চাঁদপুর । সোমবার ১৬ জুলাই ২০১৮ । ১ শ্রাবণ ১৪২৫ । ২ জিলকদ ১৪৩৯
redcricent
jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৩৯-সূরা আয্-যুমার

৭৫ আয়াত, ৮ রুকু, মক্কী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

৪৯। মানুষকে যখন দুঃখ-কষ্ট স্পর্শ করে, তখন সে আমাকে ডাকতে শুরু করে, এরপর আমি যখন তাকে আমার পক্ষ থেকে নেয়ামত দান করি, তখন সে বলে, এটা তো আমি পূর্বের জানা মতেই প্রাপ্ত হয়েছি। অথচ এটা এক পরীক্ষা, কিন্তু তাদের অধিকাংশই বোঝে না।

৫০। তাদের পূর্ববর্তীরাও তাই বলত, অতঃপর তাদের কৃতকর্ম তাদের কোনো উপকারে আসেনি।

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


সাবধানী লোক কদাচিৎ ভুল করে।

 -কনফুসিয়াস।


রাসূল সাঃ বলেছেন, নামাজ আমার নয়নের মণি।  





                        


ফটো গ্যালারি
বিশ্বকাপ ফুটবলে দ্বিতীয়বার শিরোপা জিতলো ফ্রান্স
চৌধুরী ইয়াসিন ইকরাম
১৬ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


অভিজ্ঞতার কাছে যে নূতনদের পরাজয় মানতে হয় সেই বিষয়টা ফ্রান্সের গ্রিজমান, পগবা ও এমবাপেরা বুঝিয়ে দিলেন প্রথম বারের মতো বিশ্বকাপ ফুটবলের ফাইনালে ওঠা ক্রোয়েশিয়াকে। আর বিশ্বকাপ ফুটবলের ইতিহাসে দ্বিতীয়বারের মতো শিরোপা ঘরে তুলে নিলো ফরাসীরা।



খেলার শুরুতে আত্মঘাতী গোলেই অনেকটা বিশ্বকাপের উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচে ছিটকে পড়ে ক্রোয়েশিয়া। পেনাল্টিতে গোল, গোলরক্ষকের মারাত্মক ভুলে গোল, আর দর্শনীয় সব গোলে রাশিয়া বিশ্বকাপের ফাইনালে দর্শকরা দেখলো রোমাঞ্চকর এক লড়াই। যাতে জিতে দ্বিতীয়বারের মতো শিরোপা নিলো ফ্রান্স। হৃদয় ভাঙলো প্রথম শিরোপার স্বপ্ন দেখা ক্রোয়েশিয়া। মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামে গতকাল রোববার রাতে ৪-২ গোলে জিতেছে দিদিয়ের দেশমের দল।



খেলার মাঝামাঝি সময়ে মারিও মানজুকিচের আত্মঘাতী গোলে ফ্রান্স এগিয়ে যাওয়ার পর সমতা ফিরিয়েছিলেন ইভান পেরিসিচ। প্রথমার্ধেই পেনাল্টি থেকে ফ্রান্সকে আবার এগিয়ে দেন অঁতোয়ান গ্রিজমান। দ্বিতীয়ার্ধে দারুণ দুই গোলে ব্যবধান বাড়ান পল পগবা ও কিলিয়ান এমবাপে। গোলরক্ষক উগো লরিসের মারাত্মক ভুলে বল জালে পাঠিয়ে ক্রোয়েশিয়াকে আশা দেখিয়েছিলেন মানজুকিচ। তবে নক-আউট পর্বের আগের তিন ম্যাচের মতো শেষ পর্যন্ত আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি ক্রোয়াটরা। গতকালকের খেলার শুরু থেকে বল দখলে রেখে আক্রমণে এগিয়ে ছিল ক্রোয়েশিয়া। তবে ভালো কোনো সুযোগ তৈরি হয়নি। খেলার ধারার বিপরীতে এগিয়ে যায় ফ্রান্স। ১৮তম মিনিটে ডি-বঙ্রে অনেক বাইরে থেকে গ্রিজমানের ফ্রি-কিক হেডে বিপদমুক্ত করতে চেয়েছিলেন সেমি-ফাইনালের জয়সূচক গোলদাতা মানজুকিচ। বল তার মাথায় ছোঁয়া লেগে জালে ঢোকায় কিছুই করার ছিল না গোলরক্ষক দানিয়েল সুবাসিচের। বিশ্বকাপের ইতিহাসে ফাইনালে এটাই প্রথম আত্মঘাতী গোল।



