চাঁদপুর, রোববার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩১ ভাদ্র ১৪২৬, ১৫ মহররম ১৪৪১
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৬ সূরা-ওয়াকি'আঃ


৯৬ আয়াত, ৩ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


৮৬। তোমরা যদি কর্তৃত্বাধীন না হও,


৮৭। তবে তোমরা উহা ফিরাও না কেনো? যদি তোমরা সত্যবাদী হও!


৮৮। যদি সে নৈকট্যপ্রাপ্তদের একজন হয়,


 


 


assets/data_files/web

সমাজতন্ত্রই শোষিত নির্যাতিত জনগণের মুক্তির একমাত্র পথ।


-লেনিন।


 


 


ন্যায়পরায়ণ বিজ্ঞ নরপতি আল্লাহর শ্রেষ্ঠ দান এবং অসৎ মূর্খ নরপতি তার নিকৃষ্ট দান।


 


 


 


ফটো গ্যালারি
জেলা প্রশাসকের হস্তক্ষেপ কামনা
বাবুরহাটে পল্লী বিদ্যুতের অবৈধ সংযোগ
মোঃ মিজানুর রহমান
১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


চাঁদপুর পল্লীবিদ্যুতের কর্মকর্তারা দুর্নীতির ঘটনা একের পর এক ঘটিয়েই যাচ্ছে। থেমে নেই তাদের অবৈধ আয়ের উৎস। এ বিষয়ে দৈনিক চাঁদপুর কণ্ঠে কয়েকবার সংবাদ প্রকাশিত হলেও টনক নড়েনি প্রশাসনের, বন্ধ হয়নি পল্লী বিদ্যুতের দুর্নীতি। এখন আবার তারা অবৈধ সংযোগ দিয়ে বিপুল অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে।



চাঁদপুর শহরতলীর বাবুরহাট এলাকায় চাঁদপুর-কুমিল্লা সড়কের পাশে সড়ক বিভাগের জায়গায় অবৈধভাবে গড়ে ওঠা দোকানগুলোতে বিদ্যুৎ সংযোগ দিচ্ছে চাঁদপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ এর লোকজন। সরজমিনে দেখা যায়, চাঁদপুর কুমিল্লা সড়কের পাশে বাবুরহাট উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের সামনে সড়ক বিভাগের রাস্তার উপর অবৈধভাবে যে দোকানগুলো নির্মিত হয়েছে সে দোকানগুলোতে পল্লীবিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ একটি খুঁটি বসিয়ে সেটি থেকে ১৪টি মিটার স্থাপন করে এই মিটার থেকে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হচ্ছে, যা সম্পূর্ণ অবৈধ। বিষয়টি নিয়ে বাবুরহাট এলাকায় ব্যাপক গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে।



এ বিষয়ে সংযোগ গ্রহীতা দোকানগুলোর সাথে কথা বললে তারা জানান, কীভাবে সংযোগ দেয়া হচ্ছে তারা এ বিষয়ে কিছুই জানে না, তারা শুধু টাকা দিয়েছেন। রমিজ কন্ট্রাক্টর নামে পল্লী বিদ্যুতের কেউ একজন তাদের সব ম্যানেজ করে দিয়েছে। কত টাকা দিয়েছেন এমন প্রশ্নের জবাবে তারা বলেন কেউ ৫ হাজার বা কেউ ১০ হাজার টাকা করে দিয়েছেন। এ বিষয়ে ঠিকাদারের সাথে ফোনে আলাপকালে তিনি কিছুই জানেন না বলে মোবাইল ফোন কেটে দেন এবং পরে অনেকবার ফোন দেয়া হলেও তিনি তা রিসিভ করেন নি।



এ বিষয়ে চাঁদপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২-এর জিএম মোঃ আবু তাহের ও ডিজিএম কমলেশ চন্দ্র বর্মনের কাছে জানতে চাইলে তারা জানান, এখন তারা অফিসের বাইরে আছেন, এ বিষয়ে কিছুই জানেন না।



বাবুরহাট এলাকায় কুমিল্লা সড়কের পাশে দিনের বেলা অবৈধভাবে গড়ে ওঠা দোকানগুলোতে পল্লী বিদ্যুতের এমন কার্যক্রমে হতবাক ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে সচেতন মহল।



এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, স্কুলের সামনে সড়ক বিভাগের সম্পত্তিতে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা দোকানগুলো মূলত মাদকসেবী ও বখাটেদের আড্ডার স্থল। জানা যায়, বিভিন্ন স্থানের মাদকসেবী ও বখাটে যুবকরা এ দোকানগুলোর পেছনে বসে মাদক সেবন করে এবং ছুটির পর সামনে বেরিয়ে এসে স্কুল-কলেজের ছাত্রীদের নানাভাবে উত্ত্যক্ত করে। বিষয়টি চাঁদপুর জেলা প্রশাসকের দৃষ্টি আকর্ষণ পূর্বক জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছে এলাকার সচেতন মহল।



 



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
৫৮৪৫৭৭
পুরোন সংখ্যা