চাঁদপুর। বুধবার ১৫ আগস্ট ২০১৮। ৩১ শ্রাবণ ১৪২৫। ৩ জিলহজ ১৪৩৯
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৪০-সূরা আল মু’মিন

৮৫ আয়াত, ৯ রুকু, মক্কী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

৪৫। অতঃপর আল্লাহ তাকে তাদের চক্রান্তের অনিষ্ট থেকে রক্ষা করলেন এবং ফেরাউন গোত্রকে শোচনীয় আযাব গ্রাস করলো।

৪৬। সকালে ও সন্ধ্যায় তাদেরকে আগুনের সামনে পেশ করা হয় এবং যেদিন কেয়ামত সংঘটিত হবে সেদিন আদেশ করা হবে, ফেরাউন গোত্রকে কঠিনতর আযাবে দাখিল কর।

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন





 


কোনো মহৎ লোকের জীবনই বৃথা যায় না।

-ডব্লিউ এস ল্যান্ডার।


মজুরের গায়ের ঘাম শুকাবার আগেই তার মজুরি দিয়ে দাও।



 


ফটো গ্যালারি
১২ বছর প্রবাসে থেকে দেশে ফিরেই আটক
ঢাকার ওয়ার্ড কাউন্সিলর নিউটন হত্যা মামলার মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামী ফরিদগঞ্জে আটক
প্রবীর চক্রবর্তী
১৫ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


অবিভক্ত ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের মিরপুর ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও ছাত্রদল নেতা সাইদুর রহমান নিউটন হত্যা মামলার মৃত্যুদ-প্রাপ্ত আসামী কাজী ইসমাইল হোসেনকে আটক করেছে ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশ। সোমবার রাতে উপজেলার ৭নং পাইকপাড়া উত্তর ইউনিয়নের বিষের বন্দ গ্রাম থেকে তাকে আটক করে থানা পুলিশের ওসি শাহ আলম ও এসআই ওমর ফারুকের নেতৃত্বে পুলিশ ফোর্স।



পুলিশ সূত্র জানায়, ২০০২ সালে ঢাকায় তৎকালীন ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাইদুর রহমান নিউটন গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন। এই ঘটনায় দায়েরকৃত মামলা (ধানমন্ডি থানার মামলা নং-২৩(৫)/০২) দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে (মামলা নং-২৮/২০০৪) দেয়া হলে আদালত ৭ জন আসামীর মধ্যে ৫ জনকে মৃত্যুদ- ও ২ জনকে যাবজ্জীবন সাজা দেয়। মামলা চলমান অবস্থায় জামিন নিয়ে ৭নং আসামী কাজী ইসমাইল হোসেন বাইরাইনে চলে যান। দীর্ঘদিন প্রবাস জীবন কাটানোর পর গত এক সপ্তাহ পূর্বে তিনি দেশে ফিরে নিজ বাড়ি ফরিদগঞ্জ উপজেলার ৭নং পাইকপাড়া উত্তর ইউনিয়নের বিষেরবন্দ গ্রামে আসেন। পুলিশ গোপন সূত্রে সংবাদ পেয়ে সোমবার রাতে তাকে আটক করে এবং মঙ্গলবার দুপুরে আদালতে প্রেরণ করে।



এদিকে আটককৃত কাজী ইসমাইল হোসেনের বড় ভাই জানান, তার ভাই ২০০২ সালে ঢাকায় গার্মেন্টের ঝুট ব্যবসা করতেন। সেসহ তার পরিবারের সকলেই সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনে কাউন্সিলর নিউটনের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর হয়ে কাজ করেন। নির্বাচনে জয়লাভের কিছুদিন পরই নিউটন খুন হলে তার ভাই কাজী ইসমাইল হোসেনসহ আরো লোকজনকে আসামী করা হয়। আদালতে মামলা চলাকালে সে জামিনে থাকাকালে সড়ক দূর্ঘটনায় আহত হয়। পরবর্তীতে পেটের টানে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ বাহরাইনে যায়। সম্প্রতি সে দেশে ফিরে আসে। এসে জানতে পারে ওই মামলায় ৫ জনের মৃত্যুদ- ও ২ জনের যাবজ্জীবন কারাদ- হলেও উচ্চ আদালতে মৃত্যুদ- প্রাপ্তরা খালাসপ্রাপ্ত হন।



এ ব্যাপারে ফরিদগঞ্জ থানার ওসি শাহ আলম জানান, দীর্ঘদিন প্রবাসে থাকার পর দেশে আসার পর গোপন সূত্রে সংবাদ পেয়ে এই সাজাপ্রাপ্ত আসামীকে আটক করতে সমর্থ হই।



 


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
৪৮৯৬৫১
পুরোন সংখ্যা