চাঁদপুর, মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০১৯, ১ শ্রাবণ ১৪২৬, ১২ জিলকদ ১৪৪০
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৩-সূরা নাজম


৬২ আয়াত, ৩ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


২৪। মানুষ যাহা চায় তাহাই কি সে পায় ?


২৫। বস্তুত ইহকাল ও পরকাল আল্লাহরই।


২৬। আকাশে কত ফিরিশতা রহিয়াছে ; উহাদের সুপারিশ কিছুমাত্র ফলপ্রসূ হইবে না, তবে আল্লাহর অনুমতির পর; যাহার জন্য ইচ্ছা করেন ও যাহার প্রতি তিনি সন্তুষ্ট।


 


 


 


assets/data_files/web

যাকে মান্য করা যায় তার কাছে নত হও। -টেনিসন।


 


 


যারা ধনী কিংবা সবকালয়, তাদের ভিক্ষা করা অনুচিত।


 


 


ফটো গ্যালারি
সকল মাধ্যমের শিক্ষার্থীর জন্যে কারিগরি শিক্ষা বাধ্যতামূলক করা হবে
--------------------------শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপি
১৬ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপি বলেছেন, ২০২১ সালের মধ্যে দেশের সকল বাংলা ও ইংরেজি মাধ্যমের স্কুল ও মাদ্রাসায় কারিগরি শিক্ষা বাধ্যতামুলক করা হবে। ৬ষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণী পর্যন্ত প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে কমপক্ষে একটি ট্রেডে পড়াশোনা করতে হবে। এ উদ্যোগ এ জন্যে যে, যদি কোনো শিক্ষার্থী এসএসসি পাস করার পর আর পড়াশোনা না করে তাহলে সে যেনো বেকার না থাকে।



তিনি গতকাল সোমবার সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ আয়োজিত বিশ্ব যুব দক্ষতা দিবস-২০১৯ উপলক্ষে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন। আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব সাজ্জাদুল হাসানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ইমরান আহমদ প্রমুখ।



শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমরা বর্তমানে এক ধরনের অসুস্থ প্রতিযোগিতার মধ্যে আছি। আমরা জিপিএ-৫ পাওয়ার প্রতিযোগিতায় লিপ্ত। কিন্তু জিপিএ-৫ দিয়ে কী হবে? আমাদের দরকার শিক্ষাজীবন শেষে কর্মক্ষেত্রে কতটা দক্ষতা দেখাতে পারি তার বিচার। তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের মধ্যে কমিউনিকেশন বিষয়ে দক্ষতার অভাব আছে। আমাদের শিক্ষার্থীদের শোনার দক্ষতা এবং বলার দক্ষতা তৈরি করতে হবে।



বিশ্ব যুব দক্ষতা দিবস উপলক্ষে গতকাল সকালে এক সচেতনতামূলক র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়। শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনির নেতৃত্বে র‌্যালিটি সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজা থেকে শুরু হয়ে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কক্ষে গিয়ে শেষ হয়। দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য বিষয়: জীবন ও কাজের জন্য শিখতে শেখা।



জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের লক্ষ্য হলো শিক্ষিত যুবসমাজকে ভবিষ্যৎ কর্মক্ষেত্র সম্পর্কে সঠিক ধারণা প্রদান, কর্মসংস্থান উপযোগী প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা, শিল্পের সাথে প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ও প্রশিক্ষণার্থীদের সংযোগ সৃষ্টির মাধ্যমে কর্মসংস্থানের সুযোগ বৃদ্ধি, স্ব-উদ্যোগে প্রশিক্ষিতদের মূল্যায়নের মাধ্যমে সনদায়নের ব্যবস্থা করে প্রাতিষ্ঠানিক কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করা, দেশে ও আন্তর্জাতিক শ্রম বাজারে তথ্য ও উপাত্ত সংগ্রহের মাধ্যমে শ্রমবাজারের পূর্বাভাস, বাজার উপযোগী দক্ষ জনবল তৈরি, প্রশিক্ষণ কারিকুলাম আধুনিকায়ন ও যুগোপযোগীকরণ, প্রশিক্ষক ও প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানের মান উন্নয়ন, প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান নিবন্ধন, প্রশিক্ষণ কারিকুলাম অনুমোদন, প্রশিক্ষণার্থী নিবন্ধন এবং সনদায়নের মতো বিশাল কর্মকা- জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ-এর আওতাভুক্ত।



 


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
৭৩৭৭৯০
পুরোন সংখ্যা