চাঁদপুর, শুক্রবার ১২ জুলাই ২০১৯, ২৮ আষাঢ় ১৪২৬, ৮ জিলকদ ১৪৪০
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • --
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৫৩-সূরা নাজম


৬২ আয়াত, ৩ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


 


assets/data_files/web

গণমানুষকে জাগিয়ে তোলার জন্য কবিতা অস্ত্রস্বরূপ।


-কাজী নজরুল ইসলাম।


 


 


প্রত্যেক কওমের জন্য একটি পরীক্ষা আছে এবং আমার উম্মতদের পরীক্ষা তাদের ধন-দৌলত।


 


ফটো গ্যালারি
ছেলেধরা আর পদ্মা সেতুতে মাথা লাগা নিছক গুজব
কামরুজ্জামান টুটুল
১২ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


ছেলেধরা আর পদ্মা সেতুতে মানুষের মাথা লাগবে এটি নিছক গুজব। পদ্মা সেতুতে মাথার জন্যে ছেলেধরা হচ্ছে এমন গুজবে অভিভাবকরা ভুগছেন অস্বস্তিতে। অমুক স্থান থেকে ২ শিশুকে নিয়ে গেছে, অমুক মাদ্রাসা থেকে ৩ ছাত্রকে নিয়ে গেছে, অমুক স্থানে ২ শিশুসহ এক নারীকে ধরেছে_ঠিক এমন গুজবে গত কয়েকদিন সারাদেশ সরগরম। মূলত জেলার কোথাও বাস্তবে কোনো ছেলেধরা অটক হয়েছে কিংবা শিশু উদ্ধার হয়েছে বলে কেউ স্পষ্ট করে বলতে পারছে না। পদ্মা সেতুতে মাথা লাগবে এমন গুজবে কান না দিয়ে আইন নিজের হাতে না নিতে ইতিমধ্যে পুলিশ সুপার কার্যালয় থেকে নির্দেশনা জারি করা হয়েছে। ওই নির্দেশনার কপি জেলার সকল থানায় প্রেরণ করা হয়েছে, যা সংশ্লিষ্ট থানার অফিসার ইনচার্জগণ তাদের স্ব স্ব ফেসবুক পেজে পোস্ট দিয়েছেন।



পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির বিপিএম, পিপিএম-এর নির্দেশনায় দেখা যায়, পদ্মা সেতুতে মাথা লাগার বিষয়টি নিছক গুজব। এ নিয়ে বিভিন্নস্থানে প্রতিবন্ধী নারীসহ অনেকের উপর হামলা হচ্ছে। বিষয়গুলো নিয়ে আমরা কাজ করছি। যারা গুজব নিয়ে মানুষকে বিভ্রান্তিতে ফেলছেন তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হচ্ছে আর আমরা বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নজর রাখছি।



গণমাধ্যমকর্মী হিসেবে এই প্রতিনিধির কাছে গত কয়েকদিনে বেশ কয়েকটি ফোন আসে ছেলেধরার বিষয়টি জানার জন্যে। চাঁদপুর সদর উপজেলার মনিহার গ্রামের সালাম নামের একজন ঢাকায় কর্মস্থলে বসে শুনেছেন হাজীগঞ্জ থেকে কয়েক শিশুকে ধরে নিয়ে গেছে ছেলেধরা চক্র।



হাজীগঞ্জের বাকিলা এলাকায় গত কয়েক দিনে শিশু নিয়ে যাওয়ার গুজব ডালপালা অনেকখানি মেলেছে বলে স্থানীয়রা চাঁদপুর কণ্ঠকে জানিয়েছেন। তবে সচেতন অভিভাবকগণ বিষয়টি নিয়ে রয়েছেন একেবারে চিন্তামুক্ত।



এ বিষয়ে হাজীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আলমগীর হোসেন জানান, পদ্মা সেতুতে মাথা লাগবে আর ছেলে ধরা সক্রিয় আছে এমন বিষয়টি নিছক গুজব। গুজবে কান দিয়ে কেউ কাউকে মারধর করলে এর পিছনে জড়িতদের আইনের আওতায় আনা হবে।



 



 



 


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
১০১৬৩১৫
পুরোন সংখ্যা