চাঁদপুর। বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮। ২ ফাল্গুন ১৪২৪। ২৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৯

বিজ্ঞাপন দিন

jibon dip

সর্বশেষ খবর :

  • -
হেরার আলো
বাণী চিরন্তন
আল-হাদিস

৩৫-সূরা ফাতির

৫৫ আয়াত, ৫ রুকু, মক্কী

পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু  আল্লাহর নামে শুরু করছি।

১৩। তিনি রাত্রিকে দিবসে প্রবিষ্ট করেন এবং দিবসকে রাত্রিতে প্রবিষ্ট করেন। তিনি সূর্য ও চন্দ্রকে কাজে নিয়োজিত করেছেন। প্রত্যেকটি আবর্তন করে এক নির্দিষ্ট মেয়াদ পর্যন্ত। ইনি আল্লাহ; তোমাদের পালনকর্তা, সা¤্রাজ্য তাঁরই। তাঁর পরিবর্তে তোমরা যাদেরকে ডাক, তারা তুচ্ছ খেজুর আঁটিরও অধিকারী নয়।

১৪। তোমরা তাদেরকে ডাকলে তারা তোমাদের সে ডাক শুনে না। শুনলেও তোমাদের ডাকে সাড়া দেয় না। কেয়ামতের দিন তারা তোমাদের শেরক অস্বীকার করবে। বস্তুতঃ আল্লাহর ন্যায় তোমাকে কেউ অবহিত করতে পারবে না।

দয়া করে এই অংশটুকু হেফাজত করুন


মহৎ কারণে যার মৃত্যু ঘটে সে অপরাজেয়।

-বায়রন।


ঈর্ষা ও পরশ্রীকাতরতা থেকে দূরে থাকবে, কারণ অগ্নি যেমন কাঠ পুড়িয়ে খেয়ে ফেলে, সেইরূপ ঈর্ষাও সৎকার্য খেয়ে নিঃশেষ করে ফেলে।


ফটো গ্যালারি
ফরিদগঞ্জে পানি ব্যবস্থাপনা বিষয়ে ২ দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালায় স্কীম ম্যানেজারগণ
খালে পানি সঙ্কটের কারণে পাম্পগুলো বন্ধ থাকায় চলতি মৌসুমে বোরো চাষ মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা
ফরিদগঞ্জ ব্যুরো
১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅ-অ+


চাঁদপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের আয়োজনে ফরিদগঞ্জে পানি ব্যবস্থাপনা সংগঠন ও সেচ সার্ভিস চার্জ শীর্ষক দু্ই দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালা সম্পন্ন হয়েছে। ফরিদগঞ্জ প্রেসক্লাবে সোমবার বিকেলে কর্মশালার শেষদিনে প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পানি উন্নয়ন বোর্ড কুমিল্লা জোনের মুখ্য সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মোঃ ইনামুর রহমান। উপজেলার সেচ প্রকল্পের ব্যবস্থাপকদের নিয়ে এ কর্মশালায় গোবিন্দপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের পানি ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি জসীম উদ্দিন খানের সভাপতিত্বে বিশেষ আলোচক হিসেব বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর পাউবোর উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মাহবুবুল করিম, হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা মহসীন পাটওয়ারী, উপ-প্রধান সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মমিমুল ইসলাম পাটওয়ারী, উপজেলা সম্প্রসারণ কর্মকর্তা গিয়াস উদ্দিন, ফরিদগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি নুরুন্নবী নোমান ও সাধারণ সম্পাদক প্রবীর চক্রবর্তী।



প্রশিক্ষণের প্রশ্নোত্তর পর্যায়ে উপস্থিত প্রশিক্ষণার্থী স্কীম ম্যানেজারগণ পানি উন্নয়ন বোর্ড এবং সরকারের অপরাপর দপ্তরগুলোর সমন্বয়হীনতার ফলে কৃষকের নানামুখী ক্ষতির চিত্র তুলে ধরেন। খালে পানি সঙ্কটের কারণে পাম্পগুলো বন্ধ থাকায় চলতি মৌসুমে বোরো চাষ মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন তারা। এ সময় তারা খাল খননে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণের অনুরোধ করেন। এছাড়াও তারা বিভিন্ন সময়ে সেচ প্রকল্পের টাকা নিয়ে অনিয়ম, বিদ্যুৎ সমস্যা, প্রকল্প বাস্তবায়ন অধিদপ্তরের সমন্বয়হীনতাসহ ব্যাপক অভিযোগ তুলে ধরেন। সেচ প্রকল্পকে নির্বিঘ্ন করতে ব্যবস্থাগ্রহণের জোর দাবি জানান সেচ প্রকল্পের ব্যবস্থাপক (স্কীম ম্যানেজার)গণ ।



 


এই পাতার আরো খবর -
আজকের পাঠকসংখ্যা
৪৩৭৬৫৬
পুরোন সংখ্যা