিক্ষকগণ সাবীনা খতম পড়েন এবং বিভিন্ন স্কুল মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা ইসলামী সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় অংশ নেন। পরে বিজয়ীদের মাঝে প্রধান অতিথি পুরস্কার ও সনদ তুলে দেন।



 


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৯১৬৮৯
পুরোন সংখ্যা