চাঁদপুর। বুধবার ১৪ নভেম্বর ২০১৮। ৩০ কার্তিক ১৪২৫। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪০
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪৩-সূরা যূখরুফ


৮৯ আয়াত, ৭ রুকু, মক্কী


পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।


 


৬৩। 'ঈসা যখন স্পষ্ট নিদর্শনসহ আসিল তখন সে বলিয়াছিল, 'আমি তো তোমাদের নিকট আসিয়াছি প্রজ্ঞাসহ এবং তোমরা যে কতক বিষয়ে মতভেদ করিতেছ, তাহা স্পষ্ট করিয়া দিবার জন্য। সুতরাং তোমরা আল্লাহকে ভয় কর এবং আমার অনুসরণ কর।


দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


 


 


 


যদি বইটা হয় পড়ার মতো তবে তা কেনার মতো বই। -জন রাসকিন।


 


 


 


পবিত্র হওয়াই ধর্মের অর্থ।


 


 


 


ফটো গ্যালারি
সকল দলের অংশগ্রহণে জাতীয় সংসদ নির্বাচন : নূতন করে হিসাব-নিকাশ শুরু
চাঁদপুর কণ্ঠ রিপোর্ট
১৪ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


সারাদেশে চলছে নির্বাচনী ডামাঢোল। এ থেকে চাঁদপুরও পিছিয়ে নেই। এ নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেয়ার প্রক্রিয়া শুরু হওয়ায় ভিন্নমাত্রা যোগ হয়েছে এ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে। ক্ষমতাসীন দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ যেমনি নূতন করে হিসাব-নিকাশ কষতে শুরু করেছে, তেমনি বিএনপিও প্রার্থী নির্বাচনে খুব চিন্তা-ভাবনা এবং নানা হিসাব-নিকাশ করছে। পিছিয়ে নেই রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক ও বিশ্লেষকরাও। তাদেরও চলছে নানা বিচার-বিশ্লেষণ। বিএনপি ছাড়া অন্য সকল দলের অংশগ্রহণে নির্বাচন হলে ছিলো এক হিসাব, আর বিএনপি অংশগ্রহণ করায় এখন হচ্ছে অন্যরকম হিসাব। বিএনপির সাংগঠনিক ভিত অনেকটা দুর্বল এবং কোন্দলে জর্জরিত হলেও তাদের মূল শক্তি হচ্ছে সাধারণ জনগণ। আর এর বিপরীতে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগে রয়েছে বেশ শক্তিশালী সাংগঠনিক ভিত এবং সাথে যোগ হয়েছে রেকর্ড পরিমাণ উন্নয়ন। আরো রয়েছে বিপুল সংখ্যক তরুণ প্রজন্মের সমর্থন। রাজনৈতিক অঙ্গনে বড় দু'টি দলকে নিয়ে এভাবেই বিচার-বিশ্লেষণ করলেন চাঁদপুরের বেশ কিছু প্রবীণ ব্যক্তিত্ব এবং রাজনৈতিক বোদ্ধা। তারা আরো বললেন, তবে সব হিসাব-নিকাশ মিলিয়ে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগেরই পাল্লা ভারী মনে হচ্ছে।



নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত পুনঃতফসিল অনুযায়ী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ হবে ৩০ ডিসেম্বর। মনোনয়নপত্র দাখিলের সর্বশেষ দিন হচ্ছে ২৮ নভেম্বর। নির্বাচন পেছানোয় বিএনপিসহ সমমনা দলগুলো এখন নির্বাচনমুখী। বিএনপি তাদের দলীয় মনোনয়ন ফরম বিতরণ কার্যক্রম শুরু করেছে। আর আওয়ামী লীগের বিতরণ এবং জমা উভয়ই গতকাল মঙ্গলবার শেষ হয়েছে। আওয়ামী লীগ-বিএনপিসহ অন্য কোনো দলই তাদের চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করেনি। চাঁদপুর জেলার পাঁচটি সংসদীয় আসনের মধ্যে সব ক'টিতেই বর্তমানে রয়েছেন সরকার দলীয় সংসদ সদস্য। পাঁচটির মধ্যে চারটিতেই রয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী এবং হেভিওয়েট নেতা। আবার এ চারজনের মধ্যে তিনজন দলেও প্রভাবশালী। এখন দেখার বিষয়, বর্তমান পাঁচ এমপির মধ্যে কারা কারা একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলের মনোনয়ন পাচ্ছেন। তবে নানা সূত্র থেকে আভাস পাওয়া যাচ্ছে-বর্তমান পাঁচজনের মধ্যে পরিবর্তনের সম্ভাবনা খুবই ক্ষীণ। বিএনপি নির্বাচনে আসায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী মনোনয়নের ক্ষেত্রে সার্বিক দিক বিচার-বিশ্লেষণ করছে। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ড এবং সর্বশেষ দলটির প্রধান শেখ হাসিনাকে এ জায়গায় এসে নানা হিসাব মিলাতে হচ্ছে। তবে চাঁদপুরের পাঁচটি আসনের মধ্যে আওয়ামী লীগের বর্তমান এমপিদের দু-একজনকে অনেক আগেই সবুজ সংকেত দেয়া হয়েছে বলে ধারণা করা যাচ্ছে। ইতঃমধ্যে সেই দু-একজনের নির্বাচনী প্রস্তুতি দেখেই মূলত এই ধারণা। তবে পাঁচটি আসনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী এমন ত্রিশেরও অধিক দলের মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন। এর মধ্যে এমনও অনেকে রয়েছেন, যারা নিজেরাও নিশ্চিত যে তারা মনোনয়ন পাবেন না। তারপরও তারা দলকে ভালোবেসে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় অংশ নিয়েছেন এমনটাই তাদের সান্ত্বনা।



এদিকে বিএনপির প্রার্থীর বিষয়ে খোঁজ খবর নিয়ে জানা গেছে, চাঁদপুরের পাঁচটি আসনে কারা পাচ্ছেন দলের মনোনয়ন তা কোনোভবেই অনুমান করা যাচ্ছে না। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের হিসাব মাথায় রাখলে এ জেলার দু-একটি আসনে বিএনপিকে সর্বশেষ ছাড় দিতে হতে পারে বলে ধারণা করা যাচ্ছে। এছাড়া সাবেক এমপি এসএ সুলতান টিটু এবং ফরিদগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি বিশিষ্ট ধনকুবের এমএ হান্নানকে দলে ফিরিয়ে আনায় চাঁদপুরের বিএনপি নেতা-কর্মীদেরও নতুন করে হিসাব-নিকাশ করতে হচ্ছে। শেষ পর্যন্ত জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট এবং পুরাতন দুই নেতাকে ঘরে ফিরিয়ে আনার বিবেচনায় কার কপাল পুড়ে সেটিই দেখার বিষয়।



সব মিলিয়ে আসন্ন নির্বাচনে সকল দলের অংশগ্রহণের প্রক্রিয়া শুরু হওয়ায় নির্বাচন নিয়ে নানা হিসাব-নিকাশ এবং নানা মেরুকরণ চলছে। এটা চলবে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন পর্যন্ত।



 



 



 


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
১০০৮৯১০
পুরোন সংখ্যা