এর আগে নক-আউট পর্বের তিনটি ম্যাচেই আগে গোল খেয়ে ম্যাচে ফিরেছিল ক্রোয়াটরা। এবারও ফিরতে দেরি হয়নি। ২৮তম মিনিটে ডি-বঙ্রে ভেতর থেকে দুর্দান্ত শটে গোল করেন পেরিসিচ। ফ্রি-কিক থেকে ডি-বঙ্ েআসা বল জটলা থেকে দোমাগোই ভিদা কাটব্যাক করেছিলেন। ডান পা দিয়ে বল আয়ত্তে নিয়ে বাঁ পায়ের জোরালো শটে লরিসকে ফাঁকি দেন সেমি-ফাইনালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সমতা ফেরানো পেরিসিচ। টুর্নামেন্টে এটি এই মিডফিল্ডারের তৃতীয় গোল। দশ মিনিট পর আবার এগিয়ে যায় ফ্রান্স পেনাল্টি থেকে। কর্নার থেকে ডি-বঙ্ েআসা বলে লেগেছিল পেরিসিচের হাতের ছোঁয়া। রেফারি মাঠের বাইরে গিয়ে ভিডিও রিপ্লে দেখে সিদ্ধান্ত দেন স্পট-কিকের। ঠা-া মাথায় টুর্নামেন্টে নিজের চতুর্থ গোলটি করেন গ্রিজমান। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই আবার সমতা ফিরতে পারতো। ইভান রাকিতিচের বাড়ানো বল ধরে আন্তে রেবিচের নেয়া শট দুর্দান্তভাবে ঠেকান লরিস।



খেলার ৫২তম মিনিটে ম্যাচে প্রথমবারের মতো জ্বলে উঠেন এমবাপে। পাল্টা আক্রমণে পগবার বাড়ানো বল ধরে দুর্দান্ত গতিতে ভিদাকে পেছনে ফেলে ডি-বঙ্ েঢুকে শট নিয়েছিলেন পিএসজির এই ফরোয়ার্ড। পা দিয়ে ঠেকান সুবাসিচ। দ্বিতীয়ার্ধেও অনেকটা খেলার ধারার বিপরীতে গোল পেয়ে যায় ফরাসিরা। ৫৯তম মিনিটে বাঁ দিক থেকে দুই ডিফেন্ডারকে ফাঁকি দিয়ে ডি-বঙ্ েএমবাপের বাড়ানো ক্রস ধরে গ্রিজমান বল পাঠান পেছনে থাকা পগবাকে। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের এই মিডফিল্ডারের ডান পায়ের প্রথম শট ফেরে রক্ষণে। ফিরতি বলে বাঁ পায়ের শট যায় জালে। ছয় মিনিট পর দুর্দান্ত গোলে ব্যবধান আরও বাড়ান এমবাপে। বাঁ দিক থেকে লুকা এঁরনদেজের পাসে প্রায় ২২ গজ দূর থেকে নিচু শটে করেন টুর্নামেন্টে তার চতুর্থ গোল। পেলের পর প্রথম টিনএজার হিসেবে বিশ্বকাপের ফাইনালে গোল পেলেন ১৯ বছর বয়সী এই ফরোয়ার্ড। এরপরই লরিসের মারাত্মক ভুল। ব্যাকপাসে বল পেয়ে অযথা এগিয়ে আসা মানজুকিচকে কাটাতে চেয়েছিলেন। পারেননি, মানজুকিচের বুটের টোকায় বল চলে যায় জালে। আশা জাগে ক্রোয়াট শিবিরে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আর ইতিহাস গড়া হয়নি মদ্রিচ-রাকিতিচদের।



ব্রাজিলের মারিও জাগালো ও জার্মানির ফ্রাঞ্জ বেকেনবাওয়ারের পর খেলোয়াড় ও কোচ হিসেবে বিশ্বকাপ জয়ের কীর্তি গড়লেন দেশম। ১৯৯৮ সালে ফ্রান্সের প্রথম বিশ্বকাপ জয়ে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন তিনি।



গতকাল ফাইনাল খেলা উপলক্ষে সারা বিশ্বের মতো চাঁদপুর জেলায়ও ফুটবল ভক্তরা শহরে বড় বড় পর্দায় খেলা দেখেন। বড় কোনো দল ফাইনালে না থাকলেও রাশিয়ার বিশ্বকাপ ফুটবলের ফাইনালে ওঠা দু'দলের খেলা দেখলেন বিশ্ববাসীসহ ফুটবল ভক্তরা। আগামী চার বছর পর কোন্ দেশ বিশ্বকাপ ফুটবল শিরোপা ঘরে তুলবে সেই প্রত্যাশাতেই রইলো ফুটবল ভক্তরা।



 


আজকের পাঠকসংখ্যা
১১৭৮৯৮
পুরোন সংখ্যা