চাঁদপুর, শনিবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৬ আশ্বিন ১৪২৬, ২১ মহররম ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৫-সূরা রাহ্মান


৭৮ আয়াত, ৩ রুকু, মাদানী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


৭৫। সুতরাং তোমরা উভয়ে তোমাদের প্রতিপালকের কোন্ অনুগ্রহ অস্বীকার করিবে?


৭৬। উহারা হেলান দিয়া বসিবে সবুজ তাকিয়ায় ও সুন্দর গালিচার উপরে।


৭৭। সুতরাং তোমরা উভয়ে তোমাদের প্রতিপালকের কোন্ অনুগ্রহ অস্বীকার করিবে?


৭৮। কত মহান তোমার প্রতিপালকের নাম যিনি মহিমময় ও মহানুভব!


 


 


 


 


assets/data_files/web

হিংসা একটা দরজা বন্ধ করে অন্য দুটো খোলে।


-স্যামুয়েল পালমার।


 


 


কাহারো উপর অত্যাচার করা হইলে সে যদি সবর করিয়া চুপ থাকিতে পারে, আল্লাহ তাহার সম্মান বৃদ্ধি করিয়া দেন।


 


ফটো গ্যালারি
এবার দক্ষিণাঞ্চলের ইলিশে ঠাসা চাঁদপুর মাছঘাট
মিজানুর রহমান
২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


এতোদিন চাঁদপুর ঘাটে ইলিশের চাপ ছিলো কম। গত তিনদিন ধরে দক্ষিণাঞ্চলের জেলাগুলোতে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ ধরা পড়ায় সেই ইলিশে ঠাসা চাঁদপুর মাছঘাট।



গত দুদিনে ৫/৬ হাজার মণেরও বেশি ইলিশ চাঁদপুর থেকে মোকামে সরবরাহ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।



আড়তে ইলিশের ব্যাপক আমদানি লক্ষ্য করা গেলেও দাম এখনো চড়া। কেজিওয়ালা প্রতি মন ইলিশ ৩২ থেকে ৩৫ হাজার টাকায় পাইকারি বিক্রি হচ্ছে। অন্যান্য সাইজের ইলিশের মণ ঊনিশ থেকে বিশ-বাইশ হাজার টাকা। অর্থাৎ ছোট আকারের ইলিশ কিনতে হলে কেজি পড়ছে পাঁচশ' টাকার উপরে। মধ্যম সাইজের ইলিশের কেজি সাত/আটশ' টাকা।



সাধারণ মানুষ ইলিশ কিনতে পারছেন না। দাম শুনে অবাক হচ্ছেন। এতো ইলিশ কিন্তু দাম না কমায় হতাশ নিম্ন আয়ের মানুষ। বেশি আমদানিতেও খুশি নন তারা।



শুক্রবার বিকেলে ঘাটে গিয়ে দেখা যায়, শবেবরাত হাজী, বাবুল হাজী, ছোট রব চোকদার, কৃষ্ণা, গফুর জমাদারের আড়তে প্রচুর ইলিশ এসেছে। আগের দিন কালু ভূঁইয়া, ইকবাল বেপারী, কুদ্দুছ খাঁ, উত্তম দের আড়তে অনেক মাছ বিক্রি হয়েছে। এসব আড়তে নদী পথে ফিশিং বোট বোঝাই হয়ে এবং সড়ক পথে ট্রাক-পিকআপে করে শত শত মণ ইলিশ চাঁদপুর ঘাটে আনা হয়।



ভোলার চরফ্যাশন সামরাজ ঘাটের ইলিশ পাইকার নেয়ামত (৪৮) জানায়, প্রায় ত্রিশ মণ ইলিশ বাবুল হাজীর আড়তে বিক্রি করেছেন। ভালো দাম পাওয়ায় খুশি হয়েছেন।



তিনি বলেন, গত দুই তিনদিন দক্ষিণাঞ্চলের কালকিনি, ডালচর, সামরাজ, পাতিলা, মনপুরা, টুরকী এলাকায় জেলেরা এখন বেশি ইলিশ পাচ্ছে।



আগের বেশ কিছুদিন ইলিশ পাওয়া গিয়েছিল হাতিয়ার সাগর জেলেরা। এখন পাচ্ছে দক্ষিণের পটুয়াখালী, ভোলা ও বরিশালের জেলেরা। কিন্তু চাঁদপুরের জেলেদের কপাল মন্দ। এখানকার পদ্মা-মেঘনায় প্রত্যাশিত ইলিশের দেখা মিলছে না। তবে সবাই অপেক্ষা করছেন একুশ দিনের অভিযানের সময়ের জন্য। কারণ ওই সময় মা ইলিশ পেটে ডিম নিয়ে চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনায় ধাবিত হবে এবং প্রজননের জন্যে ডিম ছাড়বে। ঠিক তখন দেখা মিলবে এই নদীতে নিষেধাজ্ঞা সময়ে ইলিশের। নিষেধাজ্ঞা শেষ হলে উৎসব চলবে ইলিশ ধরার।


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
৩২৫৪২৯
পুরোন সংখ্যা